বস্ত্রশিল্পে বিনিয়োগে স্থবিরতা

আগের সংবাদ

যাবতীয় নাগরিক সুবিধা পৌঁছে দেয়া হচ্ছে গ্রামে

পরের সংবাদ

৫২টি ভেজাল পণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ

প্রকাশিত হয়েছে: মে ১২, ২০১৯ , ২:২৮ অপরাহ্ণ | আপডেট: মে ১২, ২০১৯, ২:২৮ অপরাহ্ণ

Avatar

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৫২টি ব্র্যান্ডের মানহীন ও ভেজাল পণ্য ১০ দিনের মধ্যে প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বাজারে থাকা এসব পণ্য দ্রুত অপসারণ করে ধ্বংস এবং মানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ না হওয়া পর্যন্ত তার উৎপাদন বন্ধ করতেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আদালত বলেছেন, এগুলো ধ্বংস করে ফেলতে হবে যেন তৃতীয় কারও হাতে না যায়।

রবিবার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ নির্দেশ দেন।

এর আগে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৫২টি মানহীন ও ভেজাল পণ্য বাজারে থাকার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্স অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই) ও নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের দুই কর্মকর্তা হাইকোর্টে উপস্থিত হন। তারা হলেন-বিএসটিআইয়ের পরিচালক প্রকৌশলী এস এম ইসাহাক আলী ও নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের পরিচালক ড. সহদেব চন্দ্র সাহা।

খাদ্যে ভেজাল রোদে যেসব আইন আছে তা যথেষ্ট শক্তিশালী এমন মন্তব্য করে এ সময় আদালত শুধু রমজান মাসে ভেজালবিরোধী অভিযান চালানোর জন্য নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সমালোচনা করেন।

আদালতে বিএসটিআই এর পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সরকার এম আর হাসান। নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের পক্ষে শুনানি করেন ফরিদুল ইসলাম।

গত ৯ মে ৫২টি ভেজাল পণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহার ও জব্দ চেয়ে রিটের শুনানিতে বিএসটিআইয়ের পরীক্ষায় প্রমাণিত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৫২টি ভেজাল ও নিম্নমানের পণ্য জব্দ এবং এসব পণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহার ও উৎপাদন বন্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কি-না সে বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বিএসটিআই ও বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য অধিদপ্তরের দুই কর্মকর্তাকে তলব করে হাইকোর্ট।

কনসাস কনজুমার সোসাইটির পক্ষে ব্যারিস্টার শিহাব উদ্দিন খান জনস্বার্থে রিট আবেদনটি দায়ের করেন।