শাহজালালে সাড়ে ৩ কোটি টাকার মোবাইলসহ গ্রেপ্তার ৩

আগের সংবাদ

বড় লিড পেল আফগানরা

পরের সংবাদ

শেখ কামাল স্নুকার চ্যাম্পিয়নশিপে বিজয়ী আশজাদ ইকবাল

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৯ , ৫:৪০ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৯, ৫:৪০ অপরাহ্ণ

কাগজ প্রতিবেদক

বেক্সিমকো গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় ঢাকা ক্লাব ও বাংলাদেশ বিলিয়ার্ডস অ্যান্ড স্নুকার ফেডারেশনের (বিবিএসএফ) যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত শেখ কামাল মেমোরিয়াল ফার্স্ট সার্ক স্নুকার চ্যাম্পিয়নশিপে শিরোপা জিতেছেন পাকিস্তানের আশজাদ ইকবাল। টুর্নামেন্টের ফাইনালে তিনি স্বদেশি মোহাম্মাদ বিলালকে হারিয়েছেন। ১ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া এ টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, নেপাল, পাকিস্তান এবং শ্রীলংকা অংশগ্রহণ করে।

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে শুক্রবার সন্ধ্যায় টুর্নামেন্টের সমাপনী অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

এ সময় তিনি বলেন, বর্তমান সরকার খেলাধুলা বান্ধব। প্রতিটি খেলাকে তারা সমান গুরুত্ব দিচ্ছে। এই টুর্নামেন্টের মাধ্যমে তরুণ খেলোয়াররা উৎসাহিত হবে এবং খেলাটি সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে সাহায্য করবে।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বিলিয়ার্ডস অ্যান্ড স্নুকার ফেডারেশনের (বিবিএসএফ) সেক্রেটারি সৈয়দ মাহবুব, টুর্নামেন্ট পরিচালক এ এ ইব্রাহীম কাজু, ঢাকা ক্লাবের প্রতিনিধি এবং মেম্বার ইনচার্জ- ডেভেলপমেন্ট, বিলিয়ার্ডস, স্নুকার অ্যান্ড টেনিস ডাঃ মো. জহিরুল ইসলাম, ঢাকা ক্লাবের নির্বাহী পরিষদের সদস্য, বিলিয়ার্ডস সাব-কমিটির সদস্য, বিলিয়ার্ডস অ্যান্ড স্নুকার ফেডারেশনের কর্মকর্তা ও অন্যান্য সদস্য এবং অংশগ্রহণকারী ক্লাবের কর্মকর্তাবৃন্দ।

পুরস্কার হিসেবে টুর্নামেন্ট চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তানের আশরাদ ইকবাল পেয়েছেন দুই হাজার পাঁচশত হাজার মার্কিন ডলার। দ্বিতীয় স্থান অধিকারী মোহাম্মাদ বিলাল পেয়েছেন দেড় হাজার মার্কিন ডলার। তৃতীয় এবং চতুর্থ স্থান অধিকারী প্রত্যেকে ৫০০ মার্কিন ডলার করে পেয়েছেন। টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের ৪ জনসহ মোট ১২ জন খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করেন।

আয়োজকরা জানান, ঢাকা ক্লাব দেশের একটি ঐতিহ্যবাহী এবং প্রাচীনতম সামাজিক ক্লাব। এ ক্লাবের সঙ্গে দেশের অন্যান্য ক্লাবগুলো ছাড়াও বিদেশের বহু ক্লাবের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সুসর্ম্পক রয়েছে। বিরাজমান এই স¤প্রীতি, সৌহার্দ এবং বন্ধুত্বের বন্ধনকে আরও সুদৃঢ় করতে খেলাধুলার যে সুদুরপ্রসারী ও অপরিহার্য ভূমিকা রয়েছে সে ভাবনা থেকেই ঢাকা ক্লাব প্রথমবারের মতো এ আয়োজন করেছিল। আগামীতেও এ ধরনের উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে।