দক্ষিণ এশিয়ান দাবা কাউন্সিলের প্রথম সভাপতি বেনজীর আহমেদ

আগের সংবাদ

১১ দফা দাবিতে সারাদেশে নৌযান শ্রমিকদের ধর্মঘট

পরের সংবাদ

মাদকাসক্ত স্বামীর ছুরিকাঘাতে গৃহবধূ’র মৃত্যু

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ২৯, ২০১৯ , ১১:১০ অপরাহ্ণ

রাজধানীর ভাটারা কুড়িল চৌরাস্তায় মাদকাসক্ত স্বামীর ছুরিকাঘাতে আহত কানিজ ফাতেমা টুম্পা (২৫) নামের এক গৃহবধূ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক)মারা গেছেন। চিকিৎসাধীন শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) রাত ৯টার দিকে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) তার মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় স্বামী সাফখাত হাসান রবিন পলাতক রয়েছেন। মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (ইন্সপেক্টর) বাচ্চু মিয়া।

স্বজনরা জানান, তার বাড়ি বরিশাল বাকেরগঞ্জ উপজেলার মধ্য কাটাদিয়া গ্রামে। বাবার নাম শাহ আলম। চার বোনের মধ্যে সে ছিলো সবার বড়। পরিবার নিয়ে থাকতো কুড়িল চৌরাস্তা এলাকার ৭৯/২-এ নম্বর বাসায়। উত্তরার শান্তা মারিয়াম ইউনিভার্সিটির বিবিএ ফাইনাল ইয়ারে পড়তো সে।

টুম্পার ছোটবোন আয়শা আক্তার রুকাইয়া জানান, রবিনের সাথে ৯বছর প্রেমের সম্পর্ক ছিলো টুম্পার। ২মাস আগেই তারা পালিয়ে বিয়ে করে। রবিনও কুড়িল চৌরাস্তা এলাকারই থাকে। পেশায় বেকার সে। বিভিন্ন ধরণের মাদকে আসক্ত রবিন। বিয়ের কয়েকদিন পর থেকেই রবিন তার সাথে খারাপ ব্যাবহার করতে শুরু করে। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বিয়ের ১৫ দিন পর টুম্পা রবিনকে তালাকের উকিলি নোটিশ পাঠায়। এরপর রবিন আবার তার সাথে মিমাংশার চেষ্টা করে। এরপরও বুধবার জোর করে টুম্পাকে সে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে মারধর করে এবং রুমের ভেতর বেধে রাখে। খবর পেয়ে মা বাবা তাকে আনতে গেলেও তাকে দেয়নি রবিন।

টুম্পার খালা নাজমা বেগম জানান, তিনি বাড্ডায় থাকেন। বৃহস্পতিবার তিনিই আবার টুম্পাকে আনতে যান। রাত ৯টার দিকে তাকে নিয়ে পায়ে হেটে বাবার বাসায় ফিরছিলেন। তখন চৌরাস্তার মুচরেই পিছন থেকে রবিন টুম্পার পিঠে ছুরিকাঘাত করে। পরে টুম্পাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে তাকে ঢাকা মেডিকেলের আইসিইউতে ভর্তি করানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন শুক্রবার রাত ৯টায় তার মৃত্যু হয়।