মুজিববর্ষে ক্রীড়াঙ্গনে আয়োজন

আগের সংবাদ

মার্শাল আর্ট উশু

পরের সংবাদ

সেন্টমার্টিনে আটকা পড়েছেন দেড় হাজার পর্যটক

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ৮, ২০১৯ , ২:১৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: নভেম্বর ৮, ২০১৯, ২:৪৯ অপরাহ্ণ

Avatar

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুলের’ কারণে সব ধরনের নৌ চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে সেন্টমার্টিন দ্বীপে। সেখানে সতর্ক সংকেত জারি করা হয়েছে। ফিরতে না পারায় দ্বীপে আটকা পড়েছেন দেড় হাজারের বেশি পর্যটক। আবার যারা শুক্রবার (৮ নভেম্বর) সেন্টমার্টিনে যাওয়ার জন্য বের হয়েছিলেন তারাও পড়েছেন বিপাকে। টেকনাফ ঘাটতে থেকে ফিরে আসতে হয়েছে সহস্রাধিক পর্যটককে।

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এখন অবস্থান করছে পূর্ব মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎ সংলগ্ন এলাকায়। সাগর একেবারেই উত্তাল হয়ে পড়েছে। এ কারণে কক্সবাজার সমুদ্র উপকূলে জারি করা হয়েছে ৪ নম্বর সতর্ক সংকেত। সব ধরনের নৌযান ও জাহাজ চলাচল বন্ধ করে দিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) টেকনাফ অঞ্চলের সমন্বয় কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন জানিয়েছেন, উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব ধরনের নৌযানকে দ্রুত নিরাপদ আশ্রয় নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে দ্বীপে বেড়াতে এসে আটকা পড়া পর্যটকেরা নিরাপদে রয়েছেন। আবহাওয়া স্বাভাবিক হলে তাদের ফিরিয়ে আনা হবে।

এদিকে, শুক্রবার সকাল থেকে টেকনাফের দমদমিয়া জেটিঘাটে ভিড় করেছিলেন সহস্রাধিক পযর্টক। তবে জাহাজ চলাচল বন্ধ থাকায় কক্সবাজারে ফিরে গেছেন। অনেকেই টেকনাফের হোটেলগুলোতে অবস্থান নিয়েছেন।

হোটেল ব্যবসায়ীরা বলছেন, ছুটির দিনে পর্যটক সমাগম বেড়ে যাওয়ার জন্য সেন্ট মার্টিন দ্বীপে ব্যাপক আয়োজন নিয়েছিলেন তারা। আগামী রোববার (১০ নভেম্বর) পর্যন্ত দ্বীপের হোটেল-মোটেল ছাড়াও স্থানীয়দের বহু ঘরবাড়ি আগে থেকেই বুকিং ছিল পর্যটকদের জন্য। তবে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে জাহাজ চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দেড় কোটি টাকার মতো লোকসান গুণতে হবে ব্যবসায়ীদের।