মাঠের বাইরে থেকেও আলোচনায় মেসি

আগের সংবাদ

অতীত ভুলে এগোতে চান সাকিব-ডমিঙ্গো

পরের সংবাদ

সাকিবের সামনে রেকর্ডের হাতছানি

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯ , ১০:০০ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯, ১০:০০ অপরাহ্ণ

Avatar

সমালোচনা তার পিছু ছাড়ে না। তার বক্তব্য নিয়ে প্রায় সময় তৈরি হয় বিতর্ক। কিন্তু ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত পারফরমেন্স করেই সব সমালোচনার জবাব দেন তিনি। দ্বাদশ বিশ্বকাপের কথাই ধরা যাক। ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস বিশ্বকাপে খেলতে যাওয়ার আগে অফিসিয়াল ফটোসেশনে অনুপস্থিত থাকার কারণে তীব্র সমালোচনার সম্মুখীন হতে হয়েছিল তাকে।

বিশ্বকাপে খেলতে গিয়ে ব্যাট হাতে ৮ ম্যাচে ৬০৬ রান ও বোলিংয়ে ১১ উইকেট শিকার করেই যাবতীয় সমালোচনার জবাব দেন তিনি। এতক্ষণে নিশ্চয়ই পাঠকদের বুঝতে বাকি নেই যে কার কথা বলা হচ্ছে। বলছি বিশ্বসেরা টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের কথা।

শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) থেকে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও জিম্বাবুয়ের অংশগ্রহণে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজ। অনন্য দুুটি রেকর্ডকে সামনে রেখে এই সিরিজ শুরু করবেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। এই সিরিজে তার সামনে উঁকি দিচ্ছে তামিমকে পেছনে ফেলে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের মালিক হওয়ার রেকর্ডটি নিজের করে নেয়ার হাতছানি। আর ত্রিদেশীয় এই টি-টোয়েন্টি সিরিজেই সাকিব পৌঁছে যাবেন মাশরাফিকে পেছনে ফেলে ২০ ওভারের ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি ম্যাচে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেয়ার রেকর্ডটি নিজের করে নেয়ার আরো কাছে।

টি-টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি বাংলাদেশি বোলারের রেকর্ডটা দেশসেরা অলরাউন্ডার সাকিব অনেক আগেই নিজের দখলে নিয়েছেন। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম সংস্করণে ৭২ ম্যাচে তার উইকেট ৮৮টি। যেখানে তার ধারে কাছেও নেই অন্য কোনো বোলার। এ তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান ৩০ ম্যাচে পেয়েছেন ৪৮ উইকেট। সে হিসাবে বলা যায়, টি-টোয়েন্টিতে উইকেট শিকারের দিক দিয়ে মোস্তাফিজের চেয়ে অনেক এগিয়ে আছেন সাকিব।

বোলিংয়ের মতো ব্যাটিংয়েও এবার শ্রেষ্ঠত্বের আসনটা নিজের দখলে নেয়ার সুযোগ আছে বাঁ-হাতি এই অলরাউন্ডারের সামনে। টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী ব্যাটসম্যান এখন তামিম ইকবাল। ৭১ ম্যাচে ১৫৫৬ রান করেছেন এই ওপেনার। এ তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে আছেন সাকিব আল হাসান। ৭২ ম্যাচে তার রান ১৪৭১। সে হিসাবে আজ থেকে শুরু হতে যাওয়া ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে আর মাত্র ৮৫ রান করতে পারলেই তামিমকে ছুঁবেন তিনি। আর যদি ৮৬ রান করতে পারেন তবে তামিমকে ছাড়িয়ে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের রেকর্ডটা এককভাবে নিজের করে নেবেন সাকিব।

শুধু রানের রেকর্ডই নয়। বাঁ-হাতি এই অলরাউন্ডারের সামনে উঁকি দিচ্ছে আরো একটি রেকর্ডের হাতছানি। ২০১৭ সালের এপ্রিলে মাশরাফির অবসরের পর স্থায়ীভাবে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ দলের নেতৃত্বের দায়িত্ব নেন সাকিব।

অবশ্য এর আগেও বেশ কিছু টি-টোয়েন্টি ম্যাচে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি। সব মিলিয়ে সাকিবের নেতৃত্বে এ পর্যন্ত ১৭টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে টাইগাররা। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম সংস্করণে সবচেয়ে বেশি ম্যাচে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেয়ার রেকর্ডটি এখন মাশরাফি বিন মুর্তজার দখলে। তার অধিনায়কত্বে ২৮টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ।

এ তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে আছেন মুশফিকুর রহিম। এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যানের নেতৃত্বে টাইগাররা খেলেছে ২৩টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ।

শুক্রবার থেকে শুরু হতে যাওয়া ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে গ্রুপ পর্বে ৪টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। যদি ফাইনালে ওঠে তবে সেটা বেড়ে হবে ৫টি। সে ক্ষেত্রে এই সিরিজ শেষেই মুশফিক ও মাশরাফিকে পেছনে ফেলে সবচেয়ে বেশি ম্যাচে দলকে নেতৃত্ব দেয়ার রেকর্ডটি নিজের করে নেয়ার পথে অনেকটাই এগিয়ে যাবেন সাকিব।

উল্লেখ্য, সাকিবের নেতৃত্বে খেলা ১৭টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচের মধ্যে ৪টিতে জিতেছে বাংলাদেশ। আর হেরেছে ১৩টিতে।

  • আরও পড়ুন
  • লেখকের অন্যান্য লেখা