‘শনিবার বিকেল’ মুক্তির সিদ্ধান্তে আরো সময় লাগবে

আগের সংবাদ

নতুন সিনেমায় কারিনা কাপুর

পরের সংবাদ

পুঁজিবাজারে কালো টাকা চায় সিএসই

কাগজ প্রতিবেদক :

প্রকাশিত হয়েছে: জুন ১৭, ২০১৯ , ১:০৪ অপরাহ্ণ

২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে ফ্ল্যাট বা জমি কেনা এবং ইকোনমিক জোনের মতো পুঁজিবাজারেও বিনা প্রশ্নে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের দাবি জানিয়েছে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই)। একই সঙ্গে শেয়ারবাজারের টেকসই উন্নয়ন এবং গুণগত সম্প্রসারণের জন্য বাজেট প্রস্তাবের আগে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের মাধ্যমে জানানো প্রস্তাবনাগুলো পুনর্বিবেচনার জন্য অর্থমন্ত্রীকে অনুরোধ জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। গতকাল রবিবার ঢাকাস্থ সিএসইর প্রধান কার্যালয়ে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণা পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে সিএসইর ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) গোলাম ফারুক এ অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, এবারের বাজেটে অপ্রদর্শিত আয় নির্দিষ্ট করে প্রদান সাপেক্ষে বৈধকরণের বিধান রাখা হয়েছে, যা ফ্ল্যাট, জমি কেনা এবং ইকোনমিক জোনে বিনিয়োগ করা যাবে। এ ক্ষেত্রে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য কোনো বিশেষ সুবিধা দেয়া হয়নি। পাচার রোধ করা ও বিনিয়োগের স্বার্থে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনা প্রশ্নে নির্দিষ্ট পরিমাণ কর দেয়া সাপেক্ষে পুঁজিবাজারেও বিনিয়োগের সুযোগ দেয়ার জন্য অনুরোধ করছি।
তিনি আরো বলেন, বাজেটের জন্য সিএসই যে প্রস্তাবগুলো দিয়েছিল তার মধ্যে কোনোটি পূর্ণাঙ্গভাবে বাস্তবায়ন করা হয়নি। প্রস্তাবগুলো পুনর্বিবেচনার জন্য অর্থমন্ত্রীকে অনুরোধ করছি।
সিএসই যেসব প্রস্তাবনাগুলো পুনর্বিবেচনার দাবি জানিয়েছে, তার মধ্যে রয়েছে- তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর বিদ্যমান কর হার ২৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২০ শতাংশ হলে ভালো কোম্পানিগুলো শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হবে। নতুন তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর আয় তিন বছর করমুক্ত রাখা, এসএমই কোম্পানিগুলোকে ৩ বছর শূন্য হার কর নির্ধারণ করা, ১ লাখ টাকা পর্যন্ত লভ্যাংশ আয়কে করমুক্ত রাখা। দেশের অর্থনীতির আকার এবং ব্যাংকিং খাতের অস্থিরতার পরিপ্রেক্ষিতে একটি শক্তিশালী বন্ড মার্কেট তৈরির লক্ষ্যে সর্বপ্রকার বন্ড থেকে প্রাপ্ত আয়কে করমুক্ত রাখা এবং জিরো কুপন বন্ড থেকে প্রাপ্ত আয়য়ের করমুক্ত সুবিধা ব্যাংক, ইন্স্যুরেন্স ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সব করদাতাকে অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব করে সিএসই।
বাজেটে শেয়ারবাজারের উন্নয়নের স্বার্থে কিছু প্রস্তাবনার প্রশংসাও করছে সিএসই। সিএসই এমডি বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে রুগ্ন কোম্পানিকে ভালো কোম্পানি কর্তৃক একত্রীকরণ/অধিভুক্ত করার কথা বলা হয়েছে। এটি শেয়ারবাজারের জন্য একটি ভালো প্রস্তাব। এ ছাড়া প্রস্তাবিত বাজেটে রিটেইন্ড আর্নিংস বা রিজার্ভ যদি পরিশোধিত মূলধনের ৫০ শতাংশের বেশি হয়, তবে বাড়তি রিজার্ভের ওপর ১৫ শতাংশ হারে করের প্রস্তাব করা হয়েছে, যা কোম্পানিগুলোকে নগদ লভ্যাংশ দিতে উৎসাহিত করবে বলে আমরা আশা করছি, বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার জন্য লভ্যাংশ আয়ের দ্বৈত কর তুলে নেয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। এতে বাজারে একটি ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।

বিষয়: