খালেদার স্বাস্থ্য পরিস্থিতি গোপন করা হচ্ছে

আগের সংবাদ

ফিরে এসো খোকা, আমি অপেক্ষায়...

পরের সংবাদ

সংসদীয় কমিটির বৈঠক

প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকদের দশম গ্রেড দিতে সুপারিশ

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ৩০, ২০১৯ , ৭:১১ অপরাহ্ণ | আপডেট: অক্টোবর ৩০, ২০১৯, ৭:১১ অপরাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা এখনো কেন দশম গ্রেড পাচ্ছেন না তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। এসময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা তুলে ধরে দ্রুত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের দশম গ্রেড দেবার সুপারিশ করেন। এর উত্তরে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বিষয়টি সত্যতা মেনে নিয়ে সংশ্লিষ্ট সচিব বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের এখনো দশম গ্রেড বাস্তবায়ন হয়নি। তাদের ১১তম গ্রেডই দেওয়া হচ্ছে। আর সহকারী শিক্ষকরা পাচ্ছেন ১৩তম গ্রেড। আমরা নতুন নিয়োগ বিধির সুপারিশ করেছি। ওই নিয়োগ বিধি বাস্তবায়ন হলে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসারদের পদটি ৯ম গ্রেডে উন্নীত হবে। সেটা হলেই আমরা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের স্কেল আপগ্রেড করে ১০ গ্রেড করতে পারবো। বুধবার (৩০ অক্টোবর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

জাতীয় সংসদের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির পঞ্চম বৈঠক কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান- এর সভাপতিত্বে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে কমিটির সদস্য ও প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন, মেহের আফরোজ, নজরুল ইসলাম বাবু, ইসমাত আরা সাদেক, শিরীন আখতার,আলী আজম এবং ফেরদৌসী ইসলাম অংশগ্রহণ করেন।

প্রসঙ্গত, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের ‘নন-ক্যাডার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়োগ বিধি ১৯৮৫’ সংশোধনের প্রস্তাব জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। নতুন বিধিমালায় সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে নবম গ্রেড দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। এ পদে সরাসরি নিয়োগ ও পদোন্নতির মাধ্যমে পদায়নের সুপারিশ করা হয়েছে। প্রস্তাবিত বিধিতে উপজেলা শিক্ষা অফিসারের পদ সপ্তম গ্রেড করা হয়েছে। পদটি পুরোপুরি পদোন্নতির মাধ্যমে নিয়োগের কথাও বলা হয়েছে। বিধিতে পর্যায়ক্রমে অন্যান্য পদও আপগ্রেড করার সুপারিশ করা হয়েছে। এই বিধিমালায় প্রধান শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড দেওয়ার প্রস্তাবও করা হয়েছে।

বৈঠকের বিষয়ে জানতে চাইলে কমিটির সদস্য এমপি আলী আজম বলেন, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন স্কেল নিয়ে আলোচনা হয়েছে। মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এটি সরকারের উচ্চ পর্যায়ের বিবেচনাধীন আছে। শিগগিরই এর একটা সুরাহা হবে।