স্মার্টফোন ব্যবসাকে বিদায় জানাচ্ছে এইচটিসি!

আগের সংবাদ

মোস্তাফিজ-মাশরাফি তৃতীয় স্থানে

পরের সংবাদ

বিশ্বকাপের থিম সং অবমুক্ত

প্রকাশিত হয়েছে: মে ১৯, ২০১৯ , ১:০৮ অপরাহ্ণ | আপডেট: মে ১৯, ২০১৯, ১:০৮ অপরাহ্ণ

Avatar

চার বছর পরে এবার দ্বাদশ ওয়ার্ল্ড কাপ ক্রিকেটের আসর বসতে চলেছে ইংল্যান্ডে। ৩০ মে থেকে বিশ্বসেরা হওয়ার লড়াইয়ে নামতে চলেছে ১০টি দেশ। সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে মুক্তি পেল আসন্ন ওয়ানডে বিশ্বকাপের থিম সং। বিশ্বকাপ শুরুর ১১দিন সময় বাকি থাকতে গত শুক্রবার ‘স্ট্যান্ড বাই’ শীর্ষক এ গানটি সবার জন্য উন্মুক্ত করেছে আইসিসি। এই গান ও এর ভিডিওতে দেখা মিলবে ব্রিটেনের বিভিন্ন অংশের সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য।
‘স্ট্যান্ড বাই’ এই এক শব্দে অনেক কিছুই বলা হয়ে যায়। স্ট্যান্ড বাই মানে পাশে থাকা। স্ট্যান্ড বাই মানে সঙ্গে থাকা। যে সময়ে পাশে থাকাটা প্রয়োজন সেই সময় বলা যায়- স্ট্যান্ড বাই। অর্থাৎ, সমর্থনের আশা। গানের ভিডিও অবশ্যই ক্রিকেটনির্ভর। শহরের রাস্তা, সমুদ্রের তীর, বাড়ির উঠোন সর্বত্র ক্রিকেট। সেটাই আইসিসি তুলে ধরল থিম সং-এ। মাঠে থাকুন বা না থাকুন, গ্যালারিতে বসে গলা ফাটান বা টিভির সামনে বসে, আবেগে যেন কমতি না থাকে। ৪৫ দিনের টুর্নামেন্টে ম্যাচ হবে ৪৮টি। প্রতিটা ম্যাচে, বিশ্বকাপের ম্যাচ আয়োজন করা প্রতিটা মাঠে, শহরে বাজবে থিম সং। গোটা টুর্নামেন্টজুড়ে সমর্থকদের পাশে থাকার ডাক দেবে এই গান।
ফুটবলের তুলনায় ক্রিকেটের ব্যপ্তি কম হলেও যেটুকু বিস্তার তাতে ভালোবাসার কোনো কমতি নেই। সমর্থনেও নেই কার্পণ্য। ক্রিকেট আবেগ, ক্রিকেট অনুভূতি, ক্রিকেট উপলব্ধির মধ্যে কোনো ভেজাল নেই। এ গানের মূল বার্তা হলো একতা। সব ধরনের মানুষকে আমাদের সুরে বাঁধা। গানের প্রথম কয়েকটি লাইনের বঙ্গানুবাদ হচ্ছে :
তোমার উচিত আমাকে ডাকা
আমি যাওয়ার আগেই
কারণ আমার আরো অনেক সুযোগ আছে
এটা ভেবো না আমার নেই।
যুক্তরাজ্যের অন্যতম সফল ব্যান্ড রুডিমেন্টালের সঙ্গে কানাডিয়ান উঠতি সঙ্গীত তারকা লরিন মিলে গেয়েছেন এ গানটি। ৩ মিনিট ২০ সেকেন্ডের এ মিউজিক ভিডিওতে বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী দশ দলসহ সারাবিশ্বের ক্রিকেটপ্রেমীদের একীভূত করার চেষ্টা করেছে আইসিসি। গানটির মুক্তি দিয়েই আইসিসি ঘোষণা দেয় আসন্ন বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হবে এটিই। এ গান মুক্তি পাওয়ার আগে রুডিমেন্টালের অন্যতম সদস্য পিয়েরস অ্যাগেট থিম সংটির ব্যাপারে বলেন, আমাদের বৈচিত্র্যকে উদযাপন করাই মূলত আমাদের ব্যান্ডের বার্তা। অবশ্যই আমাদের বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান রয়েছে। তবে আমরা লন্ডনের ব্যান্ড। যেটা বিশ্বের অন্যতম বৈচিত্রপূর্ণ শহর। গানটির মাধ্যমে আমরা পৃথিবীর বিচিত্রতাকে তুলে ধরতে চাই। এটিই আমাদের লক্ষ্য।
এ ছাড়া বিশ্বকাপের নির্বাহী পরিচালক স্টিভ এলওয়ার্থি এ ব্যাপারে বলেন, খেলাধুলার মঞ্চে সঙ্গীতের যে প্রভাব ও গুরুত্ব তা মেনে নেয়া ছাড়া উপায় নেই। খেলোয়াড়দের উজ্জীবিত করা থেকে শুরু করে দর্শকদের জন্য একটা পরিচিত সুর প্রয়োজন। আমি নিশ্চিত এ থিম সংটা বিশ্বকাপের প্রাণ হয়ে থাকবে।
৩০ তারিখ থেকে শুরু হওয়া এই ওয়ার্ল্ড কাপের পর্দা নামবে ১৪ জুলাই লর্ডসে। রাউন্ড রবিন লিগের এই বিশ্বকাপ চমকপ্রদ হবে বলে মনে করছেন প্রাক্তন তারাকারা। কেনিংটন ওভালে ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকার ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে বিশ্বকাপ। লন্ডনের ওভালে মাশরাফি বাহিনীর বিশ্বকাপ সফর শুরু হবে ২ জুন থেকে প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা।