দশ দফা দাবিতে বুয়েটের কার্যক্রম বন্ধের ঘোষণা

আগের সংবাদ

মঞ্চে ‘ময়ূর সিংহাসন’

পরের সংবাদ

তামিম-রিয়াদ মুখোমুখি

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ৯, ২০১৯ , ১২:৪৪ অপরাহ্ণ | আপডেট: অক্টোবর ৯, ২০১৯, ১২:৪৪ অপরাহ্ণ

Avatar

দেশের ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় প্রতিযোগিতা জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) ২১তম আসর মাঠে গড়াচ্ছে কাল। ছয় রাউন্ডের প্রতিযোগিতাটি শেষ হবে আগামী ১৭ নভেম্বর। প্রথম ও দ্বিতীয় স্তরের আটটি দলের অংশগ্রহণে হবে এবারের আসর। প্রথম স্তরের দলগুলো হলো- খুলনা, রংপুর, রাজশাহী ও ঢাকা বিভাগ। আর দ্বিতীয় স্তরের দলগুলো হলো- বরিশাল, ঢাকা মেট্রো, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগ। নিয়ম অনুযায়ী প্রত্যেকটি ম্যাচ হবে চার দিনের। ম্যাচগুলো হবে দেশের দশটি ভেন্যুতে। অন্য বছরগুলোতে জাতীয় দলে খেলা ক্রিকেটাররা জাতীয় লিগে না খেললেও এবার বাধ্যতামূলকভাবে অংশ নিচ্ছেন তারা। বর্তমান ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ নিয়ে ব্যস্ত আছেন দেশসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তাই জাতীয় লিগে শুধু তাকে দেখা যাবে না।

জাতীয় লিগের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হবে দ্বিতীয় স্তরের দল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ঢাকা মেট্রো ও তামিম ইকবালের চট্টগ্রাম বিভাগ। চট্টগ্রাম বিভাগ দলে সবচেয়ে অভিজ্ঞ খেলোয়াড় হিসেবে রয়েছেন তামিম ইকবাল। তবে তার বদলে দলের অধিনায়কত্বের দায়িত্ব পালন করবেন মুমিনুল হক। বিশ্বকাপ ও শ্রীলঙ্কা সফরে আশানুরূপ ফলাফল না পাওয়ায় স্বেচ্ছায় প্রায় দুই মাস ধরে ক্রিকেট থেকে দূরে আছেন তামিম ইকবাল। জাতীয় লিগের মধ্য দিয়েই আবার ক্রিকেটে প্রত্যাবর্তন করতে যাচ্ছেন তিনি। নভেম্বরে ভারতের মাটিতে টেস্ট সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। সেই সিরিজকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন তামিম।

জাতীয় লিগে ভালো পারফরমেন্স করেই ভারত সিরিজে খেলার লক্ষ্য তার। অন্যদিকে মাহমুদউল্লাহর জন্যও এনসিএল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ ক্রিকেট বোর্ড থেকে আগেই জানানো হয়েছিল ভারত সিরিজে খেলতে হলে এনসিএলে ভালো পারফরমেন্স করতে হবে। লংগার ভার্সনের ক্রিকেটে মাহমুদউল্লাহর পারফরমেন্স খুব বেশি সুখকর নয়। এ ছাড়া গত মাসে আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে নিজেকে চেনাতে পারেননি জাতীয় দলের এই অভিজ্ঞ ক্রিকেটার। এ ছাড়া একইদিনে রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হবে সিলেট ও বরিশাল। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হবে রাজশাহী বিভাগ ও ঢাকা বিভাগ। খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হবে খুলনা বিভাগ ও রংপুর বিভাগ। তিন দিন বিরতি দিয়ে আবার ১৭ অক্টোবর থেকে শুরু হবে দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলা।

এদিকে এনসিলে প্রতি বছর ঢাকা বিভাগের হয়ে খেললেও এবার বরিশাল বিভাগের হয়ে খেলবেন মোহাম্মদ আশরাফুল। তা ছাড়া এবারের আলোচিত বিপ টেস্টের বাধা প্রথমে উৎরাতে না পারলেও অভিজ্ঞ আবদুর রাজ্জাক, নাসির হোসেন পরবর্তীতে খেলার ছাড়পত্র পেয়েছেন। রাজ্জাক নাসিরের মতো প্রথমমার আশরাফুলও বিপ টেস্টের পরীক্ষায় আটকে যান। তবে জাতীয় দলের সাবেক পেসার মোহাম্মদ শরীফ কোনো দল পাননি। এ ছাড়া অভিজ্ঞ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান ফরহাদ হোসেনও বাদ পড়েছেন।

এনসিএলে পয়েন্টসহ বেশকিছু কড়াকড়ি নিয়ম করা হলেও বাড়েনি ম্যাচ ফির পরিমাণ। গত বারের ন্যায় এবারও প্রথম স্তরের চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ২০ লাখ টাকা। রানার্সআপ পাবে ১০ লাখ টাকা। দ্বিতীয় স্তরের চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ৫ লাখ টাকা। তবে প্রত্যেকটি দলকে ক্যাম্প করার খরচ বাবদ ছয় লাখ টাকা দেয়া হয়েছে। ম্যাচ ফি বাবদ প্রথম স্তরের দলের প্রত্যেক খেলোয়াড় পাবেন ৩৫ হাজার টাকা। আর দ্বিতীয় স্তরের খেলোয়াড়রা পাবেন ২৫ হাজার টাকা। সঙ্গে প্রতিটি খেলার জন্য চার হাজার টাকা যাতায়াত ও নাস্তার খরচ হিসেবে পাবেন প্রত্যেক খেলোয়াড়। গত আট বছরের ন্যায় এবারও এনসিএলের টাইটেল স্পন্সর হিসেবে থাকছে দেশীয় প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন। বিসিবির সঙ্গে নতুন করে আরো তিন বছরের চুক্তি করেছে তারা।

কে কোন দলে খেলছেন : জুনায়েদ সিদ্দিকি, মিজানুর রহমান, জহুরুল ইসলাম, অভিষেক মিত্র, মুশফিকুর রহিম, সাব্বির রহমান, মোহাইমিনুল খান, ফরহাদ রেজা, তাইজুল ইসলাম, শফিউল ইসলাম, শফিকুল ইসলাম, সাকলাইন সজিব, শাখীর হোসেন, মোহর শেখ।

খুলনা ডিভিশন : ইমরুল কায়েস, সৌম্য সরকার, মেহেদি হাসান মিরাজ, তুষার ইমরান, নাহিদুল ইসলাম, রবিউল ইসলাম রবি, অমিত মজুমদার, জিয়াউর রহমান, আব্দুর রাজ্জাক, ইমরানউজ্জামান, মুস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, আল আমিন হোসেন, হাসানউজ্জামান।

ঢাকা ডিভিশন : নাদিফ চৌধুরী, শুভাগত হোম, রকিবুল হাসান, রনি তালুকদার, আব্দুল মজিদ, তাইবুর রহমান, নাজমুল ইসলাম অপু, সাইফ হাসান, শাহাদাত হোসেন, শেখ ইমন, সালাউদ্দিন শাকিল, সুমন খান, শাকিল খান, হৃদয় খান, জুবায়ের হোসেন লিখন।

রংপুর ডিভিশন : মেহেদি মারুফ, ফারদিন হাসান অনি, মাহমুদুল হাসান লিমন, নাঈম ইসলাম, নাসির হুসাইন, তানভীর হায়দার খান, সোহরাওয়ার্দী শুভ,
আলাউদ্দিন বাবু, সাজেদুল ইসলাম, শুভাশিস রায়, সঞ্জিত শাহা, রবিউল হক, মায়শুকুর রহমান, হামিদুল ইসলাম হিমেল।

ঢাকা মেট্রো : সাদমান ইসলাম অনিক, রাকিন আহমেদ, শামসুর রহমান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মার্শাল আইয়ুব, আল আমিন জুনিয়র, জাবিদ হোসেন, সৈকত আলী, আরাফাত সানি, মোহাম্মদ শহিদুল, আবু হায়দার রনি, মানিক খান, মোহাম্মদ ইলিয়াস, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব।

সিলেট ডিভিশন : ইমতিয়াজ হোসেন তান্না, জাকির হাসান, জাকির আলী, অলক কাপালি, শাহনুর রহমান, এনামুল হক জুনিয়র, রাহাতুল ফেরদৌস, আবু জায়েদ রাহি, ইমরান আলী, এবাদত হোসেন, তৌফিক তুষার, নাসুম আহমেদ, রুহেল মিয়া, মিজানুর রহমান সায়েম, রেয়াজুর রহমান রেজা।

বরিশাল ডিভিশন : কামরুল ইসলাম রাব্বি, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, শাহরিয়ার নাফিস, মোহাম্মাদ আশরাফুল, সোহাগ গাজী (ফিটনেস ক্লিয়ারেন্স), ফজলে রাব্বি, মনির হোসেন, সালমান হোসেন, নুরুজ্জামান, তানভীর ইসলাম, শামসুল ইসলাম অনিক, তৌহিদুল ইসলাম রাসেল (ফিটনেস ক্লিয়ারেন্স), মঈন খান, রাফসান মাহমুদ।

চট্রগ্রাম ডিভিশন : তামিম ইকবাল, মমিনুল হক, সাদিকুর রহমান, পিনাক ঘোষ, ইয়াসির আলী রাব্বি, তাসামুল হক, মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন, মাসুম খান টুটুল, মেহেদি হাসান (অনূর্ধ্ব-১৯), নোমান চৌধুরী, মিনহাজুল আবেদীন আফ্রিদি, শাখাওয়াত হোসেন, ইরফান শুক্কুর, নাঈম হাসান।

বিষয়: