সামনে ‘চ্যালেঞ্জিং’ ৭ দিন

আগের সংবাদ

শেষ চারে অ্যাশলে বার্টি

পরের সংবাদ

শিল্পকলায় ‘রাত ভরে বৃষ্টি’

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ১৮, ২০১৯ , ১২:৩০ অপরাহ্ণ | আপডেট: আগস্ট ১৮, ২০১৯, ১২:৩০ অপরাহ্ণ

Avatar

বিয়ে ও সংসার নামক যৌথ প্রতিষ্ঠানের জটিল পাকচক্রে আবদ্ধ তিন নর-নারীর মনোদৈহিক টানাপড়েনের গল্প ‘রাত ভরে বৃষ্টি’। মধ্যবিত্ত সমাজ জীবনে স্বামী-স্ত্রী বা বিবাহিত নারী-পুরুষের দাম্পত্য সম্পর্ক নানা সূক্ষ্মতিসূক্ষ্ম জটিলতা, বিশ্বাস-অবিশ্বাসের সংশয়ী প্রকাশও বটে। মনিমালা, অংশু ও তাদের বন্ধু জয় এখানে শুধুই তিনটি চরিত্র নয় বরং প্রচলিত যৌন নৈতিকতার প্রথাগত মূল্যবোধের সঙ্গে ক্রমাগত লড়ে চলা মানুষও তারা।
গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির পরীক্ষণ থিয়েটার হলে মঞ্চস্থ হলো ‘আপস্টেজ’ প্রযোজিত প্রাপ্তমনস্কদের নাটক ‘রাত ভরে বৃষ্টি’। বুদ্ধদেব বসুর উপন্যাস অবলম্বনে নাটকটি লিখেছেন ও নির্দেশনা দিয়েছেন সাইফ সুমন। এই নাটকের মাধ্যমেই নাট্যাঙ্গনে আপস্টেজের অভিষেক হলো।
নাটকটিতে অংশু চরিত্রে অভিনয় করেছেন প্রশান্ত হালদার, জয় চরিত্রে সাথী রঞ্জন দে এবং মণিমালা চরিত্রে অভিনয় করেছেন কাজী রোকসানা রুমা। সঙ্গীত পরিকল্পনা করেছেন অসিত কুমার, আলোক পরিকল্পনায় অম্লান বিশ্বাস, পোশাক পরিকল্পনায় রুনা কাঞ্চন, মঞ্চ পরিকল্পনা, দলের লোগো, পোস্টার ও প্রকাশনায় ছিলেন সাকিল সিদ্ধার্থ।
১৯৬৭ সালে প্রকাশিত বুদ্ধদেব বসুর লেখা ‘রাত ভরে বৃষ্টি’ উপন্যাস ঘিরে মামলা করেন আমহার্স্ট স্ট্রিটের বাসিন্দা ল’ কলেজের জনৈক ছাত্র নীলাদ্রি গুহ। নিম্ন আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট অশ্লীলতার অভিযোগে তখন নিষিদ্ধ করেছিলেন উপন্যাসটি, পাণ্ডুলিপি পর্যন্ত ধ্বংস করার আদেশ দিয়েছিলেন। মামলা এমন একপর্যায়ে চলে গিয়েছিল যে বুদ্ধদেব বসু তার ছোট মেয়ে দময়ন্তীকে চিঠিতে লিখেছিলেন, ‘‘বইটা আপাতত ‘নিহত’ হবে বলেই ধরে নে।’’ ১৯৬৯ সালে শুরু হওয়া মামলা শেষ হয় ১৯৭৩ সালে। শেষ পর্যন্ত উপন্যাসটি সম্পর্কে অশ্লীলতার অভিযোগ খারিজ হয়।