কিউইদের বর্ষসেরা স্টোকস!

আগের সংবাদ

শ্রীলঙ্কা যাওয়া হচ্ছে না মাশরাফির

পরের সংবাদ

হল অব ফেমে শচিন

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ২০, ২০১৯ , ৩:১১ অপরাহ্ণ | আপডেট: জুলাই ২০, ২০১৯, ৩:১১ অপরাহ্ণ

Avatar

অবশেষে আইসিসি হল অব ফেমে জায়গা পেয়েছেন ক্রিকেট ঈশ্বর হিসেবে খ্যাত সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটার শচিন টেন্ডুলকার। এ পর্যন্ত ৮৭ জন ক্রিকেটার আইসিসি হল অব ফেম অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। সম্মানজনক এই মর্যাদায় ভূষিত হওয়া ষষ্ঠ ভারতীয় ক্রিকেটার তিনি। গতকাল লন্ডনে অনুষ্ঠিত আইসিসির বার্ষিক আলোচনা সভায় এই বিষয়টি জানানো হয়। এ ছাড়া এদিন আইসিসি হল অব ফেমে নাম উঠেছে কিংবদন্তি দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটার অ্যালান ডোনাল্ডের। তাছাড়া অস্ট্রেলিয়ান নারী ক্রিকেট দলের সাবেক পেসার ক্যাথরিন ফিটসপ্যাট্রিকের নামও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে আইসিসি হল অব ফেমে।
ব্যাট হাতে ক্রিকেটের অধিকাংশ রেকর্ডই এখনো নিজের দখলে রেখেছেন সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটার শচিন টেন্ডুলকার।
লিটল মাস্টার হিসেবে খ্যাত ডানহাতি এই ব্যাটসম্যানের জন্ম ভারতের মুম্বাই শহরে। ওয়ানডে ও টেস্ট মিলিয়ে ক্যারিয়ারে ৩৪ হাজারের অধিক রান করেছেন তিনি। শচিনের টেস্ট অভিষেক হয় ১৯৮৯ সালের ১৫ নভেম্বর। ওই ম্যাচে ভারতের প্রতিপক্ষ ছিল চিরপ্রতিদ্ব›দ্বী পাকিস্তান। একই দলের বিপক্ষে ওই বছরের ডিসেম্বরে ওয়ানডে অভিষেক হয় লিটল মাস্টারের।
দীর্ঘ ক্যারিয়ারে ২০০টি টেস্ট খেলেছেন তিনি। করেছেন ১৫,৯২১ রান। পাশাপাশি টেস্টে ৪৬টি উইকেটও পেয়েছেন তিনি। ওয়ানডেতে ৪৬৩ ম্যাচে ১৮,৪২৪ রান করেছেন কিংবদন্তি এই ব্যাটসম্যান। রঙিন পোশাকের ক্রিকেটে বল হাতেও দারুণ উজ্জ্বল শচিনের পারফরমেন্স। ওয়ানডেতে ১৫৪ উইকেট পেয়েছেন তিনি।
শচিনই রঙিন পোশাকের ক্রিকেটে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানো ব্যাটসম্যান। তার নামের পাশে আছে অসংখ্য রেকর্ড। ওয়ানডে ও টেস্ট ক্রিকেট মিলিয়ে সেঞ্চুরির সেঞ্চুরি করা একমাত্র ক্রিকেটার তিনি। টেস্টে তার সেঞ্চুরির সংখ্যা ৫১টি। আর ওয়ানডেতে ৪৯টি সেঞ্চুরি রয়েছে তার। শুধু তাই নয়, ওয়ানডে ও টেস্ট দুটি ফরম্যাটেই সর্বোচ্চ রানের মালিক তিনি। ভারতের ২০১১ সালের বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য ছিলেন শচিন।
শচিন টেন্ডুলকারের আগে ভারতীয়দের মধ্যে আইসিসি হল অব ফেমে জায়গা পেয়েছেন সুনীল গাভাস্কার, বিশেন সিং বেদি, কপিল দেব, অনিল কুম্বলে ও রাহুল দ্রাবিড়। লিটল মাস্টার শচিনকে কেন এত দেরিতে আইসিসি হল অব ফেমের অন্তর্ভুক্ত করা হলো তা নিয়ে ক্রিকেট ভক্তদের মনে রয়েছে কৌত‚হল। নিয়ম অনুযায়ী ক্যারিয়ারের সর্বশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার ন্যূনতম ৫ বছর পর হল অব ফেমে জায়গা পেতে পারেন কোনো ক্রিকেটার। শচিন টেন্ডুলকার তার ক্যারিয়ারের শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচটি খেলেছেন ২০১৩ সালের ১৪ নভেম্বর। ওই টেস্টে ম্যান ইন ব্লুদের প্রতিপক্ষ ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।
এদিকে ২০০৪ সালে ক্রিকেট থেকে অবসর নেন কিংবদন্তি প্রোটিয়া পেসার অ্যালান ডোনাল্ট। সে হিসেবে অবসরের ১৪ বছর পর আইসিসি হল অব ফেমে জায়গা পেলেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে ৭২ টেস্টে ৩৩০ উইকেট পেয়েছেন এই পেসার। আর ১৬৪ ওয়ানডেতে পেয়েছেন ২৭২ উইকেট। ওয়ানডেতে ২০০ ও টেস্টে ৩০০ উইকেট পাওয়া প্রথম প্রোটিয়া বোলার ডোনাল্ড।
এ ছাড়া গতকাল অষ্টম নারী ক্রিকেটার হিসেবে হল অব ফেমে জায়গা পেয়েছেন ফিটসপ্যাট্রিক। দীর্ঘ ১৬ বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে অস্ট্রেলিয়ার দুটি বিশ^কাপ জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন তিনি।
এ পর্যন্ত মোট ৮৭ জন ক্রিকেটার আইসিসি হল অব ফেমে জায়গা পেয়েছেন। এরমধ্যে সর্বোচ্চ ২৮ জন ক্রিকেটার আছেন ইংল্যান্ডের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার আছেন ২৬ জন। আর তৃতীয় সর্বোচ্চ ১৮ জন ক্যারিবীয় ক্রিকেটার এই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। এ ছাড়া ভারতের ৬ জন, পাকিস্তানের ৫ জন, নিউজিল্যান্ডের ৩ জন, দক্ষিণ আফ্রিকার ৩ জন ও শ্রীলঙ্কার ১ জন ক্রিকেটার আইসিসি হল অব ফেমে জায়গা পেয়েছেন।

বিষয়:
  • আরও পড়ুন
  • লেখকের অন্যান্য লেখা