টসে হেরে ফিল্ডিংয়ে জিম্বাবুয়ে

আগের সংবাদ

জাতীয় আয়ের ৮ ভাগ শিক্ষা খাতে বরাদ্দের দাবি

পরের সংবাদ

শামীমের সঙ্গে যুবলীগের কোনো সম্পর্ক নেই: ওমর ফারুক

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯ , ৬:৩২ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯, ৯:১৯ অপরাহ্ণ

Avatar

রাজধানীর নিকেতন এলাকায় নিজ ব্যবসায়িক কার্যালয় ‘জি কে বিল্ডার্সে’ অভিযান চালিয়ে যুবলীগ নেতা জি কে শামীমকে সাত দেহরক্ষীসহ আটক করেছে র‌্যাব।

এ সময় সেখান থেকে নগদ প্রায় দেড় কোটি টাকাসহ ২০০ কোটি টাকার এফডিআর উদ্ধার করা হয়। এছাড়া অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্রসহ বিদেশি মদও জব্দ করা হয়।

টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজির সুনির্দিষ্ট অভিযোগে জি কে শামীমকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

এদিকে জি কে শামীম যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক বলে লোকমুখে শোনা গেলেও যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী ভোরের কাগজকে জানান, শামীম যুবলীগের কেউ নয়। তিনি বলেন, তার (শামীম) সঙ্গে যুবলীগের কোনো সম্পর্ক নেই।

সংগঠনটির শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক মিজানুল ইসলাম মিজু বলেন, শামীম যুবলীগের কেউ নন, তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি।

একসময়ের যুবদল নেতা ক্ষমতার পরিবর্তনে হয়ে যান যুবলীগ নেতা! নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতিও জি কে শামীম। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার সন্মানদী ইউনিয়নের দক্ষিণপাড়া গ্রামের মৃত মো. আফসার উদ্দিন মাস্টারের ছেলে তিনি। আফসার উদ্দিন মাস্টার ছিলেন হরিহরদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। তিন ছেলের মধ্যে জি কে শামীম মেজো।

ছোটখাটো মানুষ হলেও শামীমের ক্ষমতার দাপট ছিল আকাশসমান। রাজধানীর সবুজবাগ, বাসাবো, মতিঝিলসহ বিভিন্ন এলাকায় জি কে শামীম প্রভাবশালী ঠিকাদার হিসেবে পরিচিত। গণপূর্ত ভবনের বেশির ভাগ ঠিকাদারি কাজই জি কে শামীম নিয়ন্ত্রণ করেন। বিএনপি-জামায়াত শাসনামলেও গণপূর্তে এ শামীম ছিলেন ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণকারী ব্যক্তি।