নকল ঠেকাতে মাথায় কার্ডবোর্ডের বাক্স!

আগের সংবাদ

মেডিকেলে পড়ার খরচ জুটল পান্নার

পরের সংবাদ

রানে ফিরলেন লিটন দাস

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: October 20, 2019 , 11:32 am

বেশ কিছু দিন ধরে রানের খরায় ভুগছিলেন ওপেনার লিটন দাস। সেপ্টেম্বর মাসে আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্ট ম্যাচে নিজের জাতকে চেনাতে পারেননি তিনি। টেস্টটিতে আফগানদের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ৩৩ ও দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ৯ রান করেন। এরপর আফগানিস্তান ও জিম্বাবুয়েকে নিয়ে হওয়া ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের চারটি ম্যাচ খেলেছিলেন তিনি। সেই চারটি ম্যাচ খেলে একটিতে হাফসেঞ্চুরির দেখাও পাননি।

ত্রিদেশীয় সিরিজে আফগানদের বিপক্ষে খেলা দুটি ম্যাচে তার রান ছিল যথাক্রমে ০ ও ৪। আর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুটি ম্যাচে করেছিলেন ১৯ ও ৩৮। এরপর জ্যামাইকা তালাওয়াসের হয়ে সিপিএল খেলতে যান। সেখানে দুটি ম্যাচ খেলে করেন মাত্র ৪২ রান। অবশেষে সেই রানের খরাকে কাটিয়ে উঠতে পেরেছেন জাতীয় দলের এই ওপেনার। গতকাল জাতীয় ক্রিকেট লিগে রংপুরের হয়ে রাজশাহীর বিপক্ষে অনবদ্য এক সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন। আউট হওয়ার আগে ১২২ রান করেন তিনি। গত জুলাইয়ে অনুষ্ঠিত হওয়া বিশ^কাপের পর যে কোনো ধরনের ক্রিকেটে এটি তার সর্বোচ্চ রান।

নভেম্বর মাসে ভারতের বিপক্ষে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য ঘোষিত ১৫ সদস্যের দলে জায়গা পেয়েছেন লিটন দাস। দলে তার জায়গা পাওয়া নিয়ে অনেকেই অবাক হয়েছিলেন। কারণ তার বর্তমান পারফরমেন্স খুব একটা চোখে পড়ার মতো ছিল না। গতকাল সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে হয়তো জানান দিলেন আবার রানে ফিরছেন তিনি।

এদিকে গত দুই তিন মাস আগে আরেক ওপেনার সৌম্য সরকারের কারণে জাতীয় দলে নিয়মিত জায়গা পাচ্ছিলেন না তিনি। বিশ^কাপের আগে আয়ারল্যান্ডের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলতে যায় বাংলাদেশ। সেখানে পুরো সিরিজে মাত্র একটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন তিনি। সুযোগ পেয়েই সেটি কাজে লাগিয়েছিলেন। ম্যাচটিতে করেছিলেন ৭৬ রান। এরপর বিশ^কাপে সৌম্য সরকার অফফর্মে চলে গেলে সুযোগ পান। বিশ^কাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের খেলতে নেমেই ৯৪ রান করেন। তবে ওই ম্যাচের পর বিশ^কাপে আরো চারটি ম্যাচ খেলেন তিনি। কিন্তু সেই চারটির একটিতেও আর হাফসেঞ্চুরি তুলে নিতে পারেননি।

লিটন দাসের ব্যাটিংয়ে এখন মন্দা গেলেও তার নামের পাশে রয়েছে বেশ কয়েকটি উজ্জ্বল ইনিংস। ২০১৮ সালে ভারতের বিপক্ষে এশিয়া কাপের ফাইনাল ম্যাচটির কথাই ধরা যাক। সেই ম্যাচে বাংলাদেশ দল অলআউট হয়েছিল ২২২ রানে। পুরো দলের অর্ধেক রানই এসেছিল লিটনের ব্যাট থেকে। ম্যাচটিতে ১১৭ বল খেলে ১২১ রান করেছিলেন তিনি। বাংলাদেশ ম্যাচটিতে হারলেও অসাধারণ ব্যাটিংয়ের কারণে তার হাতেই গিয়েছিল ম্যাচ সেরার পুরস্কার। এ ছাড়া গত বছরই ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে ৩২ বল খেলে ৬১ রান করেন তিনি। সেই ম্যাচটিতে তার ব্যাটিং ভঙ্গি ছিল চোখে পরার মতো।

বিষয়: