মাধবপুরে প্রাইভেটকার দিয়ে ফেনসিডিল পাচার, গ্রেপ্তার ২

আগের সংবাদ

পুরনো আইপ্যাডের ছয় কাজ

পরের সংবাদ

তামিমের নতুন অধ্যায়

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ২১, ২০১৯ , ৩:৪০ অপরাহ্ণ | আপডেট: জুলাই ২১, ২০১৯, ৩:৪৪ অপরাহ্ণ

Avatar

শুক্রবারের সন্ধ্যাটা বাংলাদেশের ক্রিকেট ভক্তদের মনে থাকবে চিরকাল। মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে কত কিছুই না ঘটে গেল! বিকেলে অধিনায়ক হিসেবে সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। সংবাদ সম্মেলন শেষে অনুশীলন করতে গিয়ে চোট পান তিনি। আর চোট এতটাই গুরুতর যে ম্যাশ ছিটকে গেছেন শ্রীলঙ্কা সফর থেকে। মাশরাফি ছিটকে পড়ায় আসন্ন শ্রীলঙ্কা সফরের জন্য ভারপ্রাপ্ত অধিনায়কের দায়িত্ব দেয়া হয় দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবালকে। ড্যাশিং এই ওপেনারের নেতৃত্বেই চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তাদেরই মাটিতে ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে টাইগাররা। সিরিজের প্রথম ম্যাচটি মাঠে গড়াবে আগামী ২৬ জুলাই। এই ম্যাচে টস করতে নামার মধ্য দিয়ে নতুন এক অধ্যায় যোগ হবে তামিমের ক্যারিয়ারে। অধিনায়ক হিসেবে যাত্রা শুরু হবে তার। দীর্ঘদিন ধরে জাতীয় দলের সঙ্গে যুক্ত থাকলেও বাংলাদেশ দলকে ওয়ানডে কখনোই নেতৃত্ব দেননি তামিম। তামিম হতে যাচ্ছেন ওয়ানডে বাংলাদেশ জাতীয় দলকে নেতৃত্ব দেয়া ১৪তম ক্রিকেটার।
১৯৮৬ সাল থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছে বাংলাদেশ দল। টাইগারদের প্রথম অধিনায়ক গাজী আশরাফ। তার নেতৃত্বে ৭টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। হেরেছে সবকটিতেই। গাজী আশরাফের পর বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেয়ার দায়িত্ব পড়েছিল মিনহাজুল আবেদিন নান্নুর ওপর। তার অধিনায়কত্বে ২ ম্যাচ খেলে দুটিতেই হেরেছে বংলাদেশ। ওয়ানডেতে টাইগারদের প্রথম জয়টা আসে আকরাম খানের নেতৃত্বে। সব মিলিয়ে আকরামের নেতৃত্বে ১৫ ম্যাচ খেলে ১টি জয় পায় টাইগারবাহিনী। এরপর আমিনুল ইসলাম বুলবুলের নেতৃত্বে ১৬ ম্যাচে দুটি জয় পায় বাংলাদেশ। নাইমুর রহমান দুর্জয়ের নেতৃত্বে ৪ ম্যাচে খেলে হারে সবকটিতেই। খালেদ মাসুদ পাইলটের অধিনায়কত্বে ৩০ ম্যাচে জয় আসে ৪টি। আর খালেদ মাহমুদ সুজনের নেতৃত্বে ১৫টি ম্যাচ খেলে সবকটিতেই হারে বাংলাদেশ দল।
টাইগারদের অবস্থা কিছুটা বদলাতে শুরু করে হাবিবুল বাশার সুমনের সময়ে। তার অধিনায়কত্বে ৬৯টি ম্যাচ খেলে ২৯টি জিতেছে বাংলাদেশ। দুটি ম্যাচে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেন রাজিন সালেহ। এরমধ্যে হারে দুটিতেই। এরপর দীর্ঘদিন টাইগারদের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। তার অধিনায়কত্বে ৩৮টি ম্যাচ খেলে ৮টিতে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। আশরাফুলের পর নেতৃত্বের দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল সাকিব আল হাসানের কাঁধে। তার নেতৃত্বে ৫০ ম্যাচে টাইগাররা জিতেছে ২৩টি। এ ছাড়া মুশফিকুর রহিমের নেতৃত্বে ৩৭টি ম্যাচ খেলে ১১টিতে জিতেছে টাইগাররা।
বাংলাদেশ দল বদলাতে শুরু করে মাশরাফি বিন মুর্তজার অধিনায়কত্বে। ওয়ানডেতে বদলে যাওয়া বাংলাদেশের রূপকার বলা হয় তাকে। ক্যাপ্টেন ম্যাশের অধীনে হারের চেয়ে জয়ের পাল্লাটাই ভারী। তার অধিনায়কত্বে এখন পর্যন্ত ৮৫টি ম্যাচ খেলে ৪৭টিতে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ দল।
বাংলাদেশ দলের ওয়ানডে অধিনায়কদের এই তালিকায় এবার যুক্ত হচ্ছে তামিম ইকবালের নাম। ২০০৭ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে ওয়ানডে অভিষেক হয় তামিমের। জাতীয় দলের হয়ে এখন পর্যন্ত ২০১টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন মারকুটে এই ওপেনার। করেছেন ৬৮৭১ রান। এরমধ্যে আছে টি সেঞ্চুরি ও ৪৭টি হাফসেঞ্চুরি। বাংলাদেশের হয়ে ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের রেকর্ডটি এখন তামিমের দখলে। ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটিও এখন তার দখলে, ১৫৪ রান। সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরিও তার, ১১টি। পরিসংখ্যান বিচার করলে বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা ব্যাটসম্যান বলতেই হয় তামিমকে। ওপেনিংয়ে তামিম বাংলাদেশ দলের অটোমেটিক চয়েজ। এবার নেতৃত্বের দায়িত্বটা তিনি কীভাবে সামলান সেটাই দেখার পালা।

বিষয়: