তিউনিসিয়ায় নৌকাডুবিতে নিহতদের পরিচয় মেলেনি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আগের সংবাদ

কথিত আইএস বার্তা, অতঃপর...

পরের সংবাদ

মাশরাফিকে কটূক্তি: শোকজের জবাব দিলেন ৬ চিকিৎসক

প্রকাশিত হয়েছে: মে ১৪, ২০১৯ , ৭:৩২ অপরাহ্ণ | আপডেট: মে ১৪, ২০১৯, ৭:৩২ অপরাহ্ণ

অনলাইন প্রতিবেদক

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ওয়ানডে অধিনায়ক এবং সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজাকে কটূক্তির অভিযোগে ৬ চিকিৎসককে কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) দিয়েছিল স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। শোকজপ্রাপ্ত চিকিৎসকরা জবাব দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ওই মন্ত্রণালয়ের উপসচিব শামীমা নাসরিন।

গত ৬ মে নওগাঁ জেলা হাসপাতালের ইনডোর মেডিকেল অফিসার ডা. মৌমিতা জলিল জুলিসহ ওই ৬ চিকিৎসককে তিন কর্মদিবসের মধ্যে শোকজের জবাব দিতে বলা হয়। গত ৯ মে ছিল তিন কর্মদিবসের শেষ দিন।

শামীমা নাসরিন বলেন, ওই ৬ চিকিৎসক ইতোমধ্যে আমাদের দফতরে জবাব পাঠিয়েছেন। আর আমি উপরের নির্দেশ ছাড়া ফাইল প্রসেস করতে পারি না। তবে, নির্দেশ পেলে ফাইল প্রসেস করে পাঠাবো। এরপর তারা (ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ) কী ব্যবস্থা নেয় সেটা তাদের বিষয়। তবে গেল বৃহস্পতিবার তিনি বলেছিলেন, আমার কাছে এ পর্যন্ত কেউ জবাব দেয়নি। তবে সবাই হয়তো জবাব দেবে।

এব্যাপারে হাসপাতালগুলোর সার্বিক দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা ওই মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বাবলু কুমার দাশ বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না। আমি কয়েকদিন ধরে ব্যস্ত ছিলাম। আমি এটা নিয়ে খোঁজ নিতে পারিনি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেখুন আমরা শোকজ করেছি তারা জবাব দেবে। সেই অনুসারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এটা একটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়া।

এব্যাপারে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. ফজলুল হক বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না। আমি গেল সাত দিন ধরে দেশের বাইরে ছিলাম।

কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া চিকিৎসকরা হলেন— নওগাঁ জেলা হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জলিলের কন্যা ডা. মৌমিতা জলিল জুলি, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের হেমাটো অনকোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. এ কে এম রেজাউল করিম, ঢাকা মেডিকেল কলেজের রেসপিরেটরি মেডিসিনের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের নিউরোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. পঞ্চানন দাশ, বগুড়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পেডিয়াট্রিকসের রেজিস্ট্রার ডা. আইরিন আফরোজ ও মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার ডা. ফাহমিদী হাসান।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি নড়াইল সদর হাসপাতালে হঠাৎ পরিদর্শনে গিয়েছিলেন সংসদ সদস্য মাশরাফি। সেখানে তিনি কর্তব্যরত চিকিৎসকদের কর্মস্থলে অনুপস্থিত পান। এসময় একজন চিকিৎসকের সঙ্গে মোবাইল ফোনে অনুপস্থিতির কারণ জানতে চেয়ে কথা বলেন। কথোপকথনের সে দৃশ্য পরবর্তীতে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে অনেকে যেমন মাশরাফিকে বাহবা দেন, ঠিক তেমনি কেউ কেউ বিশেষ করে চিকিৎসক সমাজ মাশরাফির কথার ধরণ নিয়ে প্রশ্ন তুলে তার সমালোচনা করেন।