জনগণের কল্যাণে এমপিদের ভূমিকা রাখতে স্পিকারের আহ্বান

আগের সংবাদ

‘চতুর্দশ জাতীয় শিশু-কিশোর নাট্য ও সাংস্কৃতিক উৎসব’ শুক্রবার

পরের সংবাদ

৩ সপ্তাহের মধ্যে সমাধান

গ্রামীণফোন-রবির পাওনা আদায়ে অর্থমন্ত্রীর মধ্যস্থতা

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯ , ৮:০২ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯, ৮:০২ অপরাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক

দেশের শীর্ষ দুই মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন ও রবির কাছে পাওনা নিয়ে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি ও রাজস্ববোর্ডের বিরোধ আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে বিষয়টির সুন্দর সমাধান হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। অর্থমন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের মধ্যে এক মধ্যস্থতা বৈঠক শেষে বুধবার সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

বিটিআরসির অডিট আপত্তি অনুযায়ী, গ্রামীণফোনের কাছে ১২ হাজার ৫৭৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা এবং রবির কাছে ৮৬৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে তাদের। তবে টাকার এ অংক নিয়ে আপত্তি রয়েছে দুই অপারেটরের। পাওনা টাকা আদায়ে চাপ সৃষ্টি করতে গত ৪ জুলাই জিপি ও রবির ব্যান্ডউইথ কমিয়ে দিয়েছিল বিটিআরসি। ১৩ দিনের মাথায় সে সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। এরপর ২২ জুলাই থেকে গ্রামীণ ও রবির নতুন কোনো সেবার অনুমোদন ও অনাপত্তিপত্র দেয়া বন্ধ করে বিটিআরসি। কিন্তু তাতেও কাজ না হওয়ায় গত ৫ সেপ্টেম্বর অপারেটর দুটির লাইসেন্স বাতিলের জন্য নোটিশ পাঠানো হয়। এদিকে বিটিআরসির এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতে যায় অপারেটর দুটি। এমন পরিস্থিতিতে অর্থমন্ত্রীর মধ্যস্থতায় এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব অশোক কুমার বিশ্বাস, বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক, গ্রামীণফোনের সিইও মাইকেল ফোলি এবং রবির সিইও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ অংশ নেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, পাওনার বিষয়ে কোনো ছাড় দেয়া হবে না। তবে বিষয়টি আলাপ-আলোচনার মাধ্যমেই নিষ্পত্তি করা হবে। আমরা নিজেরা হারবো না, কাউকে হারাবোও না। তিনি বলেন, গ্রামীণ ও রবি গত ২২ বছর ধরে নিয়মিতভাবে ভ্যাট, ট্যাক্স ও বিটিআরসির পাওনা পরিশোধ করে আসছিল। কিছু ভুল বোঝাবুঝির কারণে দুই অপারেটরের সঙ্গে সরকারের সম্পর্কের অবনতি ঘটতে যাচ্ছিল। এ অবস্থা চলতে থাকলে আমাদের ক্ষতি হতো, আমরা রাজস্ব হারাতাম। তারা ব্যবসা করবে, আমরা নিজেদের পাওনা বুঝে নেবো। বিষয়টি সমাধান হলে অপারেটররা মামলা তুলে নেবে। আর আমরা লাইসেন্স বাতিলের নোটিশ প্রত্যাহার করব।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, গতকাল থেকে দৃশ্যপট বদলে গেছে, বিটিআরসির সঙ্গে দেনা-পাওনার বিরোধ আমরা খুব অল্প সময়ের মধ্যে আলোচনার ভিত্তিতে মিটিয়ে নেবো। মোবাইল কোম্পানিগুলো জাতীয় অর্থনীতিতে এবং যোগাযোগের ক্ষেত্রে বিশাল ভূমিকা রাখছে। আমরা ব্যবসার সঠিক পরিবেশ নিশ্চিত করতে চাই, তবে জাতীয় স্বার্থ উপেক্ষিত হতে পারে না। পারস্পরিক আলোচনার মধ্য দিয়ে আমরা বিষয়টি নিশ্চিত করবো।