হরিলুট কমালে দাম বাড়াতে হতো না : ড. ম. তামিম

আগের সংবাদ

শিল্প-কারখানা ধ্বংস হয়ে যাবে : শফিউল ইসলাম

পরের সংবাদ

দাম বাড়ানোর এই সিদ্ধান্ত অন্যায় : আনু মোহাম্মদ

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ১, ২০১৯ , ১১:১৮ পূর্বাহ্ণ | আপডেট: জুলাই ১, ২০১৯, ১১:১৮ পূর্বাহ্ণ

Avatar

বাজেটের পর গ্যাসের দাম বাড়ানো অন্যায় মন্তব্য করে অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. আনু মোহাম্মদ বলেছেন, এটি সাধারণ মানুষের ওপর জুলুম। এতে এলপিজি (লিকুইড পেট্রোলিয়াম গ্যাস) ব্যবসায়ীদের পকেটভারী হবে আর সাধারণ মানুষের পকেট ফাঁকা হবে। যারা দুই নম্বরী ব্যবসা করছে, এলপিজি আমদানি করছে, তাদের কোনো সমস্যা নেই। তাদের জন্য তো আনন্দের সংবাদ। সাধারণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। প্রতি মাসে অতিরিক্ত ১৭৫ টাকা গুনতে হবে। সেইসঙ্গে বাড়বে সংশ্লিষ্ট ব্যয়। বিদ্যুতের দাম বাড়বে। বাড়বে জ্বালানি ব্যয়। বেশ কয়েকটি সংগঠনের তীব্র আপত্তির মধ্যেই গতকাল রবিবার সব পর্যায়ে গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্তে সরকারের কঠোর সমালোচনা করেন তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব ড. আনু মোহাম্মদ।
ভোরের কাগজের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ বলেন, এসব সিলিন্ডার ব্যবসায়ীদের স্বার্থেই গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে। তিতাসের মতো দুর্নীতিগ্রস্ত প্রতিষ্ঠান লাভবান হবে। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় এখন দেশি-বিদেশি কোম্পানির আস্তানায় পরিণত হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। যারা গ্যাস ব্যবহার করেন না, তারা কিভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন এমন প্রশ্নের জবাবে আনু মোহাম্মদ বলেন, শুধু গ্যাসের দাম তাদের মেটাতে হচ্ছে না। কিন্তু গ্যাসের দাম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবকিছুর বাড়তি ব্যয়ের বোঝা তো তাদের মেটাতে হবে। বাসাভাড়া থেকে শুরু করে নিত্যপ্রয়োজনীয় কাঁচাবাজারেও এর প্রভাব পড়বে। কারণ গ্যাসের দাম বাড়লে বিদ্যুৎ এবং জ্বালানির দাম বাড়ে। আর বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দাম বাড়লে যাতায়াত খরচও বাড়বে। এই অজুহাতে সবকিছুর দাম বাড়বে বলে মন্তব্য করেন তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ।