ফেসবুকে এনসিএল

আগের সংবাদ

ফেনী নদীর নাম হোক ‘আবরার নদ’: রিজভী

পরের সংবাদ

কাতার বধের ছক কষছেন জেমি ডে

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ৮, ২০১৯ , ২:৪১ অপরাহ্ণ

বিশ্বকাপ বাছাইয়ে হোম ম্যাচে বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে কাতারের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। আর ১৫ অক্টোবর কলকাতায় প্রতিবেশী দেশ ভারতের বিপক্ষে অ্যাওয়ে ম্যাচে মাঠে নামবে জামাল ভঁ‚ইয়ারা। কাতার ও ভারতের মুখোমুখি হওয়ার আগে ভুটানের বিপক্ষে খেলা দুটি প্রস্তুতি ম্যাচে জয় পায় জেমি ডের শিষ্যরা। সেখানে ফরোয়ার্ডদের পাশাপাশি গোল করেছেন ডিফেন্ডাররাও। তবে ডিফেন্ডারদের ইনজুরি জেমি ডের মাথায় নতুন দুশ্চিন্তা ভর করেছে। এতে কাতারকে রুখে দিতে ম্যাচে রণকৌশল পরিবর্তনের কথা ভাবছেন জেমি ডে।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ে আফগানদের বিপক্ষে ১-০ গোলে হেরে শক্তিশালী কাতারকে রুখে দিতে বাংলাদেশের ইংলিশ কোচের কৌশল একটাই, গোল করতে দেয়া যাবে না কাতারকে। কিন্তু ভারতের রক্ষণে ঝড় তোলা কাতারকে সামলানো সহজ হবে না। তবে ভয় নয় বরং সাহস নিয়েই তাদের সামনে যেয়ে একশ ভাগ দিতে প্রস্তুত জেমি ডে শিষ্যরা। জেমির কথায়, ভয় পাওয়ার কিছু নেই। ভয় নয়, বলতে পারেন তাদের সমীহ করছি। সবাই জানে ফুটবলে বাংলাদেশ আর কাতারের মধ্যে কতটা পার্থক্য।

ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে কাতারের অবস্থান ৬২, যেখানে বাংলাদেশ আরব দেশটি থেকে ১২৫ ধাপ পিছিয়ে। সেই কাতারকে ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের ১০৪ স্থানে থাকা ভারত রুখে দিয়েছে। জাপান-কোরিয়াকে হারিয়ে এশিয়ান কাপ জেতা ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের রুখে দেয়ার কাজটা যে সহজ হবে না- সে বাস্তবতা জানেন জেমি ডে। ফুটবলের কোনো বিভাগেই আমরা তাদের ধারে-কাছেও নেই। সব দিক দিয়ে কাতার আমাদের চেয়ে অনেক এগিয়ে। গত জুনে কোপা আমেরিকায় আর্জেন্টিনা-কলম্বিয়ার সঙ্গে তারা লড়াই করে হেরেছে, ড্র করেছে প্যারাগুয়ের সঙ্গে। এর আগে এশিয়া কাপে তারা জাপান-কোরিয়াকে হারিয়েছে। আমরা লড়াইয়ের যথাসাধ্য চেষ্টা করব। অনুশীলনে ছেলেদের বলা হয়েছে, কিছুতেই হাল ছেড়ে দেয়া যাবে না। পুরো দলকেই সেরাটা দিতে হবে। দলের ফুটবলারদের প্রস্তুতি নিয়ে সন্তুষ্ট জেমি।

যদিও ইনজুরির কারণে টুটুল হোসেন বাদশা, সুশান্ত ত্রিপুরা ও বিশ্বনাথ ঘোষের কাতার ম্যাচে খেলা অনিশ্চিত। তাদের পরিবর্তে রায়হান হাসান, রিয়াদুল হাসান ও ইয়াসিন আরাফাতকে তৈরি করছেন জেমি ডে। এদের দিয়ে ডিফেন্স সুরক্ষিত রেখে কাউন্টার অ্যাটাক নির্ভর ফুটবল খেলার ছক কষছেন তিনি।
কাতার শক্তিশালী হলেও তাদের বিপক্ষে পয়েন্ট পাওয়া সম্ভব জানিয়ে বাংলাদেশ দলের কোচ বলেন, অলিম্পিক বাছাই পর্বে কাতারকে হারিয়ে আমরা কিন্তু নকআউট পর্বে খেলেছিলাম। তা ছাড়া এবার আমাদের মাঠে খেলা। এসব বিবেচনায় আমরাই এগিয়ে থাকব।

অন্যদিকে এখন পর্যন্ত বাছাইপর্বে দুটি ম্যাচ খেলেছে কাতার। প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানকে ৬-০ গোলে উড়িয়ে দেয়ার পর দ্বিতীয় ম্যাচে ভারতের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করে তারা। স্বাগতিক হিসেবে ২০২২ বিশ^কাপে সরাসরি খেললেও বিশ^কাপের সঙ্গে এশিয়ান কাপের যৌথ বাছাইপর্ব হওয়ায় খেলতে হচ্ছে কাতারকে।