‘সুতোয় বাঁধা সুখের পায়রা’

আগের সংবাদ

অন্যায় করলেই আইনের মুখোমুখি হতে হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

পরের সংবাদ

পর্যটন মেলার শেষ দিনেও জনস্রোত

দেশের অপরূপ সৌন্দর্য ফুটে উঠেছে পর্যটকদের কাছে

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯ , ১২:৫৫ অপরাহ্ণ আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯ , ১২:৫৫ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশের বিস্ময়কর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বিদেশি পর্যটকদের কাছে তুলে ধরেছে ৮ম এশিয়ান ট্যুরিজম মেলায় অংশগ্রহণকারী দেশি প্রতিষ্ঠানগুলো। রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) পর্যটনমেলায় অংশগ্রহণকারী দেশি পর্যটন প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্টরা এমনটি জানিয়েছেন। তারা বলছেন, মেলার মূল উদ্দেশ্য ছিল দেশের পর্যটনকে বিদেশী পর্যটকদের কাছে তুলে ধরা। আমাদের পর্যটন শিল্পের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে কিন্তু প্রচার-প্রসারের অভাবে এ খাত পিছিয়ে পড়েছে। এ জন্য সরকারের পাশাপাশি পর্যটন-সংশ্লিষ্টদেরও এ ব্যাপারে এগিয়ে আসতে হবে।

গতকাল (২৮ সেপ্টেম্বর) আইসিসিবির পুষ্পগুচ্ছ হলে এশিয়ান পর্যটনমেলার দেশীয় স্টলে গিয়ে দেখা যায়, দেশের বিভিন্ন দর্শণীয় স্থান ভ্রমণ করতে বিদেশি প্রতিষ্ঠান ও পর্যটকদের উৎসাহ দিচ্ছেন স্টলের কর্মীরা। বাংলার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, ঐতিহাসিক স্থাপনা, চা বাগান ও হাওরের অপরূপ সৌন্দর্য তুলে ধরা হচ্ছে আগ্রহীদের সামনে। এবারের মেলায় বাংলাদেশের বাইরে ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড, নেপাল ও ভারতসহ সাতটি দেশের ৫৭টি প্রতিষ্ঠানের ১১৫টি স্টল রয়েছে।
দেশীয় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মেলায় অংশ নিয়েছে টি হ্যাভেন, লেমন গার্ডেন, এসকেডি আমার বাড়ি, হেরিটেজ, ছুটিওয়ালা, গ্র্যান্ড সুলতান, রেস্ট ইন হোটেল ও সাজেক ভ্যালি। এসব প্রতিষ্ঠান ভ্রমণপিপাসুদের প্রথমে দেশে ঘোরার জন্য উৎসাহ জোগাচ্ছে।

শ্রীমঙ্গল পর্যটন সেবা সংস্থার আহবায়ক আবু সিদ্দিক আহমেদ বলেন, আমরা এদেশের বিস্ময়কর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সারাবিশ্বের পর্যটকদের কাছে তুলে ধরতে চাই। চায়ের কন্যা শ্রীমঙ্গল বর্ষায় কী অপরূপ রূপ ধারণ করে, সেটা পর্যটকরা দেখলে বিস্মিত হবেন। আমরা দেশের পর্যটনশিল্পকে এগিয়ে নিতে চাই।
দেশের পর্যটন নিয়ে কাজ করছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ ইয়াসমিন চৌধুরী ফ্রাসা। তিনি পর্যটন প্রতিষ্ঠান লাভদেশের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি বলেন, আমার হৃদয়ে সবসময় বাংলাদেশ। বিলেতে আমার জন্ম হলেও ছুটে আসি এদেশে। এদেশের পর্যটনশিল্প নিয়ে আমি কাজ করছি। আমি সবসময় ব্রিটিশসহ বিদেশিদের বাংলাদেশে ভ্রমণ করার উৎসাহ জোগাচ্ছি। শ্রীমঙ্গল ট্যুরিস্ট গাইড কমিউনিটির সাধারণ সম্পাদক তাপস দাস বলেন, বর্ষায় শ্রীমঙ্গলের অপরূপ সৌন্দর্য বিদেশিদের কাছে তুলে ধরছি। সাজেক ভ্যালির এক্সিকিউটিভ রাহানুমা বলেন, সাজেক ভ্রমণপিপাসুদের কাছে আকর্ষণীয় স্থান। আমরা মেলায় আকর্ষণীয় অফার দিচ্ছি।

বেলজিয়াম থেকে আগত ফ্লোরেন্স ও মাজারিন বলেন, আমরা প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে এসেছি। এদেশের মানুষ খুব বন্ধুত্বসুলভ ও অতিথিপরায়ণ। আমরা সাত দিন শ্রীমঙ্গলে ঘুরেছি। অসাধারণ একটা জায়গা সেটা।

এদিকে গতকাল পর্যটন মেলার শেষ দিনেও ছিল ভ্রমণপিপাসুদের ঢল। সকাল থেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে মেলায় আসতে থাকেন লোকজন। বিকেলে মেলা জনস্রোতে রূপ নেয়। মেলার অন্যতম আকর্ষণ ইন্দোনেশিয়ান কালচারাল উৎসব। বিকেলে এ উৎসব মেলায় আসা ভ্রমণপিপাসুদের প্রাণবন্ত করে তুলে। ভ্রমণপিপাসুরা জানিয়ছেন, ইট-কংক্রিটের এ শহরে বিনোদনের সুযোগ নেই। তাই মনকে ফুরফুরে-তরতাজা করতে মাঝে মধ্যে প্রকৃতির সঙ্গে মিশে যায়।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়