দেশ ছেড়ে অস্ট্রেলিয়া চলে যাচ্ছেন মালিঙ্গা

আগের সংবাদ

স্লোগান দিতে দিতে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন ওয়াসি

পরের সংবাদ

মাত্রাতিরিক্ত ইনজেকশনে শিশুর মৃত্যু

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ২০, ২০১৯ , ৯:৪৩ অপরাহ্ণ | আপডেট: জুলাই ২০, ২০১৯, ৯:৪৩ অপরাহ্ণ

অনলাইন প্রতিবেদক

পাবনার ঈশ্বরদীর সাঁড়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে সুন্নত দেওয়ার আগে মাত্রাতিরিক্ত ইনজেকশন পুশ করায় রিসকাত হোসেন (২ মাস) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত উপ-সহকারী মেডিক্যাল অফিসার ইকবাল হোসেন পালিয়ে গেছেন। শনিবার (২০ জুলাই) বিকেল ৫টায় সাঁড়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র থেকে ওই শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে গেছে পুলিশ। তার আগে দুপুর পৌনে ২টায় উপজেলার সাঁড়া ইউনিয়নে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

রিসকাত নাটোরের লালপুর উপজেলার এবি ইউনিয়নের পাটিকাবাড়ি গ্রামের ট্রাকের হেলপার সজিব হোসেনের দ্বিতীয় সন্তান। নিহত শিশুর চাচা হাসান আলী জানান, জন্মের পরই রিসকাতের প্রস্রাবে ইনফেকশন দেখা দেয়। ঈশ্বরদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে ডাক্তার সুন্নত দেওয়ার পরামর্শ দেন। পাঁচদিন আগে শিশুটিকে নিয়ে তারা সাঁড়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে আসেন। এসময় উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার ইকবাল হোসেন জানান, প্রস্রাবে ইনফেকশন হয়েছে, সুন্নত দিতে হবে। টাকা না থাকায় তারা সেদিন ফিরে যান।

শনিবার (২০ জুলাই) সকালে মেডিক্যাল অফিসার ইকবাল হোসেন মোবাইল ফোনে তাদের আসতে বলেন। দুপুর পৌনে ২টার সময় তারা সাঁড়া ইউনিয়নের ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে আসেন। সেখানে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার ইকবাল হোসেন সুন্নত দেওয়ার আগে শিশুটিকে কয়েকটি এনেসথেশিয়া ইনজেকশন পুশ করেন। তার পরপরই শিশুটির কোনো সাড়া শব্দ পাওয়া যায়নি। একপর্যায়ে সে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। মৃত্যুর খবর শুনে শিশুর স্বজনরা হাসপাতালে ছুটে আসেন। এই সুযোগে মেডিক্যাল অফিসার সটকে পড়েন।

এদিকে শিশু রিসকাতের স্বজনদের আহাজারি শুনে কমিউনিটি হাসপাতালে এসে ভিড় করেন এলাকার স্থানীয় নারী-পুরুষ। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে। এ সময় ওই শিশুর ব্যবহৃত ওষুধের শিসা জব্দ করেছে পুলিশ।

ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক, মেডিক্যাল অফিসার আব্দুল বাতেন জানান, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে সুন্নত দেওয়ার কোনো যন্ত্রপাতি এবং অপারেশন করার সরকারি কোনো অনুমতি নেই। তাছাড়া ইকবাল হোসেন একজন মেডিক্যাল সহকারী। তিনি নিজ দায়িত্বে এটা করেছেন। শিশুর মৃত্যুর খবরটি সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। সেখান থেকে যে নির্দেশনা আসবে সেটা পালন করা হবে।

সত্যতা স্বীকার করে ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহাউদ্দীন ফারুকী জানান, শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত শিশুর পরিবার অভিযোগ দিলে মেডিক্যাল অফিসারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।