মুশফিকের সামনে রেকর্ডের হাতছানি

আগের সংবাদ

আবার এক নম্বরে উঠে এলেন স্মিথ

পরের সংবাদ

এরশাদের আসন নিয়ে পুত্র-ভাতিজা-ভাগ্নির কাড়াকাড়ি

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৯ , ১০:৩৮ অপরাহ্ণ

সংসদে বিরোধীদল জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রতিষ্ঠাতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া রংপুর-৩ আসনের প্রার্থিতা নিয়ে এরশাদ পরিবারে এখন বিরোধ তুঙ্গে। ভাতিজা হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ নিজেকে এরশাদ পরিবারের একমাত্র উত্তারাধিকারী হিসেবে দাবি করছেন। তার দলীয় মনোনয়ন চূড়ান্ত বলে প্রচার করছেন কর্মী ও সমর্থকরা। এ নিয়ে রংপুরে উত্তাপও ছড়িয়ে পড়েছে। তবে বসে নেই এরশাদের বোন সাবেক সংসদ সদস্য মেরিনা রহমানের মেয়ে ও প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন বাবলুর স্ত্রী মেহেজেবুন্নেছা রহমান টুম্পা। তিনিও রয়েছেন আলোচনায়। তবে আগুনে ঘি ঢেলেছেন এরশাদপুত্র রাহগীর আল মাহি সাদ ওরফে সাদ। মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাপা চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় থেকে তিনি মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

তার আগে সংসদে বিরোধীদলীয় উপনেতা ও জাপার সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান মা রওশন এরশাদের গাড়িতে করে সেখানে পৌঁছান। গাড়ি থেকে নেমে সোজা দ্বিতীয় তলায় গিয়ে পার্টির চেয়ারম্যান চাচা জিএম কাদেরের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। সেখানে আগে থেকেই অবস্থানকারী মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাসহ সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে কোলাকুলিও করেন। বাবার আসনে প্রার্থী হওয়ার আশায় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করার পর সাদ এরশাদ বলেন, বাবার অসমাপ্ত কাজগুলো শেষ করার জন্য নির্বাচনে প্রার্থী হতে চাই। দল যদি মনোনয়ন দেয় তাহলে রংপুর তথা দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে চাই।

টুম্পা – সাদ – আসিফ

তবে সাদের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহের আগের রাতেই রংপুর সদর উপজেলার পালিচড়া ও পাগলপীর এলাকায় মনোনয়ন দাবিতে বিক্ষোভ শেষে ছোট ভাই সাদ এরশাদের কুশপুত্তলিকা দাহ করেন বড় ভাই আসিফ শাহরিয়ারের সমর্থকরা। তাদের দাবি, সাদ বহিরাগত, তাকে রংপুরের কেউ চেনে না। এমনকি সাদ নিজেও রংপুর বিষয়ে সম্পূর্ণ অজ্ঞ। একই সঙ্গে সাদ এরশাদের ডিএনএ পরীক্ষারও দাবি উঠে নেতাকর্মীদের পক্ষ থেকে।

এদিকে, আজ সাদ এরশাদের মনোনয়ন ফরম নেয়ার খবরে ফের বিক্ষোভ শুরু করে রংপুরের স্থানীয় নেতাকর্মী ও আফিস সমর্থকরা। তবে তাদের বিক্ষোভ ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে সাদ এরশাদ বলেন, বড় দলের মধ্যে অনেকেই মনোনয়নপ্রত্যাশী থাকতে পারেন। অনেকের পছন্দের প্রার্থী থাকতে পারে। সময়মতো সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে। আসিফ শাহরিয়ার বলেছেন, বারবার ভুল সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এবার আর ভুল সিদ্ধান্ত নিতে দেয়া হবে না। যাকে কেউ চিনেই না, তাকে কেন মানুষ ভোট দেবে।

আগামী ৬ সেপ্টেম্বর মনোনয়ন ফরম সংগ্রহকারীদের সাক্ষাৎকার নেবে পার্টির পার্লামেন্টারি বোর্ড। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী মনোনয়ন দাখিলের শেষ সময় ৯ সেপ্টেম্বর, যাচাই-বাছাই ১১ সেপ্টেম্বর, প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ১৬ সেপ্টেম্বর এবং ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ৫ অক্টোবর।