সাড়া ফেলে ঈদে সেরা

আগের সংবাদ

বাবাকে নিয়ে তারকাদের গল্প

পরের সংবাদ

‘স্তালিন’ নিয়ে নাট্যাঙ্গনে আলোচনা তুঙ্গে

প্রকাশিত হয়েছে: জুন ১৬, ২০১৯ , ১:৪৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: জুন ১৬, ২০১৯, ১:৪৫ অপরাহ্ণ

Avatar

ঢাকার মঞ্চে কামালউদ্দিন নীলুর নাটক মানেই বিশেষ কিছু। এবার মঞ্চে এসেছে তার নির্দেশিত নতুন মঞ্চনাটক ‘স্তালিন’। নাটকটির কেন্দ্রীয় চরিত্র ১৯২২ থেকে ১৯৫৩ সাল পর্যন্ত সোভিয়েত ইউনিয়নের কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক যোসেফ স্তালিন। ডার্ক-হিউমার যোগে নাটকে তার কর্তৃত্ববাদী চরিত্র তুলে ধরা হয়। গত ১০ জুন, সোমবার সন্ধ্যায় জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে নাটকটির উদ্বোধনী মঞ্চায়ন হয়। এরপর ১১-১২ জুন নাটকটির আরো দুটি প্রদর্শনী হয়। দ্বিতীয় প্রদর্শনীর পর নাটকটিকে ঘিরে আপত্তি তুলে বাংলাদেশের স্তালিন ভক্ত বেশ কয়েকজন বামপন্থি নেতাকর্মী। তারা নাট্যশালার লবিতে স্লোগান দিয়ে নাটকটিতে ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগ তুলে। প্রতিবাদকারীরা ‘দুনিয়ার মজদুর এক হও’, ‘সাম্রাজ্যবাদের দালালেরা হুঁশিয়ার সাবধান, সমাজতন্ত্রের দালালেরা হুঁশিয়ার সাবধানসহ নানা রকম স্লোগান দেন। এ সময় নাটকটি বন্ধের দাবিও ওঠে। সোশ্যাল মিডিয়ায় গত সপ্তাহে এ বিষয়টি হয়ে ওঠে ঢাকার শিল্প-সাহিত্য অঙ্গনের সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। বিষয়টি নিয়ে নাট্যাঙ্গনে চলছে তুমুল আলোচনা। অভিনেত্রী বন্যা মির্জা ফেসবুকে লিখেছেন, ‘নাটক পছন্দ বা অপছন্দ হতেই তো পারে। সমালোচনা থাকবে, তাই বলে নাটক বন্ধ। এটা যারা শুরু করেছেন তাদের ঘরেও আসবে নিশ্চিত।’ নাট্যকার রুমা মোদক বলেন, স্তালিন ইতিহাসের নায়ক না খলনায়ক এই বিতর্ক ডায়নামিক। মার্ক্সবাদ লেনিনবাদ কোনো অপৌরুষেয় শাস্ত্র নয়, এ নিয়ে আলোচনা চলবে না। নাটক বন্ধ করার স্লোগান তোলা প্রতিক্রিয়াশীল আচরণের নামান্তর। নাট্যকার অপু মেহেদী বলেন, নাটক বন্ধ কোনো সুখকর বিষয় নয়। ‘স্তালিন’ নিয়ে
যাদের আপত্তি আছে তারা আবার নাটকটি দেখুন। তারপর প্রযোজনা সংগঠনকে বলুন একটা ‘মিট দ্য ডিরেক্টর’ পর্ব আয়োজন করতে। সেখানে আলোচনা হোক।
নাটকটি প্রসঙ্গে কামালউদ্দিন নীল বলেন, স্তালিন একজন গণনায়ক ও কর্তৃত্ববাদী শাসক। পাশাপাশি তিনি এমন এক বিশাল ছায়া, যা তার মৃত্যুর পরও দুনিয়াকে আবিষ্ট করতে পারে। নাটকটিতে ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগ প্রসঙ্গে কামালউদ্দিন নীলু বলেন, যারা মনে করছে এই নাটকে স্তালিনকে ছোট করা হয়েছে, এই নাটকে ইতিহাস বিকৃতি করা হয়েছে, তারা সঠিক ইতিহাস তুলে ধরুক না। আমি তো একটা ডিসকোর্স তৈরি করলাম, এবার কাউন্টার ডিসকোর্স তৈরি করুক না।
স্তালিনের মাধ্যমে পাঁচ বছর ঢাকার মঞ্চে ফিরলেন কামালউদ্দিন নীলু। দশ মিনিট বিরতিসহ পৌনে তিন ঘণ্টার নাটকে নাম ভ‚মিকায় অভিনয় করেছেন মো. শাহাদাত হোসেন। আরো অভিনয় করেছেন সাবিনা সুলতানা, রায়হান আখতার, এ কে আজাদ, মোহাম্মদ রাফী সুমন, শাওন কুমার দে, শিপ্রা দাস, শান্তনু চৌধুরী, সুব্রত প্রসাদ বর্মণ, মর্জিনা মুনা, মেজবাউল করিম, চিন্ময়ী গুপ্তা, কাবেরী জান্নাত প্রমুখ।