ব্রাজিলকে বাঁচালেন নেইমার

আগের সংবাদ

সন্ধ্যায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক

পরের সংবাদ

সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন ও কমিশন গঠনের দাবি

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৯ , ৫:২০ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৯, ৫:৩৬ অপরাহ্ণ

Avatar

সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন প্রণয়ন ও জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশন গঠনের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি দ্রুত বাস্তবায়নের জন্যে সরকারের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছে  বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ ও ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু সংগঠনসমূহের জাতীয় সমন্বয় কমিটি।

শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) সংখ্যালঘু সমাবেশ থেকে এমন দাবি জানায় বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ ও ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু সংগঠনসমূহের জাতীয় সমন্বয় কমিটি। সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাব চত্বরে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ড. নিমচন্দ্র ভৌমিক। বক্তব্য রাখেন ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. রাণা দাশগুপ্ত, এ্যাড. সুব্রত চৌধুরী, কাজল দেবনাথ, বাসুদেব ধর, নির্মল রোজারিও, মনীন্দ্র কুমার নাথ প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, সংখ্যালঘু নিরাপত্তায় প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিকতা স্বত্বেও সংখ্যালঘুদের উপাসনালয়ে হামলা, তাদের বাড়ীঘর, দোকনপাট লুট, জমি জবরদখল, নারী অপহরণ ও নির্যাতন আজও অব্যাহতভাবে চলছে। এ প্রসংগে তারা সাম্প্রতিক সময়ে ভদন্ত অমৃতানন্দ ভিক্ষু হত্যা, গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতালদের উপর পুণরায় হামলা-হয়রাণী, পাহাড়ে-সমতলে অব্যাহত সাম্প্রদায়িক উস্কানী, পটুয়াখালীর এক প্রভাবশালী ব্যক্তি কর্তৃক কুয়াকাটার ৮টি দোকান লুটের ঘটনা উল্লেখ করেন।

নেতারা অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ আইন বাস্তবায়নে প্রশাসনের গড়িমসি ও অনীহায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এরা জনমনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সদিচ্ছাকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায়। এ ব্যাপারে তাঁরা আইনমন্ত্রী ও ভুমিমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। সংখ্যালঘু নের্তৃবৃন্দ পার্বত্য চট্টগ্রামে বিরাজমান অস্থিরতা সৃষ্টির জন্যে দায়ীদের চিহ্নিত করার উপর জোর গুরত্ব আরোপ করেন এবং পার্বত্যভূমিতে আত্মঘাতী সংঘর্ষ বন্ধে পাহাড়ী নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানান। তারা পার্বত্য শান্তিচুক্তির দ্রুত বাস্তবায়নের অঙ্গীকার দৃশ্যমানভাবে প্রতিফলনের মাধ্যমে পাহাড়ী জনগণের ক্ষোভ ও হতাশা কাটানোর জন্যে সরকারের প্রতি জোর দাবী জানান।

তারা বলেন, সংবিধানের রাষ্ট্রধর্ম রেখে ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘুদের ‘সংখ্যালঘু’ হিসেবে না ভাববার রাজনৈতিক নেতাদের বক্তব্য অর্থহীন ও হাস্যকর। তারা নাগরিক ঐক্যের স্বার্থে সংবিধানকে অসাম্প্রদায়িকীকরণ করে ৭২-র সংবিধানের মৌল আদলে ফিরিয়ে আনার জন্যে সরকার ও সকল রাজনৈতিক দলের প্রতি আহ্বান জানান।

সমাবেশ শেষে এক বিক্ষোভ মিছিল জাতীয় প্রেস ক্লাব চত্বর থেকে বেরিয়ে পুরানা পল্টন মোড় হয়ে পূণরায় সমাবেশস্থলে ফিরে আসে।

  • আরও পড়ুন
  • লেখকের অন্যান্য লেখা