টার্বো এডিশনে ‘প্রিমো এইচএইট’

আগের সংবাদ

কর্মক্ষেত্রে ইমেইলের শিষ্টাচার

পরের সংবাদ

চাকরি খুঁজতে খুঁটিনাটি

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ১৫, ২০১৯ , ৩:৪২ অপরাহ্ণ | আপডেট: জুলাই ১৫, ২০১৯, ৩:৪২ অপরাহ্ণ

Avatar

প্রথম চাকরি খোঁজার প্রক্রিয়াটিতে যতটাই উৎসাহ ও উদ্দীপনা নিয়ে কাজ করে ততটাই কাজ করে ভয়; সময়ের সঙ্গে অনুভূতি কেটে একটি একঘেয়ে ভাব চলে আসে। আর সেসঙ্গে আমাদের মনে হতে থাকে আমরা হয়তো যে কোনো ধরনের চাকরির সাক্ষাৎকার দিতে যথেষ্ট প্রস্তুত এবং এই জায়গাটিতেই আমরা সাধারণত ভুল করে ফেলি। এই ভুলগুলো শুধু যে আমাদের ইন্টারভিউ বোর্ডে করি তা নয় বরং আমাদের জীবনবৃত্তান্ত বা সিভি তৈরির ক্ষেত্রেও করি।

নিজের ব্যাপারে সত্য বলুন
নিজের সম্পর্কে মিথ্যাপ্রচার থেকে বিরত থাকুন। সম্পর্কে ভ্রান্ত ধারণা দিয়ে নতুন কাজের শুরু করা অনুচিত। কেননা আপনার এই মিথ্যাগুলোই ভবিষ্যতে আপনার বিরুদ্ধে কাজ করতে পারে এবং বেদনাদায়ক পরিস্থিতির শিকার হতে পারেন। তাই সত্য ঘটনা দিয়ে নিজেকে উপস্থাপন করার চেষ্টা করুন।

প্রাণবন্ত হয়ে কথা বলুন
সাধারণত এই দিকে নজর কম দেই অথচ ইন্টারভিউতে ইতিবাচক মনোভাবের সঙ্গে সাক্ষাৎকার গ্রহণকারীদের মনোযোগ কেড়ে নেয়াটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যে কোনো সাক্ষাৎকারে একমাত্র ব্যক্তি নন, ইন্টারভিউতে বলা বেশিরভাগ কথা বোর্ডের সদস্যরা অন্য সবার কাছে শুনে অভ্যস্ত যার কারণে তাদের মধ্যে একটু ক্লান্তির ছাপ দেখা যেতেই পারে। তাই প্রাণবন্ত হয়ে কথা বলে অন্যদের থেকে আলাদা হতে হবে। বলতে পারেন নিজের শখের কাজের কথা, যদি সেটি গতানুগতিক ধারার বাইরের কোনো শখ তাহলে তো কথাই নেই। তবে আগ্রহ যেখানেই থাকুক না সেগুলো কেন উপস্থাপন করুন আকর্ষণীয়ভাবে। কাজটি অনেক ভাবেই করা যায়; গল্প বলার ধরন দিয়ে বা অঙ্গভঙ্গির সাহায্যে। নিজের কথা বলুন স্বাভাবিক, স্বচ্ছলভাবে হাত নেড়ে তবে এক্ষেত্রে প্রয়োজনের অতিরিক্ত হাতের ব্যবহার পরিহার করুন।
আত্মবিশ্বাসী হোন
কেবল আত্মবিশ্বাসের মাধ্যমেই নিজেকে যোগ্য লোক হিসেবে প্রমাণ করতে পারেন। নিজের দায়িত্বশীলতা, কাজের সদিচ্ছার প্রকাশ ঘটান আচরণে।
সাক্ষাৎকারের সময়, মনস্থির করে শান্ত হোন এবং স্বাভাবিক, নৈমিত্তিক কণ্ঠে কথা বলার চেষ্টা করুন, যাতে ইন্টারভিউ সংক্রান্ত চাপা উত্তেজনা ধরা না পড়ে। সর্বোপরি, স্নায়ুচাপ থেকে নিজেকে মুক্ত রাখুন। এজন্য পারলে ইন্টারভিউ বোর্ডে যাওয়ার আগে পরিচিত কারো সঙ্গে কথা বলে নিজের মনকে শান্ত রাখুন।

প্রাথমিক জ্ঞান রাখুন
যে কোম্পানির জন্য কাজ করতে চাইছেন সেটি সম্পর্কে যথাযথ জ্ঞান না থাকাটার জন্য যতটা না বিব্রতকর, তার চেয়ে অনেক বেশি সেই কোম্পানির কর্মকর্তাদের জন্য মানহানিকর। তাই যতটা সম্ভব কোম্পানির সম্পর্কে প্রাথমিক জ্ঞান নিয়ে ইন্টারভিউ বোর্ডে যান।
অফিসের মূল লক্ষ্য বা বৈশিষ্ট্য এসবের পর্যাপ্ত ধারণা নিন। এভাবে নিজেকে প্রস্তুত করতে পারেন এবং এমন গুণগুলো উল্লেখ করতে পারবেন যেগুলো কর্মকর্তারা নতুন কর্মচারিদের মধ্যে দেখতে চেয়েছেন তখন তারা তাদের নতুন কর্মচারি হিসাবে আপনাকে গ্রহণ করতে অনিচ্ছুক হবেন না।

  • আরও পড়ুন
  • লেখকের অন্যান্য লেখা