‘সুরসপ্তক’র দুই দশকে সম্মাননা প্রদান করবেন ফেরদৌস আরা

আগের সংবাদ

কাশ্মীর সীমান্তে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা

পরের সংবাদ

শিরোনামহীনের গান গাইতে বাধা নেই তুহিনের

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ২০, ২০১৯ , ৫:০৪ অপরাহ্ণ | আপডেট: অক্টোবর ২০, ২০১৯, ৫:০৪ অপরাহ্ণ

Avatar

গানের মালিকানা নিয়ে বিদায়ী সদস্য তানজিব তুহিনের সঙ্গে সম্প্রতি বিবাদে জড়িয়েছে ‘শিরোনামহীন’ ব্যান্ডের বর্তমান সদস্যরা। সমাধানের জন্য তারা হেঁটেছে আইনী মীমাংসার পথে। সেখানে ‘শিরোনামহীন’ এর ৪৯টি গান নিয়ে বিচারিক আদালতের দেওয়া নিষেধাজ্ঞার আদেশ ছয় মাসের স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। এর ফলে শিরোনামহীনের সাবেক ভোকাল ও জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী তুহিন এবং তার ব্যান্ড ‘আভাস’ ওই ৪৯টি গান গাইতে পারবে। তাতে আইনি কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন তুহিনের আইনজীবী মিজানুর রহমান। বিচারিক আদালতের নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে রিভিশন আবেদনের শুনানি নিয়ে গত ২০ অক্টোবর হাইকোর্ট বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি আশীষ রঞ্জন দাসের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে আজ তানজিব তুহিনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ইকরামুল হক টুটুল। তার সঙ্গে ছিলেন, আইনজীবী অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান। আইনজীবী মিজানুর রহমান জানান, শিরোনামহীনের পক্ষে ব্যান্ডের দলনেতা জিয়াউর রহমান ৪৯টি গানের কপিরাইট দাবি করে মামলা করেছিলেন নিম্ন আদালতে। মামলার আবেদনের শুনানির পরিপ্রেক্ষিতে নিম্ন (বিচারিক) আদালত শিরোনামহীন ব্যান্ডের গান গাইতে পারবেন না বলে নিষেধাজ্ঞা দেন ব্যান্ডটির সাবেক ভোকাল জনপ্রিয় শিল্পী তুহিনের ওপর। নিম্ন আদালতের ওই আদেশ ছয় মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। সঙ্গে সঙ্গে সাবেক ভোকাল ও জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী তুহিন ও তার ব্যান্ড ‘আভাস’ কেন গানগুলো গাইতে দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়েছে। আইনজীবী সাংবাদিকদের আরও বলেন, ‘এই আদেশের কারণে আগামী ছয় মাস ‘আভাস’ ব্যান্ড সেই ৪৯টি গান স্টেজে গাইতে পারবে এবং কপিরাইট এক্সারসাইজ করতে পারবে। এতে আর কোনো আইনি বাধা নেই। ছয় মাস পর আবার এই আদেশ রিভিউ হবে।’ তিনি আরও জানান, সাধারণত ছয় মাস পর্যন্ত এই আদেশ বহাল থাকার কথা। তবে সিদ্ধান্ত নির্ভর করবে অপর পক্ষ অর্থাৎ শিরোনামহীন মিউজিক্যাল ব্যান্ডের পরিবর্তী পদক্ষেপের ওপর। উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২৯ আগস্ট শিরোনামহীন মিউজিক্যাল ব্যান্ড নিম্ন আদালতে এ মামলা করেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ‘আভাস’ ব্যান্ডের পক্ষে আইনজীবী মিজানুর রহমান হাইকোর্টে রিভিশন পিটিশন দায়ের করেন।