শচিন পুত্রকে নিয়ে কাড়াকাড়ি

আগের সংবাদ

কড়াই মুরগি

পরের সংবাদ

জেমিতেই ভরসা বাফুফের

প্রকাশিত হয়েছে: মে ৬, ২০১৯ , ৩:২৮ অপরাহ্ণ | আপডেট: মে ৬, ২০১৯, ৩:২৮ অপরাহ্ণ

Avatar

বাংলাদেশে ফিরছেন না জাতীয় দলের কোচ জেমি ডে- এমন কথা শোনা যাচ্ছিল গত কয়েক দিন ধরেই। ছুটি কাটিয়ে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জেমির ঢাকায় না ফেরার কারণেই এমন শঙ্কা জাগে বাংলাদেশের ফুটবলপ্রেমীদের মনে। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সঙ্গে জেমি ডের চুক্তির মেয়াদ ছিল চলতি বছরের ৪ মে পর্যন্ত। তাই তার না ফেরায় অনেকেই ভেবেছিলেন হয়তোবা জেমি ডের বাংলাদেশ অধ্যায়ের সমাপ্তি ঘটেছে। তবে শেষ পর্যন্ত এমন কিছুই হয়নি। জেমির অধীনে জামাল ভূঁইয়াদের সফলতার কথা বিবেচনা করে তার সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ এক বছর বাড়িয়েছে বাফুফে। সে হিসেবে জেমি ডের সঙ্গে বাফুফের চুক্তির মেয়ার শেষ হবে ২০২০ সালের মে মাসে।
বিষয়টি নিশ্চিত করে গতকাল বাফুফের টেকনিক্যাল এন্ড স্ট্র্যাটেজিক ডিরেক্টর পল স্মলি বলেন, জেমির সঙ্গে বাফুফের নতুন চুক্তি হয়েছে। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন তার সঙ্গে ১২ মাসের চুক্তি করেছে। জেমি এ মাসের তৃতীয় সপ্তাহে ঢাকায় ফিরবেন। জেমির ঢাকায় ফেরার পর বাংলাদেশ দলের বিশ্বকাপ প্রাক-বাছাইয়ের প্রস্তুতি শুরু হবে বলেও জানান স্মলি। তিনি বলেন, বিশ্বকাপের প্রাক-বাছাইয়ের ম্যাচে আগামী মাসে বাংলাদেশ ও লাওস মুখোমুখি হবে। জেমির ঢাকায় ফেরার পরেই এই ম্যাচটির জন্য পুরোদমে প্রস্তুতি শুরু করবে খেলোয়াড়রা।
বিশ্বকাপ প্রাক-বাছাইয়ে লাওসের বিপক্ষে হোম এন্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে খেলবে বাংলাদেশ। যেখানে আগামী ৬ জুন প্রথম পর্বের ম্যাচে লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের আতিথেয়তা দেবে লাওস। আর দুদলের মধ্যকার দ্বিতীয় পর্বের ম্যাচটি হবে আগামী ১১ জুন ঢাকায়।
ছুটি কাটাতে এখন পরিবারের সঙ্গে ইংল্যান্ডে অবস্থান করলেও লাওসের বিপক্ষে ম্যাচটির কথা ঠিকই মনে আছে জেমি ডের। এ ম্যাচ নিয়ে তার অভিমত, লাওস বাংলাদেশের চেয়ে র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে আছে। জয়ের ক্ষেত্রেও এগিয়ে রয়েছে তারা। যদি জয়-পরাজয়ের সম্ভাবনার কথা উঠে তবে বলব, জয়ের ক্ষেত্রে ৬০ শতাংশ এগিয়ে আছে লাওস। আর আমাদের জয়ের সম্ভাবনা ৪০ শতাংশ।
২০১৮ সালের ১৭ মে জেমি ডে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের কোচ হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। একই দিন অনূর্ধ্ব-২৩ দলেরও দায়িত্ব নেন তিনি। তার অধীনে এখন পর্যন্ত ৮টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ জাতীয় দল। এর মধ্যে জিতেছে ৪টি ম্যাচে এবং হেরেছে ৪টিতে।
জেমি ডের অধীনে বেশ কিছুু সফলতা পেয়েছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দল। এ ক্ষেত্রে বিশেষভাবে বলতে হয় যুবাদের দুটি জয়ের কথা। যুবাদের পাওয়া এই দুটি জয়েই রচিত হয়েছে নতুন ইতিহাস। এই জয়গুলোর একটি গত বছরের আগস্টে অনুষ্ঠিত এশিয়ান গেমসে কাতারের বিপক্ষে এবং অপরটি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এএফসি অনূর্ধ্ব-২৩ বাছাইয়ে। কাতারের বিপক্ষে পাওয়া জয়টি ছিল এশিয়ান গেমসে বাংলাদেশের প্রথম জয়। আর শ্রীলঙ্কাকে হারানোর মধ্য দিয়ে এএফসি অনূর্ধ্ব-২৩ চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইয়ে নিজেদের ১৩তম ম্যাচে এসে প্রথম জয়ের দেখা পায় লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। অর্থাৎ বাংলাদেশের ফুটবল ইতিহাসের দুই ‘প্রথম’-এর সাক্ষী জেমি ডে।

বিষয়:
  • আরও পড়ুন
  • লেখকের অন্যান্য লেখা