এনজিও কর্মকর্তার বিরুদ্ধে রোহিঙ্গাদের উসকানির অভিযোগ

আগের সংবাদ

পেঁয়াজের কেজি ৮ টাকা, কাঁদছে ভারতের কৃষক

পরের সংবাদ

স্বজনদের খুঁজে পেলে সেই শিশুটি

কসবা (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ১২, ২০১৯ , ৯:০৭ অপরাহ্ণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে মাথায় ব্যান্ডেজ বাঁধা রক্তাক্ত সেই শিশুটি অবশেষে খুঁজে পেয়েছে তার স্বজনদের। সেই সঙ্গে জানা গেছে তার নাম নাইমা। বাবার মাইনুদ্দিন রাজধানীর একটি হোটেলে কাজ করেন। মায়ের নাম কাকলি (২০)। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় তার মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে পাঁচটার শিশুটির দুই স্বজন ফরিদ মুন্সী ও জাহাঙ্গীর। বর্তমানে নাইমাকে সার্জারি ওয়ার্ডে নার্সদের কক্ষে রাখা হয়েছে। কারণ, মানুষ শিশুটিকে দেখতে ভিড় করছে। আর একটু পরপরই বাইরে যাওয়ার কথা বলছে শিশুটি। তাকে মাকে খুঁজে ফিরছে।

শিশুটি বাবা নইমুদ্দিন জানান, তার স্ত্রী কাকলি আক্তার, মেয়ে নাইমা, মামা জাহাঙ্গীর মাল, মামি আমাতন বেগম ও মামাতো বোন মরিয়ম মিলে তারা সিলেটের হজরত শাহজালাল (রা.) ও হজরত শাহপরানের (রা.) মাজার জিয়ারত করতে গিয়েছিলেন। তারা সিলেট থেকে উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনে করে চাঁদপুরে ফিরছিলেন। পথিমধ্যে দুর্ঘটনায় তার স্ত্রী, মামি ও মামাতো বোন প্রাণ হারিয়েছে।

হাসপাতালের সার্জারি বিভাগ থেকে জানানো হয়েছে, শিশুটি মাথায় বেশ আঘাত পেয়েছে। এছাড়া তার ঠাণ্ডা সমস‌্যা রয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দেবার পর শিশুটিকে নার্সদের রেস্ট রুমে রাখা হয়েছে।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) রাত পৌনে ৪টায় কসবা উপজেলার মন্দভাগ রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী তূর্ণা নিশীথা এক্সপ্রেসের সাথে সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেসের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এই ভয়াবহ দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক।