জাতীয় পার্টিতে দুর্নীতিবাজ নেই: জিএম কাদের

আগের সংবাদ

খালেদার চিকিৎসায় চিকিৎসকদের বক্তব্যে অসামঞ্জস্য: বিএনপি

পরের সংবাদ

কুপ্রস্তাবে ব্যর্থ হয়ে ধর্ষণ, পরে নগ্নছবি ধারণ

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ২৮, ২০১৯ , ৬:২৯ অপরাহ্ণ | আপডেট: অক্টোবর ২৮, ২০১৯, ৬:৩৩ অপরাহ্ণ

Avatar

তালাকপ্রাপ্ত এক সন্তানের জননীকে বেশ কিছুদিন থেকেই কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন বিদেশ ফেরত এক যুবক সিদ্দিক (৩০)। তবে গৃহবধূর কাছ থেকে কোনো সাড়া না পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন যুবকটি।

এক পর্যায়ে রাতে গৃহবধূর পথ আটকে মুখ চেপে ধরে নির্জন জায়গায় নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেন। এসময় মোবাইল ক্যামেরায় গৃহবধূর নগ্ন ছবিও ধারন করা হয়। এ কাজে সিদ্দিককে সহযোগিতা করেন হিমাদুল মোল্যা (৩২) নামের এক যুবক।

ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার (২৫ অক্টোবর) ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার চরঘোষপুর গ্রামে। নির্যাতিতা নারী ঘটনার দুদিন পর রোববার (২৭ অক্টোবর) বোয়ালমারী থানায় ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করেছেন।

মামলায় ধর্ষক সিদ্দিক (৩০), চরঘোষপুর গ্রামের জহুরুল মোল্যার ছেলে হিমাদুল মোল্যা (৩২) ও অজ্ঞাতনামা একজনকে আসামি করা হয়েছে। পুলিশ অভিযান চালিয়ে হিমাদুল মোল্যাকে গ্রেপ্তার করেছে। ধর্ষক ও অপর একজন পলাতক রয়েছে।

বোয়ালমারী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুর রহমান জানিয়েছেন, ধর্ষণের ঘটনায় সহযোগি হিমাদুলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পলাতক দুজনকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। ওসি জানান, ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

থানা ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, তালাকপ্রাপ্ত নারীটিকে বিদেশ ফেরত সিদ্দিক বিভিন্ন সময় কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। তার সে প্রস্তাবে সাড়া না দেয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন সিদ্দিক। এক পর্যায়ে গত শুক্রবার পাশের ভাইয়ের বাড়ি থেকে টিভি দেখে ফেরার পথে রাত সাড়ে ৯টার দিকে ফাঁকা জায়গায় পৌঁছালে গৃহবধূর পথরোধ করে সিদ্দিক।

এরপর মুখ চেপে ধরে পাশের সোমালী মোল্যার বাড়ির কাছে ঈদগাহে নিয়ে যান। ভয় দেখিয়ে বিবস্ত্র করে প্রথমে মোবাইলে নগ্ন ছবি তোলেন। এরপর ধর্ষণ করেন। সিদ্দিকের সহযোগি হিমাদুল ও অজ্ঞাত একজন গৃহবধূর হাত-পা চেপে ধরে ধর্ষণে সহায়তা করে।