পরিবাগ থেকে ২৮৮টি বণ্যপ্রাণীর চামড়া উদ্ধার

আগের সংবাদ

দেশের প্রথম ডোমেইন মার্কেট প্লেস ‌‘ডুডিয়াস’

পরের সংবাদ

তিনযুগ পূর্তিতে মহাকালের ‘বাংলা নাট্যোৎসব’

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: October 21, 2019 , 9:04 pm

দেশের স্বনামধন্য নাট্যদল মহাকাল নাট্যসম্প্রদায় প্রতিষ্ঠার তিন যুগপূর্তি পার করল। জন্মলগ্ন থেকেই দলটি রাষ্ট্রীয় ও আন্তর্জাতিক নানারকম সাম্প্রতিক সংকট উপজীব্য করে নাট্য প্রযোজনা মঞ্চে নিয়ে এসেছে। সংগ্রামী নারী আসমানী থেকে শুরু করে মুক্তিযুদ্ধের বিস্তৃত ক্যানভাস, গীতিকার নারী, তাঁত শিল্পের কারিগর, প্রান্তিক জনমানুষ, লিঙ্গ প্রতিবন্ধী, সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে, জঙ্গিবাদের মত বিষয় ও নানামাত্রিক চরিত্র উঠে এসেছে মহাকালের নাট্য আয়োজনে।

প্রতিষ্ঠার তিন যুগের স্মৃতিকে স্মরণীয় রাখতে বছরব্যাপী নানা আয়োজনের শেষ প্রয়াস ‘বাংলা নাট্যোৎসব ২০১৯’ এর আয়োজন করল। এতে ভারত ও বাংলাদেশের নাট্যদলের ৩১টি নাটক নিয়ে সোমবার (২১ অক্টোবর) থেকে বুধবার (৩০ অক্টোবর) পর্যন্ত সরব থাকবে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমি থেকে বেইলী রোডের মহিলা সমিতি প্রাঙ্গন।

শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার প্রধান মিলনায়তনে সোমবার (২১ অক্টোবর) সন্ধ্যায় দশ দিনব্যাপী এ নাট্যোৎসবের উদ্বোধন করলেন যৌথভাবে ত্রিপুরার চীফ হুইফ কল্যাণী রায়, নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার ও মঞ্চসারথি আতাউর রহমান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে. এম. খালিদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন সংস্কৃতিজন গোলাম কুদ্দুছ, বাংলাদেশে ইন্দিরা গান্ধি কালচারাল সেন্টারের পরিচালক ড. নিপা চৌধুরী ও নাট্যজন কামাল বায়েজীদ।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন দলের সাবেক সভাপতি এ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন। স্বাগত বক্তব্য দেন মীর জাহিদ হাসান। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন উৎসব পরিষদের আহ্বায়ক কবির আহামেদ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন মীর নাহিদ আহসান।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর একাডেমির প্রধান মিলনায়তনে মঞ্চস্থ হয় মহাকাল নাট্য সম্প্রদায়ের প্রযোজনা ‘শ্রাবণ ট্র্যাজেডি’, পরিক্ষণ থিয়েটার হলে নাট্যচক্র প্রযোজনা ‘একা এক নারী’ এবং মহিলা সমিতি মঞ্চে ব্যাতিক্রম নাট্য গোষ্ঠী প্রযোজনা ‘তক্ষক’।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আনন জামান রচিত ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার এন্ড পারফর্মেন্স স্টাডিজ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আশিক রহমান লিয়নের পরিকল্পনা ও নির্দেশনায় ‘শ্রাবণ ট্র্যাজেডি’ মহাকাল নাট্য সম্প্রদায়ের ৪০তম প্রযোজনা।

নাটকটিতে অভিনয় করছেন কবির আহামেদ, ফারুক আহমেদ সেন্টু, মোঃ শাহনেওয়াজ, মনিরুল আলম কাজল, পলি বিশ্বাস, সামিউল জীবন, রাজিব হোসেন, শিবলী সরকার, শাহরিয়ার হোসেন পলিন, তারেকেশ্বর তারোক, আহাদুজ্জামান কলিন্স, সুমাইয়া তাইয়ুম নিশা, আরাফাত আশরাফ, স্বপ্নিল, আজহার, পিয়াসী জাহান, কাজী তারিফ, তাজুল রনি, রেদোয়ান, সিয়াম রাব্বি, জুনায়েদ, নূর আকতার মায়া, রাফি, চৈতী সাথী, রিফাত হোসেন জুয়েল, ইকবাল চৌধুরী, মীর নাহিদ আহসান ও মীর জাহিদ হাসান।

‘শ্রাবণ ট্র্যাজেডি’র কাহিনী বয়ানে সরাসরি ইতিহাস ও প্রেক্ষাপট ব্যবহার না করে ইতিহাসের চরিত্র সকল ও ঘটনার বর্তমান ব্যাখ্যামূলক প্রতিভঙ্গী রচিত হয়েছে। খুনিদের দাঁড় করানো হয়েছে রঙ্গমঞ্চের কাঠগড়ায়।

উৎসবে বাংলাদেশের অংশগ্রহণকারী দল হচ্ছে মহাকাল নাট্য সম্প্রদায়, দেশনাটক, প্রাচ্যনাট, থিয়েটার আর্ট ইউনিট, নাট্যচক্র, বুনন থিয়েটার, শব্দ নাট্যচর্চা কেন্দ্র, আরণ্যক নাট্যদল, থিয়েটার সার্কেল, মুন্সিগঞ্জ, ঢাকা থিয়েটার, ব্যাতিক্রম নাট্যগোষ্ঠী, নাট্যতীর্থ, নাট্যম রেপর্টরী, লোক নাট্যদল (বনানী), সময়, নাগরিক নাট্যাঙ্গণ অনসাম্বল, বটতলা, অনুরাগ থিয়েটার, চন্দ্রকলা থিয়েটার, নবনাট, পদাতিক নাট্য সংসদ (টিএসসি), বাংলাদেশের পুতুলনাট্য গবেষণা কেন্দ্র, কথক, নাট্যযোদ্ধা ও বাঙলা নাট্যদল। ভারতের আসাম রাজ্য থেকে ভাবিকাল থিয়েটার, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য থেকে এবং আমরা থিয়েটার ও রঘুনাথগঞ্জ থিয়েটার গ্রুপ এবং ত্রিপুরা রাজ্য থেকে শুভম নাট্যচক্র ও লারনার্স থিয়েটার অংশগ্রহণ করবে।

মঞ্চনাটক প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হবে। মঞ্চনাটকের অগ্রিম টিকেট কাউন্টারে বিক্রির ব্যবস্থা থাকবে। উৎসব সহযোগিতায় সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়, বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড ও সবুজছায়া।