সঙ্কটাপন্ন লতা মঙ্গেশকর, রয়েছেন লাইফ সাপোর্টে

আগের সংবাদ

পাটকল শ্রমিকদের বিক্ষোভ মিছিল

পরের সংবাদ

ঘরের মাঠে নাঈমের পরীক্ষা

খেলা প্রতিবেদক :

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ১৩, ২০১৯ , ২:৫৯ অপরাহ্ণ

অসাধারণ পায়ের কাজ, লম্বা ইনিংস খেলার তাড়না আর দৃষ্টিনন্দন সব স্ট্রোকের ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম শেখ বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি। ভারতের মাটিতে টি-টোয়েন্টি সিরিজে ব্যাট হাতে ঝড় তুলে আলোচনায় ২০ বছরের এ তরুণ তুর্কি। ৩ ম্যাচে ৪৭.৬৬ গড়ে ১৪৩ রান করে সবচেয়ে সফল ব্যাটসম্যান দেশে ফিরেই আবার ব্যস্ত হয়ে পড়ছেন এশিয়ান ইমার্জিং ক্রিকেটে।

চার টেস্ট খেলুড়ে দেশ বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কাসহ এশিয়ার ৮ দেশকে নিয়ে কাল থেকে শুরু হচ্ছে এ আসর। মোহাম্মদ নাইম শেখ, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব ও আফিফ হোসেন ধ্রুব রয়েছেন বাংলাদেশ ইমার্জিং দলে। বাঁ-হাতি টপ অর্ডার নাজমুল হোসেন শান্ত বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক। গত ১০ নভেম্বর থেকে শেরেবাংলায় লঙ্কান কোচ চম্পকা রামানায়েকের অধীনে চলছে স্বাগতিকদের অনুশীলন।

গত সেপ্টেম্বরে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের মাঝপথে আকস্মিক বাংলাদেশ দলে অন্তর্ভুক্ত করা হলেও মূল একাদশে নাঈমের জায়গা হয়নি। এতে হতাশ না হয়ে জাতীয় দলের ড্রেসিংরুমে জায়গা পাওয়াটাই ছিল তার কাছে বড় প্রাপ্তি। বলেছেন, অনেক কিছু শিখেছি, যা পরের সিরিজে কাজে দেবে। আসলেই তাই ! মাত্র তিনটা টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে জাতীয় দলে অভিষিক্ত নাঈম এরই মধ্যে র‌্যাঙ্কিংয়ে নিজেকে এগিয়ে নিয়েছেন। বাংলাদেশের ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম শেখ টি-টোয়েন্টি ব্যাটসম্যানদের মধ্যে এখন ৩৮তম অবস্থানে।

ফরিদপুরের শহরতলি থেকে উঠে আসা নাঈমের ক্যারিয়ারের বড় টার্নিং পয়েন্ট গত ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ। লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের হয়ে ১৬ ম্যাচে ৫৩.৮০ গড়ে ৩ সেঞ্চুরি ও ৫ ফিফটিতে ৮০৭ রান করে হয়েছিলেন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক। প্রিমিয়ার লিগের পারফরমেন্স তাকে নিয়ে আসে নির্বাচকদের নজরে। গত পাঁচ ম্যাচে ‘এ’ দল, ইমার্জিং দল যেখানেই সুযোগ পেয়েছেন ধারাবাহিক ভালো খেলেছেন। সবশেষ অক্টোবরে শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দলের বিপক্ষেও দুর্দান্ত খেলেছেন।

দল জেতাতে না পারলেও নাগপুরে ভারতের বিপক্ষে ১৬৮.৭৫ স্ট্রাইকরেটে ১০ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় ৪৮ বলে ৮১ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে সাহসী বীর বনে গেছেন নাইম শেখ। তার ব্যাটিং দেখতে দেখতে ধারাভাষ্যকার সুনীল গাভাস্কার বলে উঠছিলেন, ‘ওয়াও, হোয়াট আ শট!’ তার সঙ্গী আতহার আলী খানের কণ্ঠেও ঝরছিল মুগ্ধতা, ‘এলিগেন্ট ড্রাইভ! সুপার্ব এক্সিকিউশান!’

নির্বাচক হাবিবুল বাশারও মেতে উঠলেন নাঈম-বন্দনায়, নাঈম শেখের রান করা বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য ভালো খবর। দুই বছর ধরে হাইপারফরমেন্স ইউনিটে সে ছিল। দেখে মনে হচ্ছে সে একজন ভালো পারফর্মার। প্রথম দুই ম্যাচে বড় ইনিংস খেলতে না পারলেও শেষ ম্যাচে সফল হয়েছে নাঈম।

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে রান করতে বিশেষ ক্ষমতা লাগে। তার পিছনে আমাদের ইনভেস্টমেন্ট ভবিষ্যতে আরো কাজে আসবে। অনেকেই তার মাঝে তামিম ইকবালের শুরুর ‘ছায়া’ খুঁজে পাচ্ছেন। দেশ সেরা ওপেনার ও ব্যাটিংয়ের অন্যতম স্তম্ভ তামিম ইকবালের জায়গায় শেষ মুহূর্তে দলে ঢুকেছেন এ বাঁ-হাতি। সন্তান সম্ভবা স্ত্রীর পাশে থাকতে ভারত সফর থেকে শেষ মুহূর্তে তামিম সরে গেলে নির্বাচকরা নাইমকে বিকল্প হিসেবে বেছে নেন।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু নাইমের ব্যাটিংয়ের প্রশংসা করে বলেন, দারুণ ব্যাটিং করেছে নাইম। অভিষেকে যথেষ্ট ভালো খেলেছে। সাহস আর আস্থা দুইই দেখিয়েছে। অনেক দূর যাবে সে। কোচ রাসেল ডমিঙ্গো নাঈমকে নিয়ে বলছিলেন, টি-টোয়েন্টিতে তার ভালো রেকর্ড নেই। তবে ভবিষ্যতের খেলোয়াড়দের দেখতে এটিই সেরা সংস্করণ। জানি না তামিম, মুশফিক, রিয়াদ কত দিন খেলবে বাংলাদেশ দলের হয়ে। তবে তরুণদের জন্য নিজেদের সামর্থ্য প্রমাণে এটাই সেরা সুযোগ।