হালুয়া-রুটি ছিটিয়ে বিএনপি গঠন করা হয়েছিল: তথ্যমন্ত্রী

আগের সংবাদ

খুনের পরিকল্পনায় মিন্নিও!

পরের সংবাদ

বগুড়ায় যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ওপরে

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ১৮, ২০১৯ , ১০:৫৯ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: জুলাই ১৮, ২০১৯, ১১:০১ পূর্বাহ্ণ

Avatar

বগুড়ায় প্রতিদিনই বাড়ছে যমুনা নদীর পানি, প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। বৃহস্পতিবার সকালে এই নদীর পানি বিপদসীমার ১২৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

জেলা প্রশাসনের হিসাব অনুযায়ী, সারিয়াকান্দি, সোনাতলা ও ধুনট উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের ১০২টি গ্রাম বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। এতে প্রায় ৯০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যায় দুই হাজার পরিবার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে।

বগুড়ার ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক রায়হান ইসলাম জানান, তিন উপজেলায় বন্যাদুর্গতদের জন্য ৩২২ মেট্রিক টন চাল, দুই হাজার প্যাকেট শুকনা খাবার ও এক হাজার পিস পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে।

বন্যায় তিন উপজেলার ৬৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ১১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্লাবিত হওয়ায় পাঠদান বন্ধ রয়েছে বলে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

২০ হাজার পরিবার বিভিন্ন নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিয়েছে। সেখানে রান্নার ব্যবস্থা না থাকায় শুকনা খাবার খেয়ে দিন কাটছে তাদের। সেখানে বিশুদ্ধ খাবার পানি, জ্বালানি ও গবাদি পশুখাদ্যের চরম সংকট দেখা দিয়েছে।

সরকারি হিসাব অনুযায়ী, সারিয়াকান্দি উপজেলায় ২২২টি পুকুরের (২৬ হেক্টর) ৭৪ মেট্রিক টন মাছ ভেসে গেছে। এর আনুমানিক মূল্য ১ কোটি ৭২ লাখ টাকা।

আগামী ২৪ ঘণ্টায় দেশের উত্তর ও মধ্যাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হতে পারে বলে জানিয়েছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান ভুঁইয়া।

তিনি বলেন, বন্যা উত্তর এবং উত্তর মধ্যাঞ্চল হয়ে মধ্যাঞ্চলের দিকে প্রভাব বিস্তার শুরু করছে। ফরিদপুর, রাজবাড়ী, শরিয়তপুর ও মুন্সীগঞ্জ এই জেলাগুলো আগামী দুই একদিনের মধ্যে বন্যাকবলিত হবে।

আরিফুজ্জামান ভুঁইয়া বলেন, আগামী এক দুদিনের মধ্যে মধ্যাঞ্চলে যে বন্যা প্রভাব বিস্তার করবে, সেই বন্যা পরিস্থিতি আরো অবনতি হতে পারে। এদিকে দেশের উত্তর পূর্বাঞ্চল ও দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতি ক্রমেই উন্নতি হচ্ছে।

বিষয়: