সাংবাদিকের ওপর হামলায় ক্ষমা চাইলো ছাত্রলীগ

আগের সংবাদ

পুরনো টায়ার

পরের সংবাদ

ফতুল্লা থেকে আটকরা নব্য জেএমবির সদস্য : মনিরুল ইসলাম

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৯ , ৩:২০ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৯, ৩:২০ অপরাহ্ণ

Avatar

ফতুল্লার তক্কারমাঠ এলাকার একটি বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করে যে দুই ভাইকে আটক করা হয়েছে তারা জেএমবির সদস্য বলে জানিয়েছেন কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম৷
সামবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বেলা সোয়া ১২টায় অভিযানের এক পর্যায়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে এক ব্রিফিংয়ে তিনি একথা বলেন৷
আটককৃতরা হলো- দুই ভাই ফরিদউদ্দীন রুমি (২৭) ও জামালউদ্দীন রফিক (২৩) এবং ফরিদউদ্দীনের স্ত্রী জান্নাতুল ফোয়ারা অনু (২৭)।
ফতুল্লার ওই বাড়ির মালিক জয়নাল আবেদীন বাংলাদেশ ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা৷ তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিজিএম ছিলেন৷ আটককৃতরা তার দুই ছেলে ও পূত্রবধূ। দুই ছেলের মধ্যে ফরিদউদ্দিন রুমি ঢাকার আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মেকানিক্যাল এবং প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের শিক্ষক, জামালউদ্দিন রফিক খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) শিক্ষক এবং ফরিদের স্ত্রী জান্নাতুল ফোয়ারা অনু অগ্রণী ব্যাংকের কর্মী.
কাউন্টার টেরোরিজমের প্রধান জানান, ফরিদউদ্দীন রুমিকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যমতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার এই বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করা হয়৷ পরে এখান থেকে রুমির ভাই রফিককে গ্রেপ্তার করা হয়। দুই ভাইই নব্য জেএমবির সদস্য বলে জানান তিনি।
মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘ফতুল্লার এই বাড়িতে অভিযান চালানো হয় । ভেতরে বিস্ফোরক ডিস্পোজাল দল প্রবেশ করেছে। রুমি নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়। তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে দেওয়া তথ্যমতে, মূলত এই বাড়িতে আমরা হানা দেই৷ ভোর রাতে হানা দেওয়ার পর দেখা যায় এই বাড়িতে এক্সপ্লোসিভ বিভিন্ন আলামাত রয়েছে৷ তার দেখানো মতেই আমরা এগুলো উদ্ধার ও ডিফিউজ করার কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি৷’
তিনি আরও বলেন, ‘সম্প্রতি ঢাকায় যে ধরণের বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে সে ধরণের বিস্ফোরকের সাথে উদ্ধারকৃত আলামতের মিল এখানেও পাওয়া গেছে। আমরা আরও সার্চ করার পর বিস্তারিত বলতে পারবো৷’
তিনি বলেন, ‘ গ্রেপ্তার নব্য জেএমবির সদস্যরা কয়েকজনের নাম বলেছে যাদেরকে গ্রেপ্তারের জন্য আমার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে৷’
আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা অনেকগুলো ঘটনাতেই দেখিছি, ঢাকার পাশেই নারায়ণগঞ্জ৷ এটা ঢাকার খুব ক্লোজ জায়গা৷ আশেপাশে যেখানে স্বল্প আয়ের লোক বাস করে এবং জনসংখ্যার ঘনত্ব একটু বেশি যেখানে লোকজন অন্যের খবর তেমন একটা নেয় না সেসব স্থানগুলোই জঙ্গি সদস্যরা বেছে নেয়৷’