দুই বঙ্গ

আগের সংবাদ

উদ্ভ্রান্ত পাখি

পরের সংবাদ

অ্যান্তোনিও বান্দেরাস

বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী

প্রকাশিত হয়েছে: জুন ২, ২০১৯ , ৪:০৩ অপরাহ্ণ | আপডেট: জুন ২, ২০১৯, ৪:০৩ অপরাহ্ণ

Avatar

‘পেইন এন্ড গ্লোরি’ চলচ্চিত্রে অনবদ্ধ অভিনয়ের জন্য ৭২তম কান চলচ্চিত্র উৎসবে সেরা অভিনেতার পুরস্কার পেয়েছেন স্পেনের তারকা অভিনেতা ও গায়ক অ্যান্তোনিও বান্দেরাস। অস্কারজয়ী স্প্যানিশ পরিচালক পেদ্রো আলমোদোভার ছবি ‘পেইন এন্ড গ্লোরি’। এই স্প্যানিশ সুপারস্টার অ্যান্তোনিও বান্দেরাসকে কী নামে অভিহিত করা যায়? অভিনেতা, পরিচালক কিংবা প্রযোজক সব বিষয়েই সমান পারদর্শী তিনি। জেনে নেয়া যাক তার সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য-
১. অ্যান্তোনিওর পুরো নাম হোসে অ্যান্তোনিও দমিনগেস বান্দেরাস। অভিনয়ে আসার পর অ্যান্তোনিও বান্দেরাস নামেই নিজেকে পরিচিত করেন।
২. ছোটবেলা থেকেই বিখ্যাত ফুটবল খেলোয়াড় হতে চেয়েছিলেন অ্যান্তোনিও, কিন্তু ১৪ বছর বয়সে তার গোড়ালি ভেঙে যায় এবং পরবর্তী সময়ে এটি আর সম্পূর্ণ ঠিক হয়নি, যার জন্য ফুটবল খেলোয়াড় হওয়ার স্বপ্ন শুরুতেই শেষ হয়ে যায়। স্প্যানিশ টিম রিয়াল মাদ্রিদকে সমর্থন করেন এ অভিনেতা।
৩. স্পেনেই কেটেছে তার শৈশব-কৈশোর। তাই স্কুল-কলেজ সবই স্পেনে। এখানে ড্রামাটিক আর্ট স্কুলের ছাত্র অবস্থায়ই অভিনয়ে হাতেখড়ি বর্তমান সফল এ অভিনেতার।
৪. অ্যান্তোনিও কিন্তু বেশ ভালো গান গাইতে ও গিটার বাজাতে পারেন। মাইকেল বেলের সঙ্গে তার গাওয়া ‘মি এন্ড মাই শ্যাডো’ ২০০৩ সালে ‘আ লাভ স্টোরি’ অ্যালবামে প্রকাশ পায়।
৫. অভিনেতা ব্যবসায়ী হিসেবেও বেশ চতুর। স্পেনের সফল ব্যবসায়ী হিসেবে তার যথেষ্ট সুনাম রয়েছে।
৬. ১৯৯৫ সালে ইউকে ম্যাগাজিনে আবেদনময় পুরুষের তালিকায় অ্যান্তোনিও জায়গা করে নেন ২৪তম স্থান।
৭. ১৯৯৬ সালে পিপল ম্যাগাজিনের প্রকাশ করা বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর ৫০ মানুষের তালিকায় ছিলেন তিনি।
৮. অভিনয়ে নাম করার পর সুদর্শন এ অভিনেতা নিজের সুগন্ধি ব্র্যান্ড চালু করেন ছেলেদের জন্য।
৯. ব্যক্তিগত জীবনে অ্যান্তোনিও দুবার বিয়ে করেছেন। প্রথম স্ত্রী আনা লিজার সঙ্গে বিচ্ছেদের পর ১৯৯৬ সালে অভিনেত্রী মেলানি গ্রিফিথকে বিয়ে করেন, যা ২০১৪ সালে ভেঙে যায়। এ দম্পতির সংসারে স্টিলা নামে ১৪ বছর বয়সী এক কন্যাসন্তান রয়েছে। বর্তমানে ডাচ ব্যাংকার নিকোল কিম্পেলের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে এ অভিনেতার।
১০. ২০০৮ সালে অভিনয়ে অসামান্য অবদানের জন্য তাকে সান সেবাস্টিয়ান ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভালে আজীবন সম্মাননা দেয়া হয়।
মেলা ডেস্ক