বাংলাদেশে অর্থনৈতিক উন্নয়নে জাপানের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে

আগের সংবাদ

এরশাদের আসনে প্রার্থী দিতে রওশনের পার্লামেন্টারি বোর্ড

পরের সংবাদ

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে অর্থায়ন ২৫ শতাংশ করার নির্দেশনা

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৯ , ৮:৫৪ অপরাহ্ণ | আপডেট: সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৯, ৮:৫৫ অপরাহ্ণ

Avatar

২০২৪ সালের মধ্যে সিএমএসএমই অর্থায়ন ২৫ শতাংশে উন্নীত করতে হবে। এতে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিতরণ করা নিট ও অগ্রিম ঋণ স্থিতির মধ্যে কুটির, মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি খাতে (সিএমএসএমই) নিট ঋণ ও অগ্রিম স্থিতির পরিমাণ প্রতিবছর ১ শতাংশ বৃদ্ধি করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) মাস্টার সার্কুলার জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সিএমএসএমই অর্থায়ন নিয়ে এ পর্যন্ত জারি করা নির্দেশনাসমূহ একীভূত করে সার্কুলারটি জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এসএমই এ্যান্ড স্পেশাল প্রোগ্রামস বিভাগ।

সার্কুলারে সিএমএসএমইর সংজ্ঞা ও ঋণ সীমা, সিএমএসএমই অর্থায়ন, নারী উদ্যোগ, অগ্রাধিকার খাত, ঋণ আবেদন ও মঞ্জুর প্রক্রিয়া এবং পুনঃঅর্থায়ন স্কিম সংক্রান্ত বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়েছে।

সার্কুলার অনুযায়ী, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো প্রতি বছর জানুয়ারি মাসের শেষ কার্যদিবসের মধ্যে তাদের পূর্ববর্তী বছরে নিট ঋণ ও অগ্রিম স্থিতির ভিত্তিতে সিএমএসএমই ঋণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এসএমই বিভাগকে অবহিত করবে।

সার্কলারে উল্লেখ করা হয়, সিএমএসএমইর কুটির উপখাতের উৎপাদনশীল শিল্প সর্বোচ্চ ১৫ লাখ টাকা ঋণ পাবে। মাইক্রো উপখাতের উৎপাদনশীল শিল্প সর্বোচ্চ ১ কোটি, সেবা শিল্প ৫০ লাখ ও ব্যবসা খাত ২০ কোটি টাকা ঋণ পাবে। ক্ষুদ্র উপখাতের উৎপাদশীল শিল্প সর্বোচ্চ ২০ কোটি এবং সেবা ও ব্যবসা খাত ৫ কোটি টাকা করে ঋণ পাবে। আর মাঝারি উপখাতের উৎপাদনশীল শিল্প ৭৫ কোটি ও সেবা শিল্প ৫০ কোটি টাকা ঋণ পাবে।

সহায়ক জামানতের বিষয়ে সার্কুলারে বল হয়, সিএমএসএমই ঋণের প্রসারে ক্ষুদ্র উদ্যাক্তাদের জামানতের বিষয়টিকে অন্যতম সমস্যা হিসেবে গণ্য করা হয়। এ সমস্যা সমাধানে ব্যক্তিগত, সামাজিক ও গ্রুপ গ্যারান্টিকে জামানত হিসেবে বিবেচনা করা যাবে।

এছাড়া ক্ষেত্রবিশিষে ঋণ গ্রহীতা কর্তৃক পূর্বে গৃহিত কোন প্রাতিষ্ঠানিক ঋণের মূল্যায়নের বিষয়টিকে বিবেচনায় নিয়ে জামানতবিহীন ঋণ প্রদান করা যেতে পারে।