বৃষ্টির বাধায় উইন্ডিজ-দক্ষিণ আফ্রিকার খেলাও বন্ধ

আগের সংবাদ

সৌদির বিমানবন্দরে হুথিদের ড্রোন হামলা

পরের সংবাদ

নান্দাইলে মোবাইল চুরিকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীকে কুপিয়ে হত্যা

প্রকাশিত হয়েছে: মে ২৬, ২০১৯ , ৫:২৯ অপরাহ্ণ | আপডেট: মে ২৬, ২০১৯, ৫:২৯ অপরাহ্ণ

Avatar

ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলায় মোবাইল চুরিকে কেন্দ্র করে বিরোধের জেরে এক কলেজ শিক্ষার্থীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। নিহত শিক্ষার্থীর নাম তারিফ হাসান হৃদয় (১৯)। তিনি খুররম খান চৌধুরী কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ও উপজেলার চরভেলামারী গ্রামের মজিবুর রহমানের ছেলে। এ ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও নিহতের পরিবার জানায়, তারিফ হাসান হৃদয়ের বাড়ি থেকে কিছুদিন আগে একটি মোবাইল চুরি হয়। পরে চুরি হওয়া মোবাইলটি চাচাতো ভাই ইলিয়াসের প্রেমিকার কাছ থেকে টাকার বিনিময়ে উদ্ধার করেন হৃদয়।

এ মোবাইল চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাচাতো ভাই ইলিয়াছ উদ্দিনের সঙ্গে বিরোধ চলছিল হৃদয়ের। আজ রোববার সাহরির সময় চাচাতো ভাই ইলিয়াস, বাবলু, শাহীন ও এমদাদ বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে বালিপাড়া ব্রিজের নিচে হৃদয়কে রশি দিয়ে বেঁধে কুপিয়ে ও ছুরিকাঘাতে হত্যা করে ফেলে যায়। খবর পেয়ে নান্দাইল মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে হৃদয়ের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

নিহতের মা বিলকিছ বেগম বলেন, সাহরির সময় ইলিয়াস ও তার লোকজন হৃদয়কে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। বাকি রাতে ঘরে না ফেরায় অনেক খোঁজাখুঁজি করেও সন্ধান পাইনি তার। সকালে বালিপাড়া ব্রিজের নিচে হৃদয়ের মরদেহ দেখতে পেয়ে আমাদের খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে আমার ছেলের মরদেহ শনাক্ত করি। ইলিয়াস সিরাজগঞ্জ থেকে গুন্ডা ভাড়া করে এনে আমার ছেলেকে হত্যা করেছে। আমি আমার ছেলের হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই।

নান্দাইল মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম মিয়া বলেন, বন্ধু-বান্ধব ও চাচাতো ভাইয়ের মধ্যে একটি মোবাইল চুরিকে কেন্দ্র করে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে সিরাজগঞ্জের শাহীন, বাবুল ও এমদাদকে আটক করা হয়েছে। মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে।