দুর্বল কোম্পানির শেয়ারে নড়বড়ে পুঁজিবাজার

আগের সংবাদ

নিয়োগ প্রক্রিয়ায় আটকে আছে কার্যক্রম

পরের সংবাদ

দেনমোহরের অর্থের বদলে ‘বই’ নিলেন

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ৫, ২০১৯ , ১০:৩৫ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: নভেম্বর ৫, ২০১৯, ১০:৩৫ পূর্বাহ্ণ

Avatar

মুসলিম বিবাহ রীতিতে বরের পক্ষ থেকে কনেকে দেনমোহর হিসেবে নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা দেয়ার বিধান রয়েছে। তবে এ প্রথা ভেঙে দেনমোহরের অর্থের বদলে বই চাইলেন আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের এক নারী শিক্ষার্থী। বিয়ের সময় হবু বর মেহেবুব সাহানার কাছে বই চাইলেন প্রথাবিরোধী সানজিদা পারভিন। হবু স্ত্রীর মন বুঝতে ভুল করেননি জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএইচডি ডিগ্রিধারী মেহেবুবও। সানন্দেই স্ত্রীর আকাক্সক্ষা পূরণ করেছেন তিনি। গত ১২ অক্টোবর ওই দম্পতির বিয়ে উপলক্ষে কেনা হয় ৫০ হাজার টাকার বই।
ইংরেজি বিভাগে পিএইচডিরত সানজিদার কাজের পরিধি অনুযায়ী, বেদ-বাইবেল বিষয়ক বইও কিনতে হয়েছে তার। দুইজনেরই এক কথা, ব্যক্তিজীবনে আমরা মুসলিম। তবে একইসঙ্গে আমরা ভারতীয়, বাঙালি ও দুজন একুশ শতের মানুষ। একুশ শতকের চোখে তাকিয়েই মোহরের রীতি বুঝতে চেয়েছি। যদিও দুজনের পরিবারেই কেউ কেউ মোহর বাবদ টাকা নিতে হবে বলে দাবি তোলেন। তবে আয়োজনে শেষ কথা বলেন বর-কনে দুজনই।
রেল-কর্মকর্তার কন্যা সানজিদা জানান, বাবাকে দেখেছি, ধর্মের নিয়ম মেনে জাকাত বা গরিব দুঃখিকে রোজগারের অংশ দান করার সময়ে টাকার বদলে শিক্ষা দিয়ে সাহায্য করতে। গরিবদের মধ্যে হিন্দু-মুসলিম ভেদাভেদ মানেন না তিনি। দেনমোহর হিসেবে টাকার বদলে বই নেয়ার সিদ্ধান্তের নেপথ্যে তার বাবার আদর্শ ভ‚মিকা রেখেছে বলে তিনি জানান। মেহেবুব-সানজিদা দুজনই মনে করেন, কনে চাইলে দেনমাহর হিসেবে সেলাই মেশিন বা অন্য কাজের জিনিসও চাইতে পারেন। কিন্তু যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেনমোহরের অধিকারটুকু ঠিকঠাক কাজে লাগানোই বড় কথা।