সমুদ্র সন্ত্রাসে সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন

আগের সংবাদ

মিডিয়া ফেলোশিপ পেল ১৫ সাংবাদিক

পরের সংবাদ

বটতলা রঙ্গমেলায় ভারতের ‘ব্ল্যাক হোল’

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ২৫, ২০১৯ , ৮:৫১ অপরাহ্ণ

 ‘নৃশংস নৈঃশব্দ্য ভেঙে সুনন্দ সাহস জাগুক প্রাণে প্রাণে’- স্লোগানকে সামনে রেখে রাজধানীর আগারগাঁও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে শুরু হয়েছে জমজমাট আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসব ‘বটতলা রঙ্গমেলা ২০১৯’। নানা আয়োজনে প্রতিদিনই মুখরিত থাকছে উৎসবস্থল। আসরের মূল আকর্ষণ দেশি-বিদেশি দর্শকনন্দিত মঞ্চনাটক।

এই আয়োজনে অংশগ্রহণকারী দেশগুলো হলো বাংলাদেশ, ভারত, স্পেন, ইরান ও নেপাল। প্রতিদিন বহিরাঙ্গনে ‘নাদিম মঞ্চে’ নাটক, গান, কবিতা, মূকাভিনয়, নাচসহ বিভিন্ন আনন্দ আয়োজন।

প্রতি সন্ধ্যা নাট্য মঞ্চায়নের ধারাবাহিকতায় সোমবার (২৫ নভেম্বর) ‘বটতলা রঙ্গমেলা’র ১০ম সন্ধ্যায় প্রদর্শিত হয় ভারতের মুম্বাইয়ের নাটক ‘ব্ল্যাক হোল’। নাটকটির নির্দেশনা দিয়েছেন জ্যোতি ডোগরা। আয়োজনে নির্দেশকের মুখোমুখি একটি বিভাগ রয়েছে। সেই বিভাগের অতিথি হিসেবেও উপস্থিত ছিলেন জ্যোতি ডোগরা।

এছাড়াও সন্ধ্যায় উৎসবের নাদিম মঞ্চে সঙ্গীত পরিবেশন করে ‘পথের দল’। জনপ্রিয় এই গানের দলটি বটতলার রঙ্গমঞ্চে গাইল তাদের জনপ্রিয় সব গান।
পথের দলের পক্ষ থেকে বলা হয়, পথে গানে অথবা গানে পথে ফেরি করার আকাংখা বহুদিন ধরেই তাদের। কোনো এক পড়ন্ত বিকেলে অনেকটা হঠাৎ করেই পথ চলা শুরু ‘পথের দল’র। পথে পথেই পথ চলতে শেখা। বহু বহু দিনের জমানো কথা বলতে না পারার যন্ত্রণা, বহু আত্ম-উপলব্ধির বিকাশে বাঁধাই হয়তো বা গানের রাস্তায় পথ চলতে চাওয়ার কারণ। আসলেই সে পথে কী আছে জানা নেই। শুধু ধারণ করা অনুভূতিগুলো জানানো। ভাগ করে নেওয়া পথ চলার আনন্দটুকু অথবা একই সাথে কষ্টের পরিহাস… সবকিছুর শেষে পথেরই মানুষ…‘পথের দল’। এতে বাঁশিতে ছিলেন তপু, গিটারে সৈকত, বেইজ গীটারে তিশান, পারকাশনে বাবু, দোতারায় পার্থ, ভোকাল ও কাহনে ছিলেন দেবাশীষ।

এরপর বটতলা অন্তরালের সম্মাননা ২০১৯ তুলে দেয়া হয় আলোক সহকারী মনির হোসেন এবং মঞ্চ সহকারী মো: মনির হোসেনকে।