মন্দভাগে ট্রেন দুর্ঘটনা তূর্ণার চালক-গার্ডের দোষে: রেলমন্ত্রী

আগের সংবাদ

রোহিঙ্গা প্রত‌্যাবাসনে কম্বোডিয়ার সহযোগিতা চাইলেন স্পিকার

পরের সংবাদ

কিডনি প্রতিস্থাপনে

গরিবদের জন্য দেড় লাখ, ধনীদের আড়াই লাখ

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ২০, ২০১৯ , ৬:৫৩ অপরাহ্ণ

মানবদেহের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজন বা কিডনি প্রতিস্থাপন করতে দরিদ্র রোগীদের জন্য খরচ হবে দেড় লাখ এবং বিত্তবানদের জন্য তা আড়াই লাখ লাগবে বলে মনে করেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

বুধবার (২০ নভেম্বর) গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে ২০১৮ সালের সংশোধিত মানবদেহে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজন আইনের অসম্পূর্ণতা ও সমস্যা সম্পর্কে অবহিতকরণের উদ্দেশ্যে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এসব কথা বলেন।

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশের ২০১৮ সালের সংশোধিত মানবদেহে অঙ্গ প্রত্যঙ্গ সংযোজন আইনের পরিধি অত্যন্ত সীমিত ও সংকীর্ণ। কিডনি প্রতিস্থাপনের কোন সুব্যবস্থা আইনে নেই। এই আইনে নাগরিক অধিকার ক্ষুন্ন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, উন্নত দেশসমুহ ও ইরানের ন্যায় সুস্থ জাতীয় ও অনাত্মীয় সকলের অংগদানের সুযোগ থাকা বাঞ্চনীয়। আমাদের আশেপাশের দেশগুলোতেও আইন এরকম অধিকার হরণমূলক নয়। দেশে মানুষের গড় আয়ু বেড়েছে। অথচ দাতা ও গ্রহীতার বয়স ৬৫ থেকে ৭০ বৎসরের মধ্যে সীমিত করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, প্রত্যেক জেলায় একটি প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ থাকবে যার সভাপতি হবেন একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি বা চিকিংসক বা সিনিয়র শিক্ষক বা সাংবাদিক বা মুক্তিযোদ্ধা কিংবা দানশীল ব্যক্তি। তিন ধরনের জীবিত অংগদান আইনসিদ্ধ হবে- জীবিত আত্মীয় থেকে দান, জীবিত অনাত্মীয় থেকে দান, বন্ধুত্ব ও আবেগজনিত কারনের নিমিত্তে। আর অঙ্গদানকারীকে ইরানের ন্যায় ন্যূনতম ৫ লাখ টাকা পুরস্কার এবং প্রয়োজনে দাতার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চিকিংসা সুবিধা দেয়ার সুপারিশ করেন তিনি।

/এসএইচ