ঈদে সৈয়দপুর রেল কারখানায় ৪০টি কোচ সচল করা হচ্ছে

আগের সংবাদ

প্রিয় মানুষদের মিস করছেন আলাউদ্দিন আলী

পরের সংবাদ

কেনাকাটায় ভাগ্য বদল লাগলে খবর আছে!

প্রকাশিত হয়েছে: মে ২১, ২০১৯ , ২:১০ অপরাহ্ণ | আপডেট: মে ২১, ২০১৯, ২:১০ অপরাহ্ণ

Avatar

ঈদুল ফিতর সমাগত। এ জন্য শত ব্যস্ততার মাঝেও সূর্যের প্রচণ্ড উত্তাপ আর যানজট উপেক্ষা করে মানুষ কেনাকাটা করতে মার্কেটগুলোতে ভিড় করছে। ক্রেতার এই বাড়তি চাপ দেখে বিক্রেতারাও খুশি। তারপরও বিক্রি বাড়াতে লটারি, বিশেষ ছাড় কিংবা ফ্রি উপহার দিয়ে ক্রেতা আকর্ষণের চেষ্টা করছেন তারা। ‘ভাগ্যে থাকলে ঠেকায় কে?’ ‘লাগলে খবর আছে!’ গাড়ি আছে, ফ্ল্যাট আছে, টিভি, ফ্রিজ, মোটরসাইকেল, আরো কত কি!
রাজধানীর বড় বড় সব শপিংমলে নানা অফার দিয়ে পণ্য বিক্রি হচ্ছে। আছে স্পেশাল অফার। বিক্রেতারা বলছেন, মূল্যছাড় কিংবা ফ্রি কিছু থাকলেই ক্রেতারা ওই পণ্যের ওপর হুমড়ি খেয়ে পড়েন। অন্যদিকে ক্রেতারা বলছেন, ফ্রি ও লটারির নামে বিক্রেতারা পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।
এরপরও সরেজমিন নগরীর বিভিন্ন মার্কেটে ক্রেতারা এমন সব অফার লুফে নিচ্ছেন। লটারিতে নিজের নাম এবং মোবাইল নাম্বার লিখে কুপনের বাকি অংশ বাক্সে ফেলছেন। মালিবাগ থেকে ফরচুন শপিং মলে কেনাকাটা করতে আসা মনিকা ইসলাম বলেন, পরিবারের সবার জন্যই ড্রেস কিনেছি। কিন্তু বিভিন্ন অফার ও লটারির কারণে দাম গতবারের তুলনায় একটু বেশি। রাজধানীর বসুন্ধরা সিটিতে কথা হয় সেলিম হোসেন ও ফারজানা দম্পতি সঙ্গে। সেলিম জানান, ঈদে পরিবারের সবার জন্য কেনাকাটা করেছি। ছোটদের পোশাকের দাম তুলনামূলক এবার একটু বেশি। তবে প্রায় প্রতিটি পণ্যে বিক্রেতারা লাকি কুপন দিচ্ছেন। এবার দেখা যাক ভাগ্যে কি আছে।
কর্ণফুলী গার্ডেন সিটি শপিং কমপ্লেক্স কমিটির একজন সদস্য জানান, চাঁদ রাত পর্যন্ত চলমান এসব কুপনের সব পুরস্কার তাৎক্ষণিক নিতে পারবেন ক্রেতারা। এই মার্কেটে দেড় টন ওজনের ৩টি এসি, ৩টি এলইডি টিভিসহ ৯০টি আকর্ষণীয় পুরস্কার রয়েছে। মোট তিনটি ধাপে র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হবে। ফরচুন শপিংমলে প্রতি ৫০০ টাকার পণ্যে পাবেন একটি কুপন। মদিনা শাড়ি এন্ড থ্রিপিচ, মোহাম্মাদীয়া শাড়ি বিতান ও পাতামনি শাড়িজ কুপনগুলো স্পন্সর করেছে।
এশিয়ার সর্ববৃহৎ যমুনা ফিউচার পার্ক শপিংমলে প্রতি এক হাজার টাকার কেনাকাটায় ক্রেতাদের স্ক্র্যাচ কার্ড দেয়া হচ্ছে। এ কার্ড ঘষে ক্রেতারা পাচ্ছেন নিশ্চিত উপহার। উপহারের তালিকায় আছে প্রাইভেটকার, ইভো ও সুজুকির মতো ব্র্যান্ডেড মোটরসাইকেল, সোনার গহনা, ডায়মন্ডের অলঙ্কার, এলইডি টিভি, ফ্রিজ, মাইক্রোওয়েভ ওভেন, ডিনার সেট, টি-সেট, ক্যামেরা, মোবাইল ফোন ইত্যাদি। কার্ড স্ক্র্যাচ করে উপহার ক্রেতাদের হাতে তাৎক্ষণিকভাবে দেয়া হচ্ছে।
বসুন্ধরা সিটি সুপার মার্কেটে রমজানের প্রথম দিন থেকে শুরু হয়েছে কুপন দেয়া। চলবে চাঁদ রাত পর্যন্ত। ২০০ টাকার পণ্য কিনে ক্রেতারা পাচ্ছেন একটি কুপন। এর মধ্যে মেগা পুরস্কার ১১টি এবং সুপার পুরস্কার ১০৯টি। মেগা পুরস্কারের মধ্যে রয়েছে ১৫০০ সিসির ব্রান্ড নিউ কার টয়োটা, ডায়মন্ড সেট, ৮১২ সিসির চেরি কার, ৩ ও ৫ ভরি সোনার গহনা, সায়মন বীচ রিসোর্টে ৩ দিন ২ রাতের এয়ারট্রিপসহ ট্যুর প্যাকেজ, ১১০ সিসির মাহিন্দ্র স্কুটার, ৪৭ ইঞ্চি এলইডি টিভি, মোটরসাইকেল ইত্যাদি। সুপার পুরস্কারের মধ্যে রয়েছে এমপোরিও আরমানি ঘড়ি, ৪৩ ইঞ্চি প্রজেকশন টিভি, এয়ার কন্ডিশনার, রেফ্রিজারেটর, মোবাইল সেট, ক্যামেরা, ইলেকট্রিক ওভেন, ডিনার সেট, ইলেক্ট্রিক আয়রন ইত্যাদি।
রাপা প্লাজার জয়িতা থেকে ৫০০ টাকার পণ্য কিনলে একটি কুপন পাওয়া যাচ্ছে। এখানে পুরস্কারের তালিকায় রয়েছে সাড়ে ১০ সিএফটির একটি ফ্রিজ, এলইডি টিভি, মাইক্রোওভেন, মোবাইল সেট ইত্যাদি। উত্তরার আমির কমপ্লেক্সে মোটরসাইকেল, এলসিডি টেলিভিশন, রেফ্রিজারেটরসহ অসংখ্য পুরস্কার রয়েছে। ট্রপিক্যাল আলাউদ্দিন টাওয়ারে মোটরসাইকেলসহ মোট ২৭টি পুরস্কার রয়েছে। এ ছাড়া উত্তরা টাওয়ারে কেনাকাটা করলে পাচ্ছেন ঈদে ফ্যান্টাসি কিংডমে যাওয়ার ডিসকাউন্ট কুপন। মতিঝিল আইডিয়াল প্রাইমারি স্কুলের সহকারী শিক্ষিকা নাহিদ ফারজানা চুমকি জানান, ঈদ উপলক্ষে কুপনের এই সিস্টেমটা ভালোই করেছে। কেনাকাটাও হলো আবার ভাগ্যটাকেও যাচাই করা হলো।
রাজধানীর বড় বড় বিপণিবিতানের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলছে ছোট ছোট বিতানগুলো। ঈদকে সামনে রেখে এ সব বিতানের প্রতিটি শোরুমেই রয়েছে বিভিন্ন পোশাক ক্রয়ের ওপর ১০ থেকে ৩০ শতাংশ বিশেষ ছাড়। এ ছাড়াও পোশাক ক্রয়ে বিকাশ ব্যবহার করলে ১৫ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, সিটি ব্যাংকের ডেবিট কার্ডে মিলছে ১০ শতাংশ ছাড়। ব্র্যাক ব্যাংকের কার্ডে রয়েছে ৭ শতাংশ ক্যাশ ব্যাকের সুযোগ। এ ছাড়াও কয়েকটি বিপণিবিতানে ক্রয়ের ওপরও দিচ্ছে ৩০ শতাংশ পর্যন্ত মূল্য ছাড়। এ সুযোগগুলো লুফে নিতে এবং নতুন নতুন বাহারি পোশাক কিনতে সকাল থেকেই বিপণিবিতানগুলোতে ভিড় করছেন ক্রেতারা।
তবে শপিংমলগুলোর এসব কুপন সিস্টেম নিয়ে অনেকে আবার ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তাদের অভিযোগ উপহারের নামে চলছে প্রকাশ্যে এক ধরনের জুয়া খেলা। এখানে প্রশাসনও নির্বিকার। এ ছাড়া যেসব পুরস্কার দেয়ার কথা থাকে, তা আসলে দেয়া হয় না।
রাজধানী ঢাকার পাশাপাশি জেলাগুলোতেও ঈদ কেনাকাটায় চলছে পুরস্কারের ছড়াছড়ি। সিলেটে এবারের ঈদে কেনাকাটায় টয়োটা মোটরগাড়িসহ ২৫ লাখ টাকার পুরস্কারের আয়োজন করেছে আল-হামরা শপিং সিটি ব্যবসায়ী সমিতি ও জেক্স টেক্সটাইল। আল-হামরা শপিং সিটির যে কোনো দোকান ও নগরীর জেক্সের শোরুম থেকে ন্যূনতম ৫০০ টাকার কেনাকাটায় কুইজে অংশ নেয়ার কুপন পাওয়া যাবে।