সোসাইটি ৫.০ ও ডিজিটাল বাংলাদেশ

আগের সংবাদ

সংসদের মুলতবি অধিবেশন রোববার

পরের সংবাদ

নাটোরে পুলিশের তাড়া খেয়ে যুবকের মৃত্যু

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ৬, ২০১৯ , ৯:৫৭ অপরাহ্ণ | আপডেট: জুলাই ৬, ২০১৯, ৯:৫৭ অপরাহ্ণ

Avatar

নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলায় পুলিশের তাড়া খেয়ে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে আজিজুল ইসলাম (২৭) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। আজ শনিবার দুপুরে উপজেলার দয়ারামপুর ইউনিয়নের চন্দ্রখইর এলাকায় বড়াল নদীতে এ মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। তবে পুলিশ এ অভিযোগ অস্বীকার করে শেওলায় জড়িয়ে তার মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করেছে। নিহত আজিজুল ইসলাম উপজেলার চন্দ্রখইর গ্রামের সিরাজুল ইসলাম সেখের ছেলে। ঘটনার পর স্থানীয় জনগণ পুলিশের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন করলে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, শনিবার দুপুর আড়াইটার দিকে আজিজুল ইসলাম বিদ্যুৎনগর বাজার থেকে ফিরছিলেন। এ সময় পুলিশের একটি দল অভিযানে গিয়ে মাদকসেবী সন্দেহে আজিজুল ইসলামকে ধাওয়া দেয়। গ্রেপ্তার এড়াতে পুলিশের তাড়া খেয়ে বড়াল নদীতে ঝাঁপ দেন আজিজুল। এরপর বড়াল নদী থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

ঘটনার পর স্থানীয় জনতা পুলিশের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে। পরিস্থিতি সামাল দিতে নাটোর থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এনে ঘটনাস্থলে মোতায়েন করা হয়। বিকেলে আজিজুলের মরদেহ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিহতের বড় ভাই রাশিদুল ইসলাম বলেন, বাগাতিপাড়া মডেল থানা পুলিশের এসআই সাজ্জাদ ও তার সঙ্গে থাকা অপর একজন কনস্টেবল আমার ছোট ভাই আজিজুলকে তাড়া দিয়েছিল। তাড়া খেয়ে আমার ছোট ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে। এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি আমরা।

এ বিষয়ে বাগাতিপাড়া থানা পুলিশের এসআই সাজ্জাদ জানান, তিনি শনিবার স্পেশাল ডিউিটিতে ছিলেন। একটি নিয়মিত মামলার তদন্ত শেষে নদী পাড়ে অনেক মানুষ দেখে ঘটনাস্থলে যান। এ সময় নদীতে একটি ছেলে ডুবে গেছে শুনে তিনি ফায়ার সার্ভিসকে সংবাদ দেন। এর বেশি কিছু তিনি জানেন না। কোন পুলিশ কখন আজিজুলকে ধাওয়া দিয়েছে তা তার জানা নেই।

এ বিষয়ে নাটোর সদর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আবুল হাসনাত বলেন, মাদকবিরোধী একটি অভিযান চালানোর সময় আজিজুল ইসলাম নদীতে ঝাঁপ দেয়। সেখানে নদী অনেক গভীর ছিল, প্রচুর শ্যাওলা ছিল। ফায়ার সার্ভিসের লোকেরা শ্যাওলা জড়ানো অবস্থায় আজিজুলের মরদেহ উদ্ধার করে।