বুয়েট শিক্ষার্থী ফাহাদ হত্যার ঘটনায় দুই নেতা আটক

আগের সংবাদ

সকলের জন্য আবাসন, কেউ থাকবে না গৃহহীন

পরের সংবাদ

ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ৭, ২০১৯ , ২:০০ অপরাহ্ণ | আপডেট: অক্টোবর ৭, ২০১৯, ৪:৪২ অপরাহ্ণ

Avatar

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ (২১) হত্যার ঘটনার প্রতিবাদে বুয়েট ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে সহপাঠীসহ শিক্ষার্থীরা। মিছিল থেকে আবরারের হত্যাকারীদের কঠোর শাস্তির দাবি জানানো হয়।

সোমবার (৭ অক্টোবর) দুপুর ১২টার দিকে রাজু ভাস্কর্য থেকে ঢাবির সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে বুয়েট ক্যাম্পাসে অবস্থান নেয়। বিক্ষোভ মিছিলে যোগ দেন ঢাবির কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুর।

প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভে অংশ নেয় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট, ছাত্র ফেডারেশনসহ ক্যাম্পাসের বিভিন্ন প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের নেতারা।

 

ফাহাদ হত্যার বিচারের দাবিতে সভা করছে শিক্ষার্থীরা

ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় ছাত্রলীগের কারও বিন্দুমাত্র সম্পৃক্ততা থাকলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়াও দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন দেয়া হবে। সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখাবার দাবিতে প্রভোস্টের অফিসের সামনে অবস্থান নেয় ছাত্ররা।

অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার কৃষ্ণপদ রায় বলেন, ফাহাদ খুনের ঘটনায় সোমবার (৭ অক্টোবর) সকালে বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফুয়াদ হোসেনকে থানায় নেয়া হয়েছে।

বুয়েট ক্যাম্পাসে ছাত্রদের বিক্ষোভের মুখে শেরেবাংলা হলে পুলিশের অবস্থান

ময়নাতদন্তের জন্য ফরেনসিক ভিভাগে পাঠানো হয়েছে ফাহাদের লাশ। মারধরের কারণেই ফাহাদের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ।

এর আগে, বুয়েট শেরেবাংলা হল থেকে আবরার ফাহাদের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ফাহাদ বুয়েটের ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিকস বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। তিনি শেরেবাংলা ছাত্র হোস্টেলের ১০১১ নম্বর রুমে থাকতেন। হত্যার পরে সিঁড়ি দিয়ে তার লাশ ২০১১ নম্বর রুমের দিকে নিয়ে যাওয়া হয়। হত্যার সাথে জড়িত আলামত ও সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করেছে পুলিশ।

সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) ভোর সাড়ে ৬টার দিকে অচেতন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।