চড়ের বদলায় সহপাঠীর পেটে চাকু...

আগের সংবাদ

সৈয়দ মহিদুল ইসলাম পদক পেলেন আসাদুজ্জামান নূর

পরের সংবাদ

শিল্পকলায় ‘হিরণ কিরণ ছবিখানি’

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯ , ৯:২৬ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯, ১০:২১ অপরাহ্ণ

Avatar

বাংলাদেশ ভারতের শিল্পীরা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গান ও কবিতার মুগ্ধতা ছড়ালেন। শিল্পীরা গানের সুরে আর বাচিক শিল্পীরা তাদের কন্ঠে ও বাণীতে অন্যরকম এক সন্ধ্যা উপহার দিলেন দর্শক শ্রোতাদের।

শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ‘হিরণ কিরণ ছবিখানি’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে মুক্তক পদাবলী আবৃত্তি একাডেমি। শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে রবীন্দ্রনাথকে নিবেদিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কবি নির্মলেন্দু গুণ। বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য কবি ড. মুহাম্মদ সামাদ। সভাপতিত্ব করেন মুক্তক পদাবলী আবৃত্তি একাডেমির সভাপতি প্রখ্যাত নৃত্যশিল্পী লায়লা আফরোজ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনার পাশাপাশি ধারা বর্ণনা করেন দেওয়ান সাইদুল হাসান।

মানবিক সমাজ বিনির্মাণে বাঙালি জাতিসত্তার কাছে রবীন্দ্রনাথের প্রাসঙ্গিকতা উঠে আসে অতিথিদের কথনে।

আলোচনা শেষে শুরু হয় গান ও কবিতার পরিবেশনা পর্ব। বাংলাদেশের ফাহিম হোসেনের সঙ্গে রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশন করেন ভারতের শিল্পী জয়ন্তী সোরেন। বাচিকশিল্পী মো. আহ্কাম উল্লাহ্, রাশেদ হাসান ও লায়লা আফরোজের সঙ্গে কবিতার শিল্পিত উচ্চারণ উপস্থাপন করেন ভারতের আবৃত্তিশিল্পী মলি দেবনাথ।

রবীন্দ্র সুরের দোলায় ফাহিম হোসেন চৌধুরী গেয়ে শোনান ‘জীবনে আমার যত আনন্দ’, ‘আজি প্রণমি তোমারে’, ‘সেই ভালো ভালো’, ‘আমার খেলা যখন ছিল তোমার সনে’, ‘আনেরা কত দূরে আছে সে আনন্দধাম’ শিরোনামের সঙ্গীত। জয়ন্তী সোরেন গেয়ে শোনান ‘চোখের আলোয় দেখেছিলেম চোখের বাহিরে’, ‘ওগো নদী আপন বেঘে পাগলপারা’, ‘মধুর মধুর ধ্বনি বাজে হৃদয় কমলবন মাঝে’, ‘ছায়া ঘটনাইছে বনে বনে গগনে গগনে’ শিরোনামের একগুচ্ছ গান।

রাশেদ হাসান পাঠ করেন ‘সন্ধ্যা ও প্রভাত’, ‘ছিন্নপত্র’, ‘আমি’, ‘দুঃসময়’ ও ‘আফ্রিকা’ শিরোনামের কবিতাগুলো। আহ্কাম উল্লাহর কণ্ঠে তুলে নেন ‘পরিচয়’, ‘ঝুলন’, ‘নির্ঝরের স্বপ্নভঙ্গ’, ‘হঠাৎ দেখা’ ও ‘প্রশ্ন শিরোনামের কবিতাগুলো। মলি দেবনাথ পাঠ করেন ‘সাধারণ মেয়ে’, ‘মানবপুত্র’, ‘কৃতঘ্ন’, ‘হঠাৎ দেখা’ ও ‘মৃত্যুঞ্জয়’ শীর্ষক কবিতাগুলো। লায়লা আফরোজ আবৃত্তি করেন ‘কাশের বনে শূন্য নদীর তীরে’ম ‘শেষ খেয়া’, ‘যখন আকাশ কাঁদে’, ‘বর্ষামঙ্গল ও মেঘদূত শিরোনামের কবিতা।