পূর্বধলায় সড়ক দূঘর্টনায় মাটরসাইকেল চালক নিহত

আগের সংবাদ

লাখো পর্যটকে মুখর কক্সবাজার

পরের সংবাদ

ঈদের লম্বা ছুটিতে পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত সিলেট

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ১৬, ২০১৯ , ৩:১৮ অপরাহ্ণ | আপডেট: আগস্ট ১৬, ২০১৯, ৩:১৮ অপরাহ্ণ

Avatar

প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি সিলেটে ভিড় জমাচ্ছেন পর্যটকরা। হাজার হাজার দেশি-বিদেশি পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত পর্যটন কেন্দ্রগুলো। পবিত্র ঈদুল আজহার টানা কয়েক দিনের ছুটি পেয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে তারা আসছেন।
ঈদের পরের দিন মঙ্গলবার থেকেই সিলেটের পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ঢল নামে মানুষের। বিভিন্ন আকর্ষণীয় ও দর্শনীয় স্পট এবং স্থাপনাগুলোতে ছুটে যাচ্ছেন স্থানীয়রাসহ পর্যটকরা।
সিলেটের হাওর, সবুজ চা বাগান, পাথরের পাহাড় আর ঝরনার স্বচ্ছ পানি মনকে স্বপ্নে রাঙায়। জেলার জাফলং, লালাখাল, বিস্তীর্ণ চা বাগান, রাতারগুল সোয়াম্প ফরেস্ট, ভোলাগঞ্জ, বিছনাকান্দি, উতমাছড়ার পাথররাজ্যসহ ওলিকুল শিরোমনি শাহজালাল (রহ.) ও শাহপরান (রহ.) মাজারে পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড়। বৃষ্টি মাঝে মধ্যে বাগড়া দিলেও আনন্দে ভাটা পড়েনি।
স্পটগুলো ছোট-বড় সব শ্রেণির মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে। পরিবার পরিজন, বন্ধু ও আত্মীয়স্বজনদের নিয়ে আনন্দ-উৎসবে মেতে ওঠেন সকলে। অনেকে ঘুরে বেড়াচ্ছেন দলবেঁধে। চলছে গান-গল্প, সময় আর সৌন্দর্যকে ধরে রাখতে তুলছেন ছবি। বর্ণিল আনন্দে তারুণ্যের উচ্ছ্বাস থাকছে বেশি। তারা দলবেঁধে তারা বেড়াচ্ছেন এক স্পট থেকে অন্য স্পটে।
নগরীর কাছে মালনীছড়া ও লাক্কাতুড়া চা বাগানে পর্যটকের ঢল। প্রচণ্ড ভিড় লেগেছে ওসমানী শিশু উদ্যান, ড্রিমল্যান্ড পার্ক, এডভেঞ্জার ওয়ার্ল্ড, কিনব্রিজ সংলগ্ন সুরমা নদীর তীর, টিলাগড় ইকোপার্কে। এ ছাড়া, সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন রিসোর্ট ও মোটেল-হোটেলগুলোতেও ভিড় চোখে পড়ার মতো। ঢাকার উত্তরার বাসিন্দা ব্যবসায়ী ফয়েজ আহমদ এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, প্রকৃতির অপরূপ লীলাভ‚মি সিলেটের প্রতি আমাদের অন্যরকম টান। সময় পেলেই বেড়াতে আসি। এবার লম্বা ছুটি থাকায় পরিবার নিয়ে এসেছি। কলেজছাত্র মুহিন আহমদ বলেন, কয়েকদিন থেকে সবকটি পর্যটন স্পট ঘুরব। প্রকৃতির সৌন্দর্য দেখে মন পুলকিত হচ্ছে।
বেসরকারি চাকরিজীবী হাসান আহমদ বলেন, চাকরির জন্য বেড়ানো হয় না। ঈদে নিজ ও স্বজনদের বাড়িতে বেড়াতে সময় চলে যায়। অনেকদিন ধরে সিলেটে ঘুরব বলে পরিকল্পনা করি। তিন দিনের ছুটিতে বেড়াতে আসা। তবে আগে হোটেল রুম বুকিং না করায় বিপাকে পড়েছি।
এদিকে সিলেটে ঘুরতে আসা পর্যটকদের চাপে হিমশিম খাচ্ছে হোটেলগুলোও। নগরীর আবাসিক হোটেলগুলোতে তিল ধারণের জায়গা নেই। গত দুদিনে অনেক পর্যটককে হোটেল না পেয়ে ফিরে যেতে দেখা গেছে। নগরীর জিন্দাবাজারের হোটেল গোল্ডেন সিটির ব্যবস্থাপক মিষ্টু দত্ত জানান, ঈদের পরদিন থেকে হোটেলে ভিড় বাড়তে থাকে। আগামী শনিবার দুপুর পর্যন্ত আমাদের পুরো হোটেলই বুকড। এখন অনেককেই ফিরিয়ে দিতে হচ্ছে।
এ ব্যাপারে গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিশ্বজিৎ কুমার পাল জানান, সরকার পর্যটনের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দেয়ার কারণে সারাবছর এখন গোয়াইনঘাটের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড় থাকে। ঈদে পর্যটকরা যাতে স্বাচ্ছন্দে ও নিরাপদে ভ্রমণ করতে পারেন সে লক্ষে পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। পাশাপাশি এখানে ট্যুরিস্ট পুলিশ, থানা পুলিশ, বিজিবি, আনসার ও রোভার স্কাউটের সদস্যরা নিয়মিত দায়িত্ব পালন করছেন।