মিরপুরে কাঁপছে আফগানরা

আগের সংবাদ

সরকার দুর্নীতিতে নিমজ্জিত: মির্জা ফখরুল

পরের সংবাদ

এক আসামি গ্রেপ্তার

আ.লীগ নেতা হত্যার কারণ খুঁজছে পুলিশ

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯ , ৬:৫৭ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯, ১০:২১ অপরাহ্ণ

Avatar

সাভার পৌর আওয়ামী লীগের সহপ্রচার সম্পাদক আব্দুল মজিদ (৩৫) খুনের ঘটনায় তার বাবা আব্দুল কাসেম বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। রবিবার চারজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো কয়েকজনকে আসামি করে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে পুলিশ এজাহারনামীয় মোক্তার হোসেন নামে এক আসামিকে শনিবার রাতে গ্রেপ্তার করেছে।

রবিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) ময়না তদন্ত শেষে নিহতের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। বাদ আসর বাড্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নামাজে জানাজা শেষে স্থানীয় কবরস্থানে মজিদের লাশ দাফন করা হয়েছে। মজিদের মা-বাবা, স্ত্রী, একপুত্র ও এক কন্যা সন্তান রয়েছে। তার স্ত্রী অন্তঃস্বত্তা। নিহত মজিদ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, ২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম মানিক মোল্যার ঘনিষ্টজন হিসেবে সর্বমহলে পরিচিত।

এদিকে কেন মজিদকে হত্যা করেছে এ নিয়ে চলছে নানান সমীকরণ। আধিপত্যের লড়াই সামনে চলে আসলেও পুরানো বিরোধ না অন্য কোনো কারণে এ হত্যাকান্ড খুনের প্রকৃত কারণ খুঁজছে পুলিশ। সেই সঙ্গে জমি সংক্রান্ত বিরোধ ছিল কিনা তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ। সাবেক ইউপি সদস্য মেকাইল মোল্যা, তার শ্যালক বাবু, মোক্তার হোসেন ও তার ভাই মনির হোসেন, সুজাত, রিপনসহ বেশ কয়েকজন রয়েছে সন্দেহের তালিকায়। মোক্তার হোসেনকে আটকের পর রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

নিহতের বোন নার্গিস আক্তার দাবি করেন, তাদের বাড়ির অদূরে আগে থেকেই ওঁৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা পরিকল্পিতভাবে মজিদকে হত্যা করেছে। স্বপন সাথে থাকায় তাকেও গুলি করা হয়েছে। গুলির শব্দ শুনে বাড়ির বাইরে বের হতে হতেই সন্ত্রাসীরা দ্রুত স্থানত্যাগ করেছে বলে নার্গিস জানান।

অপরদিকে স্থানীয় সংসদ সদস্য, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান আওয়ামী লীগ নেতা মজিদের হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছেন।

সাভার মডেল থানার ওসি এ এফ এম সায়েদ জানান, হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে। এ ঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, একটি ক্ষুদ্র ঋণদান সমিতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন আব্দুল মজিদ। শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) রাত ১০টার দিকে ওই সমিতির কার্যালয় থেকে বাড়ি ফেরার পথে কোটপাগাড় এলাকায় পিছন দিক থেকে তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। এ ঘটনায় স্বপন শেখ নামে (২৪) আরেক যুবক পায়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এদিকে হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে সাভার সদর ইউনিয়নের কোটপাগাড় এলাকায় সাবেক ইউপি সদস্য মিকাইল মোল্লার বাড়ি-ঘর ভাঙচুর করেছে বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী। খবর পেয়ে পুলিশ হাসপাতাল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে পরদিন মর্গে পাঠায়। আওয়ামী লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় হাসপাতালে ছুটে যান আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা।