আদিতমারীতে নানাকে পেটালেন নাতি

আগের সংবাদ

কারসাজিতে ৩৩২ প্রতিষ্ঠান

পরের সংবাদ

মিথ্যাচারে দায়িত্ব এড়ানোর কৌশলে মিয়ানমার

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ২৫, ২০১৯ , ১২:৩৬ পূর্বাহ্ণ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে দায়িত্ব এড়ানোর কৌশল হিসেবে মিয়ানমার এবার মিথ্যাচারের আশ্রয় নিয়েছে। তারা অযৌক্তিকভাবে বলতে শুরু করেছে বাংলাদেশের অসহযোগিতার কারণে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হচ্ছে না। সেই সঙ্গে তারা রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে বাংলাদেশ থেকে আসা অবৈধ অধিবাসী হিসেবেও প্রমাণের চেষ্টা করছে।

গত ১৫ নভেম্বর নেপিডতে মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলরের দপ্তরের মুখপাত্র সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, বাংলাদেশের অসহযোগিতার কারণে প্রত্যাবাসন শুরু হচ্ছে না। সেনা মুখপাত্র জ্য মিন তুন বলেছেন, ২০১২ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত রাখাইনের স্থানীয় জনগোষ্ঠী অথবা পুলিশ বা সেনাবাহিনী এই সংকট সৃষ্টি করেনি। বরং সেখানে বসবাসকারী ‘বহিরাগত’রাই এই সংকটের জন্য দায়ী।

মিয়ানমারের এই বক্তব্যকে মিথ্যাচার ও দায়িত্ব এড়ানো কৌশল হিসেবে উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় থেকে প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। রোববার (২৪ নভেম্বর) প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, মূলত ওই সব অযৌক্তিক ও মিথ্যা দাবি করে রাখাইনে সহায়ক পরিবেশ তৈরির যে দায়িত্ব মিয়ানমারের রয়েছে, সেটি তারা এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। মিয়ানমারের বিভিন্ন সরকারের আমলে সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীকে ন্যায্য অধিকার থেকে অব্যাহতভাবে বঞ্চিত করা আর নিষ্ঠুর নির্যাতনের কারণে যে রোহিঙ্গা সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে সেটা প্রতিষ্ঠিত সত্য।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়েছে, সমস্যাটা মিয়ানমার তৈরি করেছে এবং এর সমাধানও মিয়ানমারকেই করতে হবে। রোহিঙ্গা সমস্যা দীর্ঘায়িত হওয়ার জন্য মিয়ানমারই দায়ী। মিয়ানমার দাবি করছে, কতিপয় রোহিঙ্গা ফেরত গেছে। কিন্তু এটি প্রমাণ করে না যে, এর ফলে সেখানকার পরিস্থিতির কোনো উন্নতি হয়েছে।

রাখাইনের পরিস্থিতি উন্নতি হওয়ার বিষয়ে মিয়ানমারের দাবির প্রসঙ্গে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, তাদের দাবি সত্য হয়ে থাকলে জাতিসংঘ, গণমাধ্যম এবং রোহিঙ্গা নেতাদের রাখাইন ঘুরে দেখার সুযোগ দেয়া হোক। এতে সেখানকার পরিবেশ সম্পর্কে তারা রোহিঙ্গাদের জানাবেন। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতেই ফিরে যাওয়ার ব্যাপারে রোহিঙ্গারা যথাযথ সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন।

এর আগে জাতিসংঘের আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গাম্বিয়ার দায়ের করা মামলাকে দেশটির সেনাবাহিনী ‘আশীর্বাদ’ হিসেবেই দেখতে শুরু করেছে। সেনা মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জ্য মিন তুন বলছেন, রাখাইন সংকটের কারণ ‘বহিরাগত’রা। আন্তর্জাতিক আদালতের মামলায় সেটাই ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করবে নেপিদো।