এসডিজি অর্জনে জনগণের উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হবে

আগের সংবাদ

বলিউড অভিনেতা বিজু খোটের প্রয়াণ

পরের সংবাদ

গর্বের একুশে চ্যানেল আই

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: অক্টোবর ১, ২০১৯ , ৪:২০ অপরাহ্ণ

বাঙালির অহংকার, সম্মান ও মর্যাদার স্মারক গর্বের একুশ। এমন একটি অর্থবহ সংখ্যায় পদার্পণ করলো চ্যানেল আই। ‘হৃদয়ে বাংলাদেশ, প্রবাসেও বাংলাদেশ’ স্লোগান ধারণ করে ১৯৯৯ সালের ১ অক্টোবর পথচলা শুরু করে চ্যানেল আই। এ উপলক্ষে দেশের শীর্ষ দৈনিকগুলোতে বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করেছে চ্যানেল আই।

সেখানে চ্যানেল আইকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়ে বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাণী দিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চ্যানেল আই-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর এবং পরিচালক ও বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ।

চ্যানেল আইকে শুভেচ্চা বার্তা পাঠিয়েছেন বরেণ্য লেখক সমরেশ মজুমদার ও দেশের কিংবদন্তি সঙ্গীতশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন। আরো শুভেচ্চা জানিয়েছেন বিভিণ্ণ অঙ্গণের বিশিষ্ট জনেরা।

১ অক্টোবর রাত ১২ টা ১ মিনিটে চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে তৈরী মঞ্চে বিশিষ্টজনদের সঙ্গে নিয়ে চ্যানেল আই পরিবারের সদস্যরা বর্ণাঢ্য আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে প্রথম প্রহরের একটি দীর্ঘ কেক কাটেন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইমপ্রেস গ্রুপের চেয়ারম্যান আবদুর রশিদ মজুমদার, চ্যানেল আই-এর পরিচালক ও বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ, চ্যানেল আই পরিচালনা পর্ষদ সদস্য মুকিত মজুমদার ও জহির উদ্দিন মাহমুদ মামুন-সহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার বরেণ্য ও গুণীজনরা।

বেলা ১১টায় প্রধান অতিথি ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদল্লাহ, বিশিষ্টজন ও চ্যানেল আই-এর পরিচালনা পর্ষদের সদস্যদের উপস্থিতিতে কেক কেটে এবং বেলুন উড়িয়ে ২১ বছরে পর্দাপনের দিনের কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। এ সময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি ব্যক্তিত্ব রামেন্দ্র মজুমদার, আবুল মকসুদ, আজাদ রহমান, সাংবাদিক সাইফুল আলম ও ইনামুল জক চৌধুরী প্রমুখ।

এরপর ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান ডিএমপি কমিশনার মো. শফিকুল ইসলাম-সহ অনেকে। উদ্ধোধনের পর পরিবেশিত হয় দলীয় নৃত্য। সঙ্গীত পরিবেশন করেন চন্দনা মজুমদার, কিরণ চন্দ্র রায়, ফেরদৌস ওয়াহিদ, ফেরদৌস আরা প্রমুখ। সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত।