রোনালদোর নিরান্নবই গোলে ইউরোতে পর্তুগাল

আগের সংবাদ

সিনিয়র জুনিয়র দ্বন্দ্ব, ছুরিকাঘাতে ২ শিক্ষার্থী আহত

পরের সংবাদ

ইডেনে থাকছেন ইমরুল!

খেলা প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ১৮, ২০১৯ , ১০:৪৭ অপরাহ্ণ

ভারতের বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে ভরাডুবি হয় বাংলাদেশের। ম্যাচটি মুমিনুল হকের দল হারে এক ইনিংস ও ১৩০ রানের বড় ব্যবধানে। পুরো ম্যাচে বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের অবস্থা ছিল যাচ্ছেতাই। বিশেষ করে দুই ইনিংসেই ভারতীয় পেসারদের গতির কাছে মুখ থুবড়ে পড়েন দুই ওপেনার সাদমান ইসলাম ও ইমরুল কায়েস।
প্রথম ইনিংসে দুজন সমান ৬ রান করে করেছিলেন। দ্বিতীয় ইনিংসেও প্রথম ইনিংসের পুনরাবৃত্তি করে দুজন সমান ৬ রান করে আউট হয়েছিলেন। শুধু তাই নয়, সাদমান ইসলাম প্রথম ইনিংসের পর ও দ্বিতীয় ইনিংসেও ইশান্ত শর্মার বলে আউট হয়েছিলেন। অন্যদিকে ইমরুল কায়েস প্রথম ইনিংসে উমেশ যাদবের বলে পরাস্ত হওয়ার পর দ্বিতীয় ইনিংসেও এই উমেশের বলেই পরাস্ত হয়েছিলেন।
সাদমান ভারতের বিপক্ষে টেস্টটিসহ ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত পাঁচটি টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন। অন্যদিকে ইমরুল কায়েসের ছিল এটি ৩৮তম ম্যাচ। টেস্ট ক্রিকেটে হিসাব করলে অনেক অভিজ্ঞ একজন ব্যাটসম্যান। কিন্তু অভিজ্ঞতার কোনো ছাপই রাখতে পারেননি ইমরুল।
প্রথম টেস্টে দুই ইনিংস মিলিয়ে এমন অনুজ্জ্বল থাকার পর তাকে নিয়ে ভাবতে শুরু করেছে নির্বাচকরা। তার বদলে ওপেনার হিসেবে দেখা যেতে পারে সাইফ হাসানকে। এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। বিপিএলের প্লেয়ার ড্রাফটসে অংশ নিতে ভারত থেকে দেশে আসেন তিনি। সেখানেই নান্নু জানান ইমরুলের বিকল্প ভাবা হচ্ছে। দ্বিতীয় টেস্টে তার বদলে খেলতে পারেন আরেক ওপেনার সাইফ হাসান।

কলকাতা টেস্টে কি কোনো পরিবর্তন আনা হবে? এমন প্রশ্নের জবাবে মিনহাজুল আবেদিন নান্নু বলেন, আসলে দলে পরিবর্তন আনা হবে কিনা তা এখনো বলা যাচ্ছে না। কোচ, অধিনায়ক ও আমরা বসে ঠিক করব। এ নিয়ে আলোচনা হবে। নানা পর্যালোচনার পর বলতে পারব। তিনি আরো বলেন, ইমরুলকে বসিয়ে সাইফকে দ্বিতীয় ম্যাচে নামানোর বিষয়টি আমাদের চিন্তায় আছে। যদি রদবদল হয়, তবে ওই একটিই পরিবর্তন ঘটবে। না হয় প্রথম একাদশই ঠিক থাকবে।
তবে ব্যাপারটি নিয়ে কিছুটা দোটানায়ও রয়েছেন নির্বাচকরা। কারণ সাইফ হাসানের এখনো টেস্টে অভিষেক হয়নি। ভারতের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচটি আবার হবে গোলাপি বলে। তাই অভিষেক ম্যাচেই তাকে এমন কঠিন ম্যাচে মুখোমুখি করানো হবে কিনা সেটি নিয়েও ভাবছে নির্বাচক প্যানেল।
এদিকে ভারতের বিপক্ষে সিরিজে তামিম ইকবাল তার নাম প্রত্যাহার করে নিলে টেস্ট দলে সুযোগ পান ইমরুল কায়েস। টেস্ট দলে সুযোগ পাওয়ার আগে জাতীয় ক্রিকেট লিগে পারফরমেন্স করেন তিনি। পেয়ে যান একটি ডাবল সেঞ্চুরিও। তা ছাড়া আরেক ম্যাচে আরেকটি সেঞ্চুরির কাছেও পৌঁছে গিয়েছিলেন। জাতীয় লিগে ভালো পারফরমেন্স করে জাতীয় দলে এসে একদম শূন্য হাতে ফিরতে হলো তাকে। বেশ কয়েকদিন আগে বিশ^সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান প্রশ্ন তুলেছিলেন জাতীয় লিগের মান নিয়ে। তিনি এমনও মন্তব্য করেছিলেন জাতীয় লিগে সেঞ্চুরি হাঁকানো ব্যাটসম্যান আন্তর্জাতিক পর্যায়ে যেয়ে ১০-১৫ রানও করতে পারে না। সাকিবের কথাটাই যেন অক্ষরে অক্ষরে মিলে গেল!।