টিভি সেটের ওপর লাইসেন্স ফি চায় কমিটি

আগের সংবাদ

জিপির কাছে বিটিআরসির পাওনা আদায় শুনানি ২৪ অক্টোবর

পরের সংবাদ

সব উপজেলায় হবে কমিউনিটি ভিশন সেন্টার

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: October 21, 2019 , 6:29 pm

চক্ষু চিকিৎসা সেবাকে দেশের সর্বোত্র পৌঁছে দিতে এ পর্যন্ত ৫০টি কমিউনিটি ভিশন সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে এক কোটি ১২ লক্ষ ৭৭ হাজার ৫৪০ জন প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে সমন্বিত চক্ষু চিকিৎসা সেবার আওতায় আনা সম্ভব হয়েছে। বর্তমানে আরো ১৫০টি কমিউনিটি ভিশন সেন্টার স্থাপনের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। ক্রমান্বয়ে দেশের সকল উপজেলায় এই কমিউনিটি ভিশন সেন্টার স্থাপন করা হবে। বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

সোমবার (২১অক্টোবর) দুপুরে জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে বিশ্ব দৃষ্টি দিবসের একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি এবং আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. গোলাম মোস্তফার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

বক্তব্য রাখেন- স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের প্রাক্তন পরিচালক অধ্যাপক ডা. দীন মোহাম্মদ নূরুল হক, মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (নার্সিং ও মিডওয়াইফারি) মো. শাহাদাত হোসেন, ওএসবি’র সভাপতি অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ প্রমূখ।

আলোচনা সভায় বক্তারা জনগণের মধ্যে চক্ষুরোগ বিষয়ক অন্ধত্ব নিবারণ, সচেতনতা বৃদ্ধি এবং চক্ষু রোগ ও অন্ধত্বের বর্তমান পরিস্থিতি, ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা এবং জাতীয় অন্ধত্ব নিবারণ কর্মসূচির জন্য তহবিল সংকুলান ও বৃদ্ধির জন্য অবহিতকরণীয় বিষয়ে তথ্যাদি তুলে ধরেন।

সারা বিশ্বে ৩ কোটি ৬০ লাখ মানুষ অন্ধ। ২১ কোটি ৭০ লাখ মানুষ মধ্যম ও অতিমাত্রার ক্ষীণ দৃষ্টি সম্পন্ন (দূরের জিনিস কম দেখা)। ১০০ কোটি মানুষ কাছের স্বল্প দৃষ্টি সম্পন্ন এবং ৮৯ শতাংশ মানুষ মধ্যম এবং স্বল্প আয়ের দেশে বসবাস করছে। বাংলাদেশে ৭ লাখ ৫০ হাজার মানুষ অন্ধ। যার প্রায় ৮০ শতাংশ (৬ লাখ ৫০ হাজার) ছানিজনিত কারণে অন্ধত্বের স্বীকার হচ্ছে। এবং প্রতিবছর প্রায় ২ লাখ ৫০ হাজার মানুষের সঙ্গে নতুন করে যুক্ত হচ্ছে। এছাড়াও দেশে প্রায় ৪০ হাজার শিশু অন্ধ যার প্রায় ১২ হাজারই ছানিজনিত কারণ। সময়মত ছানি অপারেশন করে কৃত্রিম লেন্স সংযোজনের মাধ্যমে স্বাভাবিক দৃষ্টি ফিরিয়ে আনা সম্ভব।