বোনাস শেয়ারে করারোপের ঘোষণায় নেতিবাচক প্রতিক্রিয়ার আশঙ্কা

আগের সংবাদ

যে কারণে ইসিআরে আপত্তি ব্যবসায়ীদের

পরের সংবাদ

প্রস্তাবিত বাজেট ব্যবসা ও জনমুখী : এফবিসিসিআই

প্রকাশিত হয়েছে: জুন ১৬, ২০১৯ , ৪:৪৫ অপরাহ্ণ | আপডেট: জুন ১৬, ২০১৯, ৪:৪৫ অপরাহ্ণ

Avatar

২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে ব্যবসা ও জনমুখী বলে মনে করছে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই। তবে নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে ব্যবসায়ীরা যাতে হয়রানির শিকার না হয় সেজন্য সরকার ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের প্রতি আহবান জানিয়েছে সংগঠনটির সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম। এ ধরনের একটি জনমুখী ও ব্যবসা সহায়ক বাজেট দেয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অর্থমন্ত্রী এবং বাজেট প্রণয়নের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি- বলেন এফবিসিসিআই সভাপতি। এ ছাড়া প্রস্তাবিত বাজেটে অপ্রদর্শিত অর্থ (কালো টাকা) প্রোডাক্টিভ খাতে বিনিয়োগের যে সুযোগ দেয়া হয়েছে তাকে স্বাগত জানিয়েছেন তিনি।
গতকাল শনিবার ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) নিজ কার্যালয়ে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেট পরবর্তী আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন শেখ ফজলে ফাহিম। সংবাদ সম্মেলনে এফবিসিসিআই সহসভাপতি মিসেস হাসিনা নেওয়াজ, রেজাউল করিম রেজনু, মো. সিদ্দিকুর রহমান, মীর নিজাম উদ্দিন ও নিজামুদ্দিন রাজেশ এবং সংগঠনের পরিচালকরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া এফবিসিসিআইয়ের সদস্য সংস্থার প্রতিনিধিরা সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।
এ সময় এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী, আর এ ডি, ইনোভেশন ও আইসিটি, অবকাঠামো, আর্থসামাজিক, দরিদ্র বিমোচন, মানবসম্পদ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও কৃষি খাতে বিশেষ গুরুত্ব দেয়ায় বাজেট যুগোপযোগী। সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর আওতায় মুক্তিযোদ্ধা, বয়স্ক-বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা ভাতা, অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠী, চা-শ্রমিকসহ সব উপকারভোগীর সংখ্যা ও আর্থিক সুবিধা বৃদ্ধি করা মানবিক পদক্ষেপ। এ ছাড়া যুবকদের মধ্যে ব্যবসা উদ্যোগ সৃষ্টির জন্য একশ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে, যা কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সহায়ক হবে। মানসম্পন্ন কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা সম্প্রসারণের উদ্যোগকে আমরা স্বাগত জানাচ্ছি।
শেখ ফজলে ফাহিম বলেন, ২০১২ সালের ভ্যাট আইন এখনো বাস্তবায়ন হয়নি। এখন মাল্টিপল রেট আছে। সেই চর্চার সঙ্গে যারা জড়িত না সেখানে সীমাবদ্ধতা দেখা দিতে পারে। আইনটি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা যেন হয়রানি না হন।
নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়িত হলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সঙ্গে আবারো এফবিসিসিআইয়ের কোনো দূরত্ব তৈরি হবে কিনাÑ এমন প্রশ্নে ফাহিম বলেন, আমরা মনে করি না এনবিআরের সঙ্গে আমাদের দূরত্ব আছে। কারণ দেশের সব সরকারি-বেসরকারি সংগঠনগুলোকে আমাদের সবার সঙ্গে সম্পৃক্ত থেকে কাজ করতে হয়। এখানে দূরত্ব কথাটির সঙ্গে আমরা একমত না।
লিখিত বক্তব্যে এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি বলেন, বাজেটে কৃষকের স্বার্থে শস্য বিমা চালু একটি প্রগতিশীল উদ্যোগ। বছরব্যাপী কৃষকের ফসলের ন্যায্যমূল্য ও সুষ্ঠু সাপ্লাই চেইন নিশ্চিত করতে স্থানীয় পর্যায়ে গুদাম নির্মাণ এবং উন্নয়নের উদ্যোগও সময়োপযোগী।
সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয়, ২০২৪ সাল পর্যন্ত কর অবকাশ সুবিধা শিল্প খাতের বিকাশকে উৎসাহিত করবে। তৈরি পোশাক রপ্তানির ক্ষেত্রে ১ শতাংশ প্রণোদনা প্রদান এবং হ্রাসকৃত করহার বহাল রাখার সিদ্ধান্ত রপ্তানি ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বিশেষ সহায়ক হবে। নতুন বাজেটে ঘাটতি পূরণে ব্যাংক খাতের ওপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে বৈদেশিক উৎস, অবকাঠামো ফান্ড ও বন্ড এবং অন্যান্য ফিন্যান্সিয়াল টুলসের ওপর জোর দেয়ার অনুরোধ করছি। এ বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, সরকার যদি বেশি মাত্রায় ব্যাংক থেকে ঋণ নেয় তাহলে এর প্রভাব বেসরকারি খাতে পড়বে।
ব্যাংকিং খাতের ওপর থেকে চাপ কমাতে অন্যান্য উৎস থাকলে ভালো হয়। কালো টাকাবিষয়ক এক প্রশ্নের উত্তরে এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, বাজেটে কালো টাকার কথা বলা নেই।
সেখান অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের কথা বলা হয়েছে। তিনি বলেন, ২০২১ সালে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে যাবে। আমরা চাই ইনফরমাল ইকোনমি ফরমাল ইকোনমিতে আসুক। অপ্রদর্শিত অর্থের উৎস যেহেতু সঠিক আছে সেহেতু আমরা প্রস্তাবকে ওয়েলকাম জানাই।

বিষয়: