মহিলা দলের দুই গ্রুপে হাতাহাতি

আগের সংবাদ

টাইগারদের লজ্জায় ডোবাল ভারত

পরের সংবাদ

ইমার্জিং কাপে ভারতকে হারাল টাইগাররা

খেলা প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ১৬, ২০১৯ , ১০:২৯ অপরাহ্ণ

ইমার্জিং এশিয়া কাপের গ্রুপ পর্বের ম্যাচে ভারতকে হারিয়েছে বাংলাদেশ ইমার্জিং দল। এ জয়ের ফলে প্রতিযোগিতাটিতে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়েছে টাইগাররা। নিজেদের প্রথম ম্যাচে হংকংকে হারিয়েছিল তারা। এ জয়ের মধ্য দিয়ে গ্রুপ ‘বি’ থেকে সেমিফাইনালের ঘরে বলতে গেলে এক পা দিয়ে দিল বাংলাদেশ। সোমবার (১৮ নভেম্বর) গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে নেপালের মুখোমুখি হবে টাইগাররা। নেপালের বিপক্ষে ম্যাচটি জিতলে সরাসরি সেমিফাইনাল নিশ্চিত হবে সৌম্য-নাইমদের। আর যদি বাংলাদেশ ম্যাচটি হারে তাহলে রান রেটের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে। যদিও রানরেটের দিক দিয়ে নেপাল ও ভারতের চেয়ে অনেক এগিয়ে আছে টাইগাররা।

অন্যদিকে টানা দুই ম্যাচ হেরে আসর থেকে ইতোমধ্যেই বিদায় নিশ্চিত হয়ে গেছে হংকংয়ের। ম্যাচটিতে শনিবার (১৬ নভেম্বর) টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং নেয়ার সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশি অধিনায়ক নাজমুল হাসান। ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়ে ২৪৬ রানে আটকে দেয় বাংলাদেশ। ভারত পুরো পঞ্চাশ ওভার ব্যাটিং করে সবগুলো উইকেট হারিয়ে এই রান তুলতে সমর্থ হয়। ব্যাটিংয়ে ভারতের হয়ে সেঞ্চুরি তুলে নেন আরমান জাফর। আউট হওয়ার আগে ৯৮ বল খেলে ১০৫ রান করেন তিনি। ভারতের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন বিনায়েক গুপ্ত। বাংলাদেশের হয়ে ভারতের বিপক্ষে সর্বোচ্চ ৪টি উইকেট তুলে নেন সুমন খান। ১০ ওভার বল করে ৬৪ রান খরচায় এই উইকেটগুলো তুলে নেন তিনি।

ভারতের ছুড়ে দেয়া এই লক্ষ্য ৪ উইকেট হারিয়ে ৪২ ওভার ১ বলেই ছুঁয়ে ফেলে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ রান আসে অধিনায়ক নাজমুল হাসানের ব্যাট থেকে। আউট হওয়ার আগে ৮৮ বলে ৯৪ রান করেন তিনি। পুরো ম্যাচে বাংলাদেশের আক্ষেপ এই একটিই। সেঞ্চুরির খুব কাছে গিয়েও সেঞ্চুরি তুলে নিতে পারেননি নাজমুল। বাংলাদেশের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৭৩ রান আসে সৌম্য সরকারের ব্যাট থেকে। ইমার্জিং এশিয়া কাপে টানা দুই ম্যাচেই হাফসেঞ্চুরি তুলে নিলেন তিনি।

এদিকে অভিজ্ঞতার বিচারে ভারতের এই দলটির চেয়ে ঢের এগিয়ে আছে বাংলাদেশ ইমার্জিং দল। নামে ইমার্জিং হলেও দলটিতে রয়েছেন জাতীয় দলে খেলা ৬ জন খেলোয়াড়। তা ছাড়া বিপিএলে খেলার অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ইয়াসির আলীও রয়েছেন দলে। অন্যদিকে ভারতীয় এই দলটির কারোই নেই জাতীয় দলে খেলার অভিজ্ঞতা। সে হিসেবে অভিজ্ঞতার পুরোপুরি সুবিধাই তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ।